ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা রোববার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ ১১ আশ্বিন ১৪২৮
ই-পেপার রোববার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১
http://www.shomoyeralo.com/ad/amg-728x90.jpg

গুলিতে যুবক আহত
ফের বেপরোয়া আত্মসমর্পণকারী ইয়াবা ব্যবসায়ী জামাল গং
টেকনাফ (কক্সবাজার) প্রতিনিধি
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ২:৪৪ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 100

কক্সবাজারের টেকনাফে ফের বেপরোয়া হয়ে উঠেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণকারী ইয়াবা ব্যবসায়ী জামাল হোছাইন ওরফে জামাল মেম্বার ও তার ছেলেরা। তাদের অবৈধ অস্ত্রের ঝনঝনানিতে আতঙ্কে রয়েছেন স্থানীয়রা। বুধবার সকাল ১০টার দিকে রফিক (২৮) নামে এক চাকরিজীবীকে প্রকাশ্যে গুলি করে জামাল বাহিনীর সন্ত্রাসীরা।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, জামাল ও তার ছেলেদের সশস্ত্র এক বিশাল সন্ত্রাসী বাহিনী রয়েছে। সন্ধ্যা হলেই এই বাহিনী এলাকায় অবৈধ অস্ত্র নিয়ে বের হয়ে ফাঁকাগুলি ছুড়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করে গ্রামের মানুষকে ভয়ভীতিতে রাখে। এসব অস্ত্র ব্যবহার করে ইয়াবা ব্যবসা সামাল দেয়। ওই সন্ত্রাসী বাহিনীর ভয়ে বাপ-ছেলের বিরুদ্ধে কেউ মুখ খুলতে সাহস করে না।

স্থানীয়দের সূত্রে জানা গেছে, জামাল মেম্বার একসময় টেকনাফের হ্নীলা ইউপির রঙ্গীখালী এলাকার অসহায় ব্যক্তি ছিল। ইয়াবা ব্যবসা করে অল্পদিনে টাকা কামাই করে অবৈধ অস্ত্র কিনে গড়ে তোলে শক্তিশালী সন্ত্রাসী বাহিনী। এর পর থেকে সেই বাহিনী দিয়ে জমজমাটভাবে ইয়াবা ব্যবসা করে কোটি কোটি টাকা ও সম্পদের মালিক বনে যায়।

কালোটাকার মালিক বাপের পথ ধরে তার ছেলে শাহ আজম, শাহ নেওয়াজ ও জুয়েলও বেপরোয়া হয়ে পড়ে। তারা দেশের কোনো আইনকানুনের তোয়াক্কা করে না।

ইয়াবা ব্যবসা করার দায়ে ২০১৯ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি ১০২ জন ইয়াবা ব্যবসায়ীর সঙ্গে টেকনাফ পাইলট হাই স্কুল মাঠে তাদের অবৈধ অস্ত্র ও ইয়াবা জমা দিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর উপস্থিতিতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করেছিল জামাল ও তার ছেলেরা। জামাল মেম্বার ও তার দুই ছেলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত বড় ইয়াবা ব্যবসায়ী। জামাল মেম্বার ও তার ছেলে শাহ আজম আত্মসমর্পণ করলেও ইয়াবা ব্যবসায়ী বাকি দুই ছেলে- শাহ নেওয়াজ ও জুয়েল আত্মসমর্পণ করেনি। আত্মসমর্পণ না করে বেঁচে যাওয়ায় অস্ত্র নিয়ে আরও বেপরোয়া হয়ে ওঠে তারা।

বুধবার সকাল ১০টার দিকে রফিক (২৮) নামে এক চাকরিজীবীকে জামাল ও আজম বাহিনী প্রকাশ্যে গুলি করে। গুলির শব্দ শুনে স্থানীয়রা এগিয়ে এলে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা স্থানীয়দের সামনে বীরদর্পে ফাঁকাগুলি ছুড়ে সবাইকে আতঙ্কিত করে পালিয়ে যায়। গুলিবিদ্ধ রফিক কক্সবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

এ বিষয়ে জানতে জামাল মেম্বারের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, আমার ছেলে গুলি করেনি, গুলি করেছে রোহিঙ্গা ডাকাত ও এলাকার লোকজন।

এ বিষয়ে টেকনাফ মডেল থানার ওসি হাফিজুর রহমান জানান, অপরাধীদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

/জেডও/




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]