ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা বৃহস্পতিবার ২১ অক্টোবর ২০২১ ৬ কার্তিক ১৪২৮
ই-পেপার বৃহস্পতিবার ২১ অক্টোবর ২০২১
http://www.shomoyeralo.com/ad/amg-728x90.jpg

বাংলাদেশে আসতে চান না ‘আইএস বধূ’ শামীমা
সময়ের আলো ডেস্ক
প্রকাশ: শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১২:৫৩ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 96

বাংলাদেশে আসতে চান না ‘আইএস বধূ’ শামীমা বেগম। ফিরতে চান যুক্তরাজ্যে। সে দেশের সরকারকে সহায়তা করতে চান সন্ত্রাসবাদ দমনে। বুধবার সিরিয়ার এক শরণার্থী শিবির থেকে বিবিসি, বিবিসি ফাইভ লাইভ এবং আইটিভিকে পৃথক সাক্ষাৎকার দেন শামীমা। মাত্র ১৫ বছর বয়সে যুক্তরাজ্য থেকে সিরিয়ায় পালিয়ে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসীগোষ্ঠী আইএসে (ইসলামিক স্টেট) যোগ দেওয়া ওই ব্রিটিশ-বাংলাদেশি নারী বলছেন, তিনি অনুতপ্ত। নিজের কৃতকর্মের জন্য বাকি জীবন গ্লানি বোধ করবেন।

শামীমার জন্ম লন্ডনে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মা-বাবার ঘরে। যখন তিনি লন্ডন ছেড়ে যান তখন তার বয়স ছিল ১৫ বছর। ২০১৫ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে দুই বান্ধবীসহ যুক্তরাজ্য থেকে সিরিয়ায় পাড়ি জমান শামীমা। তিনজনই ছিলেন বাংলাদেশি অধ্যূষিত পূর্ব লন্ডনের বেথনাল গ্রিন একাডেমির শিক্ষার্থী। সিরিয়ায় পাড়ি দিয়ে শামীমা ডাচ‌ বংশোদ্ভূত আইএস সদস্য ইয়াগো রিদাইককে বিয়ে করেন। এর কিছুদিন পর শামীমা একটি ছেলেসন্তানের জন্ম দেন, কয়েকদিন পর শিশুটির মৃত্যু হয়। ইয়াগো রিদাইক ও শামীমা বেগম দম্পতির আগেও দুটি সন্তান হয়েছিল। তবে কোনো সন্তানই বেঁচে নেই। অপুষ্টি ও অসুস্থতায় তারা মারা যায় বলে জানিয়েছিলেন শামীমা।

২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে ব্রিটিশ এক সাংবাদিক সিরিয়ার একটি শরণার্থীশিবিরে শামীমার সাক্ষাৎ পান। তখন শামীমা যুক্তরাজ্যে ফিরে আসার আকুতি জানান। তবে তৎকালীন ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী (এখন স্বাস্থ্যমন্ত্রী) সাজিদ জাভিদ তার নাগরিকত্ব বাতিল করেন। এখন শামীমা সিরিয়ার একটি শরণার্থী শিবিরে রয়েছেন। সেখান থেকে আইটিভির প্রভাতী অনুষ্ঠান ‘গুড মর্নিং ব্র্রিটেন’ এ দেওয়া সাক্ষাৎকারে শামীমা ব্রিটিশ জনগণ এবং ব্রিটিশ সরকারের কাছে ক্ষমা চেয়ে তাকে দেশে ফেরার সুযোগ দেওয়ার আহ্বান জানান।

শামীমা বেগমকে সাক্ষাৎকারে জিজ্ঞাসা করা হয়, তিনি বংশগতভাবে বাংলাদেশের নাগরিক, কাজেই তিনি কেন বাংলাদেশে যাচ্ছেন না? জবাবে শামীমা বেগম বলেন, তিনি জীবনে কখনও বাংলাদেশে যাননি, বাংলাদেশি নাগরিকত্বের কোনো অধিকার তার নেই।

আর বাংলাদেশের কর্তৃপক্ষ এরই মধ্যে জানিয়ে দিয়েছেন, তাকে সেখানে যেতে দেওয়া হবে না এবং গেলে তাকে মৃত্যুদণ্ডের মুখোমুখি হতে হবে। তিনি প্রশ্ন করেন, যে ব্রিটেন মৃত্যুদণ্ডে বিশ্বাস করে না, তারা কীভাবে আশা করে যে মৃত্যুদণ্ডের মুখোমুখি হওয়ার জন্য তিনি বাংলাদেশে যাবেন।

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের উদ্দেশে শামীমা বেগম বলেন, ‘আমি বলতে চাই আপনি সন্ত্রাসবাদ দমনে নিশ্চয়ই হিমশিম খাচ্ছেন, আমি এ নিয়ে আপনাকে সাহায্য করতে চাই। আমি আমার অভিজ্ঞতা থেকে আপনাকে বলতে পারব এই জঙ্গিরা কীভাবে সিরিয়ার মতো জায়গায় লোকজনকে তাদের কথামতো কাজ করতে বাধ্য করে। আমি সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে আপনার লড়াইয়ে সাহায্য করতে পারব।’

তিনি আরও বলেন, ‘ব্রিটিশ সরকারের উচিত আমাকে হুমকি হিসেবে গণ্য না করে বরং সম্পদ হিসেবে বিবেচনা করা।’

২২ বছর বয়সি শামীমা বেগম আইটিভির গুড মর্নিং ব্রিটেন অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছিলেন একেবারে পশ্চিমা ধাঁচের পোশাক পরে, যে ধরনের পোশাকে তাকে আগে কখনও দেওয়া যায়নি। সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকেই অভিযোগ করছেন, শামীমা বেগম আসলে এখন ব্রিটেনে ফিরে আসার জন্য এবং মানুষের সহানুভূতি পাওয়ার উদ্দেশেই ইচ্ছে করেই পশ্চিমা পোশাকে এই টিভি অনুষ্ঠানে সাক্ষাৎকার দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে শামীমা আইটিভিকে বলেন, তিনি হিজাব পরা ছেড়ে দিয়েছেন প্রায় এক বছরেরও বেশি আগে। কারণ তার মনে হচ্ছিল হিজাবের কারণে তিনি একটা গণ্ডির মধ্যে বাধা পড়ে যাচ্ছেন। তার বেশ-ভূষা এবং চেহারায় এই নাটকীয় পরিবর্তন মানুষের মন জয় করার জন্য নয় বলে তিনি দাবি করেন।

বিবিসির রিপোর্টার জশ বেকারকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে শামীমা বেগম বলেন, আইসিসে যোগ দেওয়ার কথা মনে পড়লে তিনি অসুস্থবোধ করেন, নিজের প্রতি ঘৃণা বোধ করেন এবং এখন তার প্রকৃত অনুভূতি প্রকাশ করতে পেরে তিনি স্বস্তিবোধ করছেন। ‘আমি আমার বাকি জীবন এজন্য দুঃখ বোধ করব। আপনি আমার মুখে তার ছাপ দেখতে পান বা না পান- এটা আমাকে ভেতর থেকে মেরে ফেলছে। এজন্য আমি ঘুমাতে পারি না’ বলেন তিনি।

আইসিস তার খেলাফত কায়েম রাখতে পারেনি বলেই কি তিনি এখন তার মত পরিবর্তন করেছেন; এমন প্রশ্নের জবাবে শামীমা বলেন, বহুদিন আগেই তার ধারণা পরিবর্তন হয়েছিল, তবে এখন তিনি তা প্রকাশ করতে পারার মতো মানসিক অবস্থায় পৌঁছেছেন। ‘আইসিস মানুষের জীবন নষ্ট করেছে, আমার ও আমার পরিবারের জীবন নষ্ট করেছে।’ বলেছেন তিনি।

/জেডও/




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]