ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা সোমবার ১৮ অক্টোবর ২০২১ ৩ কার্তিক ১৪২৮
ই-পেপার সোমবার ১৮ অক্টোবর ২০২১
http://www.shomoyeralo.com/ad/amg-728x90.jpg

শঙ্কা-সম্ভাবনায় জয়-লেখকের দুই বছর
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: রোববার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৮:২১ পিএম আপডেট: ১৯.০৯.২০২১ ৮:২৭ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 1149

ছিলেন পাদপ্রদীপের বেশ দূরে। কিন্তু কর্মদক্ষতায় সংগঠনকে দিয়েছিলেন নিজেদের সবটুকু নিংড়ে। এরপর এলো ক্রান্তিলগ্ন। সরাসরি সংগঠনের শীর্ষ দায়িত্ব পেলেন তারা। বলছিলাম ছাত্রলীগের শীর্ষ দুই নেতা সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যের কথা। ২০১৯ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর চরম উৎকণ্ঠার রাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাত্রলীগের তৎকালীন দুই শীর্ষ নেতাকে সরিয়ে নতুনদের হাতে দায়িত্ব তুলে দেন। তারপর কেটে গেছে দুই বছর। এই সময়ে কতটা সফল জয়-লেখকের ছাত্রলীগ!

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন তাদেরকে দায়িত্বে বসান তারপর থেকে প্রথম কাজ ছিল সংগঠনকে শৃঙ্খলার মধ্যে নিয়ে আসা ও কমিটিগুলো নিয়মিত করা। এ ছাড়া ছাত্রলীগের ঐতিহ্য অনুযায়ী দেশের প্রয়োজনে কাজ করার নির্দেশও দেন ছাত্রলীগের অভিভাবক।

সেই অনুযায়ী কাজে নেমে গত দুই বছরে করা হয়েছে বহু কমিটি। ২০২১ সালে ১১টি জেলা ২টি মহানগরসহ মোট ১৩টি নতুন কমিটি করা হয়েছে। সরকারি ৬টি মেডিকেল কলেজে নতুন কমিটি করা হয়। এছাড়া ৩টি জেলা কমিটি এবং একটি মেডিকেল কলেজ (মুগদা) কমিটি পূর্নাঙ্গ করা হয়। নতুন করে কমিটি দিতে ৩টি জেলার (লালমনিরহাট, রাজশাহী এবং নাটোর) জীবন বৃত্তান্ত নেয়া আছে বলেও জানা গেছে। এছাড়াও গাজীপুর জেলা ও মহানগর এবং সিলেট জেলা ও মহানগরের নতুন কমিটি গঠন আলোচনায় আছে। এছাড়াও পটুয়াখালী জেলা শাখার নতুন কমিটির জন্য জীবন বৃত্তান্ত নেয়া হয়েছে।

জয়-লেখকের নেতৃত্বে এই কমিটি ২০২০ সালে ৫টি জেলার নতুন কমিটি গঠন করে দেয়। এ সময় ৬টি সরকারি মেডিকেল কলেজে এবং সম্মিলিত বেসরকারি চিকিৎসা বিজ্ঞান শাখা সহ মোট ৭টি মেডিকেল শাখার নতুন কমিটি গঠন করা হয়। এ ছাড়া ৬টি জেলা (২টি বিশ্ববিদ্যালয়) কমিটি পূর্নাঙ্গ করা হয়। ২০১৯ সালে দায়িত্ব নেয়ার পরপরই ১টি জেলার নতুন কমিটি ২টি জেলা ও ২টি বিশ্ববিদ্যালয় কমিটি পূর্নাঙ্গ করা হয়।


এ ছাড়া বৈশ্বিক মহামারী করোনাকালেও ওয়ার্ড, ইউনিয়ন, উপজেলা, পৌরসভা, জেলা পর্যায়ে সাধারণ মানুষ এবং সাধারণ ছাত্রদের পাশে থেকেছে ছাত্রলীগ। সংগঠনের উদ্যোগে বিগত দুই বছর মহামারীকালে অক্সিজেন সরবরাহ, করোনায় মৃতদের গোসল ও সৎকার, চিকিৎসা সেবার সহায়তা, খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দেয়াসহ বেশ কিছু উদ্যোগ ছিলো ছাত্রলীগের দেশ জুড়ে। শুধু তাই নয়, লকডাউনকালে শ্রমিক সংকটের মুহূর্তে ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে ধান কাটা, মাড়াই ও কৃষকের ঘরে পৌঁছে দিয়ে আসার মত উদ্যোগগুলো প্রশংসা কুড়িয়েছে দেশ জুড়ে। আওয়ামী লীগের শীর্ষ পর্যায় থেকেও ছাত্রলীগের মানবিক ভূমিকায় প্রত্যাবর্তনের ভূয়সী প্রশংসা করা হয়।

তথ্য সন্ত্রাস ও গুজব মোকাবেলায় অনলাইনে আরও সক্রিয় ভূমিকা রাখছে ছাত্রলীগ। সংগঠনে এ বিষয়ে বেশ কিছু কর্মশালাও করা হয়েছে বিভিন্ন এলাকায়।

ছাত্রলীগের সার্বিক কার্যক্রম প্রসঙ্গে সংগঠনটির সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় বলেন, 'একটা বিশেষ সময়ে ছাত্রলীগের অভিভাবক দেশরত্ন শেখ হাসিনা আপা আমাদেরকে দায়িত্ব দেন। এরপর থেকেই আমরা সংগঠনে গতি আনতে কাজ শুরু করি। সাংগঠনিক জেলা-উপজেলাসহ বিভিন্ন জায়গায় স্বচ্ছভাবে কমিটি করে দেয়া হয়েছে। সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডের বাইরে নিয়মিত কর্মসূচিতেও আমাদের নেতাকর্মীদেরকে যুক্ত রেখেছি।

তিনি বলেন, 'আমরা দায়িত্ব নেয়ার পরপরই দেশে বৈশ্বিক মহামারী করোনা সংক্রমণ শুরু হয়। এই সময়ে দেশের মানুষের পাশে থাকতে সাংগঠনিক নির্দেশনা দেয়া হয়েছিল। অক্সিজেন সরবরাহ, জরুরি চিকিৎসা ব্যবস্থাসহ নানা ব্যবস্থা নিয়েছে নেতাকর্মীরা। ভবিষ্যতেও ছাত্রলীগ এভাবে কাজ করে যাবে।

এ প্রসঙ্গে সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য বলেন, জাতির পিতার নিজ হাতে গড়া সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের একটি বিশেষ পরিস্থিতিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা আমাদের দায়িত্ব দিয়েছেন। দায়িত্ব নেওয়ার পর পরই সংগঠনকে গতিশীল করতে নানামুখী কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছি। সারাদেশে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের সার্বিক দিকনির্দেশনার মাধ্যমে মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর এই মাহেন্দ্রক্ষণে শিক্ষা-শান্তি-প্রগতির মূলমন্ত্রে দীক্ষিত হয়ে মুজিব আদর্শের প্রেরণায় উজ্জীবিত হয়ে, জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে একটি অসাম্প্রদায়িক, উন্নত সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশ বিনিমার্ণে এগিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি।

তিনি আরো বলেন, দায়িত্ব নেওয়ার মাত্র মাস কয়েক পরেই বৈশ্বিক মহামারি করোনা আঘাত হানে। আমাদের অভিভাবক মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার নির্দেশে করোনা সংকটের শুরু থেকেই দেশের এই ক্রান্তিকালে সারাদেশে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা নিজে সচেতন থেকে মাঠ পর্যায়ে জনসাধারণের মাঝে সচেতনতার আলো ছড়িতে দিতে স্বেচ্ছাসেবামূলক কার্যক্রমের মাধ্যমে বিশেষ ভূমিকা রেখে চলেছে। এসব ভালো কাজের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কাজ করে যাচ্ছে।

প্রসঙ্গত, বিভিন্ন অভিযোগের ভিত্তিতে ছাত্রলীগের শীর্ষ পদ থেকে রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও গোলাম রাব্বানীকে অপসারণ করে ২০১৯ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর ছাত্রলীগের প্রথম সহ-সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়কে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সংগঠনটির প্রথম যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যকে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক করা হয়। এর প্রায় সাড়ে তিন মাস পর কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের পূর্ণ দায়িত্ব দেয়া হয় আল নাহিয়ান খান জয় ও লেখক ভট্টাচার্যকে।


আরও সংবাদ   বিষয়:  জয়-লেখক  




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]