ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা সোমবার ২৫ অক্টোবর ২০২১ ১০ কার্তিক ১৪২৮
ই-পেপার সোমবার ২৫ অক্টোবর ২০২১
http://www.shomoyeralo.com/ad/amg-728x90.jpg

বিমানবন্দরে করোনা টেস্ট শুরু হতে সময় লাগবে
রফিক রাফী
প্রকাশ: বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৩:১৬ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 103

সিদ্ধান্ত হলেও এখন পর্যন্ত আরটি-পিসিআর ল্যাবই বসানো হয়নি হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে। এমনকি বিমানবন্দরে বিদেশগামীদের করোনা টেস্ট কবে থেকে করা সম্ভব হবে তা নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না সংশ্লিষ্ট কেউ।

সংশ্লিষ্ট একাধিক জনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, অন্য দেশের শর্ত এবং প্রবাসীদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে যত দ্রুত সম্ভব বিমানবন্দরে আরটি-পিসিআর ল্যাব স্থাপনের সিদ্ধান্ত হয়। সাতটি প্রতিষ্ঠান শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে করোনা পরীক্ষার আরটি-পিসিআর ল্যাব বসাতে অনুমোদন পায়। বিমানবন্দরের ছাদে ল্যাব স্থাপনের জন্য জায়গা নির্ধারণ করে সিভিল অ্যাভিয়েশন। কিন্তু বিমানবন্দরের ছাদ ল্যাব বসানোর উপযুক্ত না হওয়ায় আপত্তি জানায় প্রতিষ্ঠানগুলো। সে জন্য মঙ্গলবার প্রাথমিকভাবে বিমানবন্দরের ভেতরে ল্যাব স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এদিকে ল্যাব স্থাপন না হওয়ায় বিমানবন্দরে বিদেশগামীদের করোনা টেস্ট শুরু করতে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্টতা থাকা, র‌্যাপিড পিসিআর পরীক্ষার যন্ত্র না থাকা এবং বিমানবন্দরের ভেতরে ল্যাব বসানোর স্থান নিয়ে কালক্ষেপণ হওয়ায় এই অনিশ্চয়তা তৈরি হয়। এ বিষয়ে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদে এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, ছাদে ল্যাব স্থাপনের অনুকূল পরিবেশ তৈরি হওয়ার আগে সাময়িকভাবে বিমানবন্দরের ভেতরেই ল্যাব স্থাপন করা হবে। তবে ল্যাব চালুর সুনির্দিষ্ট সময় জানাতে পারেননি তারা।    

কবে নাগাদ বিমানবন্দরে করোনার পরীক্ষাগার চালু হবে- এ প্রশ্নের জবাবে প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী বলেন, এটা তো এক সপ্তাহ আগে হওয়া উচিত ছিল। কিন্তু বাস্তবে সেটা হয়নি। বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্টতা থাকায় একটু সময় লাগছে। এই সমস্যার মোটামুটি একটা সমাধান হয়েছে।

মন্ত্রী ইমরান আহমেদ বলেন, সংযুক্ত আরব আমিরাত চেয়েছে বিমানবন্দরে র‌্যাপিড পিসিআর টেস্ট, এদিকে আমাদের দেশে র‌্যাপিড পিসিআর পরীক্ষার যন্ত্র নেই।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, যেসব প্রতিষ্ঠান বিমানবন্দরে আরটি-পিসিআর ল্যাব বসিয়ে করোনার টেস্ট করবে তাদের স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিউর (এসওপি) মানসম্মত কি না, তা যাচাই করতে চায় সংযুক্ত আরব আমিরাত। সে জন্য অনুমোদন পাওয়া ৭টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৬টি প্রতিষ্ঠানের এসওপি দেশটিতে পাঠিয়েছে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)। আরব আমিরাত এসব প্রতিষ্ঠানের বিষয়ে আপত্তি না জানালে কাজ দেওয়া হবে। কোনো প্রতিষ্ঠানের এসওপি নিয়ে আপত্তি এলে তাদের কাজ দেওয়া হবে না। পাশাপাশি আমিরাত বিমানবন্দরে আরটি-পিসিআর ল্যাবে করোনার টেস্ট করে পরীক্ষামূলকভাবে ৫০ যাত্রীকে পাঠানোর জন্য বেবিচককে চিঠি দিয়েছে। বুধবার যাত্রীদের পাঠানোর কথা থাকলেও ল্যাব স্থাপন না হওয়ায় তা আর সম্ভব হচ্ছে না।

আরব আমিরাতে পাঠানো এসওপি প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, এ বিষয়টি সিভিল অ্যাভিয়েশনের কাজ, এটা প্রবাসী কল্যাণ ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দেখার বিষয় নয়। এটা তারা কোথায় পাঠিয়েছে, কোথায় ক্লিয়ারেন্স পাবে, সেই ভিত্তিতে সিভিল অ্যাভিয়েশন কাজ করবে। আগের সিদ্ধান্ত ছিল সাতটি প্রতিষ্ঠানকে পরীক্ষাগার করতে দেওয়া হবে। টেকনিক্যাল কমিটি সিলেকশন করেছে। এটা আমাদের কাছে পাঠানো হয়েছে, এর পর সেটি আমরা সিভিল অ্যাভিয়েশনের কাছে পাঠিয়ে দিয়েছি। আপাতত আরটি-পিসিআর ল্যাবের কাজ দিচ্ছি, পরে র‌্যাপিড পরীক্ষাও আমরা বিবেচনায় নেব। এটা কোথায় গিয়ে ঠেকবে আমি এখনও বলতে পারছি না।

ছাদে ল্যাব বসানোর বিষয়ে ইমরান আহমেদ বলেন, বিমানবন্দরে পার্কিংয়ের ছাদ তৈরি করতে ১০ দিন লাগবে। বিমানবন্দরের ভেতরেও জায়গায় আছে, সেখানে দুই থেকে তিন দিনের মধ্যে কাজ হবে। যারা কাজ করবে বলেছিল তারা যদি এখন বলে যন্ত্র নেই, আমদানি করতে হবে, তাহলে আমি বলব বাড়িতে চলে যাও। অঙ্গীকার অনুযায়ী, আগামী তিন দিনের মধ্যে ল্যাব বসাতে হবে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, পরীক্ষার জন্য লাগবে পরীক্ষাগার, সেই পরীক্ষাগার বসাতে জায়গা লাগবে। দ্রুত এই কাজ শুরু করার জন্য বিমানবন্দরের ভেতরে একটি জায়গা দেওয়া হয়েছে। ছয়টি প্রতিষ্ঠানকে কাজ দেওয়া হয়েছে, তারা আপাতত ছোট আকারে সেখানে পরীক্ষাগার বসাবে। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব এ কার্যক্রম শুরু করা হবে।
স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বিমানবন্দরের বহুতল কার পার্কিংয়ের ছাদে স্টিলের কাঠামো করে পরে করোনার আরেকটি পরীক্ষাগার বসানো হবে। সেই জায়গা শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত হবে, পানি ও বিদ্যুতের ব্যবস্থা থাকবে। এটা করতে হয়তো একটু সময় লাগবে।

কবে নাগাদ ল্যাব চালু হবে জানতে চাইলে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আমাদের যে কাজ ছিল তা সম্পন্ন হয়েছে। বাকি কাজ প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের। আমরা যে কয়টি প্রতিষ্ঠানের নাম প্রস্তাব করেছিলাম সে কয়টি তারা নির্বাচিত করেছে।

এ বিষয়ে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল এম মফিদুর রহমান বলেন, করোনার পরীক্ষাগার স্থানান্তরের সিদ্ধান্ত সরকারিভাবে হয়েছে। এ কারণে নতুন করে সংযুক্ত আরব আমিরাত কর্তৃপক্ষকে স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিউর আবার দিতে হবে কি না আমি নিশ্চিত না।
বিমানবন্দরের ভেতরের জায়গা প্রসঙ্গে বেবিচক চেয়ারম্যান বলেন, ভেতরের জায়গা ছোট। পরীক্ষাগার বসানো হলে আমরা বুঝতে পারব কয়টা বুথ বসিয়ে কতজনকে একসঙ্গে পরীক্ষা করা যাবে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, জয়নুল হক সিকদার ওমেন্স মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হসপিটাল স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিউর জমা দেয়নি। ফলে ল্যাব স্থাপনের সুযোগ পাচ্ছে না। বাকি ৬টি প্রতিষ্ঠান হচ্ছে- স্টেমজ হেলথ কেয়ার (বিডি) লিমিটেড ঢাকা, সিএসবিএফ হেলথ সেন্টার, এএমজেড হাসপাতাল লিমিটেড, আনোয়ার খান মডার্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, ডিএমএফআর মলিকুলার ল্যাব অ্যান্ড ডায়াগনোস্টিক ও গুলশান ক্লিনিক লিমিটেড। এগুলোর মধ্যে ডিএমএফআর মলিকুলার ল্যাব অ্যান্ড ডায়াগনোস্টিক প্রথমে ল্যাব স্থাপন করবে।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]