ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা বৃহস্পতিবার ২১ অক্টোবর ২০২১ ৬ কার্তিক ১৪২৮
ই-পেপার বৃহস্পতিবার ২১ অক্টোবর ২০২১
http://www.shomoyeralo.com/ad/amg-728x90.jpg

বিসিবির নজরে তিন বিশ্বকাপ
ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশ: বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৭:৪৭ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 80

শেষের পথে আইসিসির চলমান আট বছরের সাইকেল। এরই মধ্যে পরবর্তী সাইকেলে (২০২৩ থেকে ২০৩১) যেসব বৈশ্বিক টুর্নামেন্টগুলো হবে, সেগুলোও চূড়ান্ত করে ফেলেছে বিশ্ব ক্রিকেটের অভিভাবক সংস্থাটি। যে সূচি সংস্থাটি দিয়েছে, তাতে প্রতিবছর অন্তত একটি করে বৈশ্বিক ইভেন্ট থাকছে। সব মিলে এই আট বছরে ছেলেদের ক্রিকেটে হবে আটটি বিশ্বকাপ। কোন দেশ কোন ইভেন্টটি আয়োজন করতে আগ্রহী, আনুষ্ঠানিকভাবে সেটা জানাতে বলেছে আইসিসি। অন্যদের মতো সুযোগটা কাজে লাগাতে তৎপর বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডও (বিসিবি)। নিজেদের সাধ্যের জায়গা থেকে তিনটি বৈশ্বিক ইভেন্টের আয়োজক হওয়ার প্রস্তাব করেছে দেশের ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি।

প্রায় হারিয়েই যেতে বসেছিল ‘মিনি বিশ্বকাপ’খ্যাত চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি। তবে নতুন সাইকেলে দুবার (২০২৫ আর ২০২৯ সালে) হবে এ টুর্নামেন্ট। যেখানে অংশ নেবে র‌্যাঙ্কিংয়ের সেরা আট দল। বাংলাদেশের নজর ২০২৫ সালের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে। আসরটি এককভাবে আয়োজন করতে চায় বিসিবি। নতুন সাইকেলে ২০ দল নিয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ হবে দুই বছর পরপর (২০২৪, ২০২৬, ২০২৮ ও ২০৩০ সালে)। এখান থেকে একটির আয়োজক হওয়ার প্রস্তাব দিয়েছে বাংলাদেশ। তবে এককভাবে নয়, যৌথভাবে। কেননা এককভাবে আয়োজক হওয়ার জন্য যতগুলো স্টেডিয়াম থাকা দরকার, বর্তমানে বাংলাদেশে তা নেই। তাই শ্রীলঙ্কার সঙ্গে যৌথভাবে ২০২৪ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আয়োজক হতে চায় বাংলাদেশ।

এখানেই শেষ নয়। ওয়ানডে বিশ্বকাপেরও আয়োজক হতে আবেদন করেছে বিসিবি। ২০২৩ থেকে ২০৩১ সাইকেলে ৫০ ওভারের দুটো বিশ্বকাপ রেখেছে আইসিসি। যার একটি হবে ২০২৭ সালে, অন্যটি ২০৩১ সালে। এখান থেকে একটি আসরের আয়োজক হওয়ার ইচ্ছা বাংলাদেশের। কিন্তু এক্ষেত্রেও মাঠের স্বল্পতা থাকায় বাধ্য হয়েই শ্রীলঙ্কা আর পাকিস্তানের সঙ্গে যৌথ আয়োজক হওয়ার পথে হাঁটতে হচ্ছে বিসিবিকে। মঙ্গলবার সংস্থার বর্তমান কার্যনির্বাহী পর্ষদের শেষ অর্থাৎ ১২তম সভা শেষে এমনটাই জানিয়েছেন বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।

৫০ ওভার আর ২০ ওভারের বিশ্বকাপ এককভাবে আয়োজনে ভেন্যুর স্বল্পতা থাকলেও মিনি বিশ্বকাপখ্যাত চ্যাম্পিয়ন ট্রফি এককভাবে আয়োজন করার মতো যথেষ্ট স্টেডিয়াম বাংলাদেশে আছে। এমনটা জানিয়ে বিসিবি বস নাজুমল হাসান বললেন, ‘আমরা আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির জন্য এককভাবে আবেদন করেছি। কারণ এই ইভেন্ট করার জন্য যে কয়টা স্টেডিয়াম দরকার, সে কয়টা আমাদের আছে। আর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য আমরা শ্রীলঙ্কার সঙ্গে যুগ্মভাবে আবেদন করেছি। ওই বিশ্বকাপের জন্য যে পরিমাণ স্টেডিয়াম দরকার, সেটা আমাদের নেই। তবে দুটো দেশ মিলে করা যায়।’

ওয়ানডে বিশ্বকাপের কথাও বললেন বিসিবি সভাপতি, ‘ওয়ানডে বিশ্বকাপের জন্য আমরা তিনটা দেশ- বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা ও পাকিস্তান মিলে আবেদন করেছি।’ বিশ্বকাপের যৌথ আয়োজক অবশ্য নতুন কিছু নয়।

পাকিস্তানকে সঙ্গে নিয়ে ১৯৮৭ বিশ্বকাপ আয়োজন করেছিল ভারত। এরপর ১৯৯৬ বিশ্বকাপ আয়োজন করেছিল ভারত, পাকিস্তান আর শ্রীলঙ্কা মিলে। ২০১১ বিশ্বকাপেও ভারতের সঙ্গে সহ-আয়োজক ছিল বাংলাদেশ আর শ্রীলঙ্কা। মোদ্দা কথা, এ যাবৎকালে এই উপমহাদেশে আয়োজিত ওয়ানডে বিশ্বকাপের কোনোটিই এককভাবে হয়নি। তবে ২০২৩ বিশ্বকাপ অবশ্য ভারত একাই আয়োজন করছে। মূলত এ কারণেই ভারতকে বাদ রেখে পাকিস্তান আর শ্রীলঙ্কাকে সঙ্গে নিয়ে বিশ্বকাপ আয়োজনে নজর দিয়েছে বাংলাদেশ।

তবে বিসিবি আয়োজক হতে চাইলেই তো আর হবে না। এক্ষেত্রে সরকারের পক্ষ থেকে সবুজ সংকেতও থাকতে হবে। সেটাও লিখিতভাবে। নাজমুল হাসান জানালেন, বর্তমান সরকারের কাছ থেকে সেটা বিসিবি পেয়ে গেছে, ‘এখানে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো- সরকারি বিভিন্ন মন্ত্রণালয় থেকে অনুমতি বা গ্যারান্টির দরকার। আমরা আনন্দের সঙ্গে জানাচ্ছি যে, এ সংক্রান্ত অনুমতি নেওয়ার যে পত্র দরকার হয়, সেটার প্রথমটাই পেয়েছি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে, ওনার নিজের সই করা। এখানে যদি কোনো টুর্নামেন্ট হয়, সব দায়িত্ব নিচ্ছে বাংলাদেশ সরকার। অনেক দেশের কিন্তু এ ব্যাপারে সমস্যা হচ্ছে।’

অর্থাৎ আয়োজক হতে বাংলাদেশের কোনো সমস্যা নেই। অবশ্য চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে আইসিসি। বিসিবি এখন সে সিদ্ধান্তেরই অপেক্ষায়।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]