ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা সোমবার ১৮ অক্টোবর ২০২১ ৩ কার্তিক ১৪২৮
ই-পেপার সোমবার ১৮ অক্টোবর ২০২১
http://www.shomoyeralo.com/ad/amg-728x90.jpg

তেজগাঁওয়ে গাড়িচালকের বিবস্ত্র লাশ উদ্ধার, খুনের নেপথ্যে কী
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ১২ অক্টোবর, ২০২১, ৯:১৫ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 136

গাজীপুর সিটি করপোরেশনের কোনাবাড়ী অঞ্চলের প্রকৌশলী দেলোয়ার হত্যার সঙ্গে তেজগাঁওয়ে গাড়িচালক সজল ঘোষ (৩০) হত্যার মিল খুঁজে পাচ্ছে তদন্ত সংশ্লিষ্টরা। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একটি সূত্র জানায়, ২০২০ সালের ১১ মে প্রকৌশলী দেলোয়ারকে সিটি করপোরেশনের গাড়িতে মিরপুরের বাসা থেকে নিয়ে আসা হয়। এরপর গাড়ির ভেতর গলায় গামছা পেঁচিয়ে শ্বাসরোধ করে তাকে হত্যা করা হয়।

তদন্ত সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানায়, প্রকৌশলী দেলোয়ার ইউডিসি কনস্ট্রাকশনে চাকরি করতেন। সজল ঘোষ একই প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মো. কালাম হোসেনের ব্যক্তিগত গাড়িচালক। প্রকৌশলী দেলোয়ার হত্যার সময় মো. কালামকে নিয়েও প্রশ্ন উঠেছিল বলে জানিয়েছে তদন্ত সংশ্লিষ্টরা। তবে এখনও দেলোয়ার হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়েছে বলে নিহত দেলোয়ারের স্ত্রী অভিযোগ করেন।

গত শনিবার রাতে রাজধানীর তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল এলাকায় একটি গাড়ি থেকে সজল ঘোষের (৩০) বিবস্ত্র অবস্থায় অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনার দুদিন পেরিয়ে গেলেও খুনিদের কাউকে শনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ। গত রোববার তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানায় একটি হত্যা মামলা করা হয়। মামলার বাদী নিহতের ভাই আলো কুমার ঘোষ। মামলায় কয়েকজনকে অজ্ঞাতপরিচয় আসামি করা হয়েছে। মামলা নম্বর-১৪। পুলিশের একটি সূত্র জানায়, সজল ঘোষের লাশ উদ্ধারের সময় যে আলামত উদ্ধার করা হয়েছে তাতে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, কোনো নারীঘটিত কারণে এই চাঞ্চল্যকর হত্যাকাণ্ডটি ঘটতে পারে। ওই সূত্র আরও জানায়, পূর্বশত্রুতার জের বা অন্য কোনো ঘটনাও থাকতে পারে। তবে এটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড তা নিশ্চিত হয়েছেন তদন্তকারীরা। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, তা হলে খুনের নেপথ্যে কী?

এদিকে সজল ঘোষের লাশ উদ্ধারের পরপরই থানা পুলিশের পাশাপাশি র‌্যাব, সিআইডি ও পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগসহ কয়েকটি সংস্থা আসামিদের গ্রেফতারে তদন্ত চালিয়ে যাচ্ছে। সূত্র জানায়, সিসি ক্যামেরা ফুটেজ দেখে আসামিদের শনাক্ত করার চেষ্টা চলছে। ওই এলাকায় কখন, কারা ওই গাড়ি থেকে নেমেছে তার সিসি ক্যামেরার ফুটেজ বিশ্লেষণ করা হচ্ছে।

এ ব্যাপারে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) মো. শহীদুল্লাহ সময়ের আলোকে জানান, এই হত্যাকাণ্ডটি একটি চাঞ্চল্যকর হত্যাকাণ্ড। আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে খুনিদের শনাক্ত করার চেষ্টা করছি। আপাতত এর বাইরে কিছু বলা সম্ভব নয়। আশা করছি শিগগিরই আসামি গ্রেফতার হবে।

পুলিশের তদন্ত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, গাড়িচালক সজলের মালিকের বাসা ধানমন্ডিতে এবং তার অফিস মহাখালীতে। অফিস থেকে গাড়ি নিয়ে মালিককে আনত। আবার অফিস শেষ হলে ধানমন্ডিতে মালিককে নামিয়ে দিয়ে আসত। অফিসের নিচেই গাড়িটি পার্কিং করা থাকত। গাড়িটি ধানমন্ডি থেকে ফেরার সময় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সামনে দিয়ে নিয়মিত মহাখালী যেত। কিন্তু ঘটনার দিন গাড়িটি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সামনে দিয়ে না গিয়ে বিজয়সরণি-লাভ রোড ফ্লাইওভার দিয়ে আসে। লাশ উদ্ধারের সময় সজলের পরনে কোনো কাপড় ছিল না। বিবস্ত্র অবস্থায় লাশ উদ্ধার করা হয়। তদন্তকারীরা এসব বিষয় সামনে রেখে তদন্তকাজ চালাচ্ছেন।

/জেডও/


আরও সংবাদ   বিষয়:  খুন  




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]