ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা সোমবার ২৫ অক্টোবর ২০২১ ১০ কার্তিক ১৪২৮
ই-পেপার সোমবার ২৫ অক্টোবর ২০২১
http://www.shomoyeralo.com/ad/amg-728x90.jpg

কাঁটাতারের বাঁধ মানেনি ভালোবাসা-বন্ধন
গোলাম রব্বানী, হিলি
প্রকাশ: শুক্রবার, ১৫ অক্টোবর, ২০২১, ৫:৪৩ এএম আপডেট: ১৫.১০.২০২১ ৭:৩৬ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 60

সনাতন ধর্মালম্বীদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজার বৃহস্পতিবার ছিল মহানবমী। এ উপলক্ষে দিনাজপুরের হিলি সীমান্তের দুই পাশে দুই দেশের দর্শনার্থীরা ভিড় করছেন। কেউ এসেছেন ভারতীয় প্রতিমা দেখতে, কেউবা বাংলাদেশি প্রতিমা দেখতে। অনেকে দীর্ঘদিন দেখা না হওয়া ওপারের স্বজনদের দেখতে এসেছেন। যদিও দেখা করার সুযোগ নেই, তারপরও দূর থেকে হাত নেড়ে কথা বলে ফিরে যাচ্ছেন তারা। দুই দেশের দর্শনার্থীদের পদচারণায় মিলন মেলায় পরিণত হয়ে যায় হিলি সীমান্তের জিরো পয়েন্ট চেকপোস্ট এলাকা।

দুর্গাপূজার সময় প্রতিদিন সকাল-বিকাল ভারত ও বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থান থেকে হিলি সীমান্তে আসেন দর্শনার্থীরা। বিজিবি-বিএসএফের অনুমতি না মেলায় সীমান্তে দাঁড়িয়ে ছবি তুলে ফিরছেন তারা। প্রতি বছর দুর্গাপূজার সময় দুই দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে দর্শনার্থীরা ছুটে আসেন হিলি সীমান্তে।

বাংলাদেশে বসবাসরত স্বজনদের সঙ্গে দেখা করতে বৃহস্পতিবার বিকালে হিলি সীমান্তে আসেন ভারতীয় নাগরিক বাসন্তী রানী। তিনি বলেন, ভাই-ভাতিজা, দাদা-বউদি সবাই আমাদের সঙ্গে দেখা করতে জয়পুরহাটের পাঁচবিবি থেকে এসেছে। আমাদের বাড়ি বালুরঘাটের কুচিলায়। ১৫ বছর ধরে তাদের সঙ্গে সেভাবে দেখা হয়নি। পূজার সময় সীমান্তে নাকি দেখা করতে দেয়। এজন্য আজ এসেছি। বিএসএফ ও বিজিবিকে অনেক অনুরোধের পর তাদের সঙ্গে দেখা করতে পেরেছি। এতদিন পর দেখা হয়ে খুব ভালো লাগছে।

হিলি সীমান্তে ভারতীয় স্বজনের সঙ্গে দেখা করতে আসা দীপঙ্কর সাহা রিপন বলেন, সীমান্তে এসেছিলাম ভারতীয় প্রতিমা দেখতে এবং ভারতে থাকা স্বজনদের সঙ্গে দেখা করতে। কিন্তু এখানে তো ওইরকম কোনো সুযোগ নেই। ওপারে যাওয়ারও তেমন কোনো সুযোগ নেই। সীমান্তের ভারত অংশে অনেক মানুষ এসেছে, তারা দাঁড়িয়ে এপাশে থাকা স্বজনদের দেখছে, ইশারায় কথা বলছে।

বিজিবির হিলি আইসিপি চেকপোস্ট ক্যাম্প কমান্ডার নায়েব সুবেদার ইয়াসিন আলী জানান, দুর্গাপূজা উপলক্ষে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে হিন্দু ধর্মাবলম্বী মানুষ হিলি সীমান্তে আসছেন। কেউ ভারতে তাদের স্বজনের সঙ্গে দেখা করতে, আবার কেউবা সীমান্তের শূন্যরেখা ঘুরতে আসছেন। তবে অনুমতি না থাকায় কাউকে শূন্যরেখায় যেতে দেওয়া হচ্ছে না। তারপরও মানবিক দিক বিবেচনা করে দু-একজনকে স্বজনদের সঙ্গে দেখা করার সুযোগ দেওয়া হচ্ছে। অনেকেই সীমান্তের শূন্যরেখার পাশে রেললাইনে দাঁড়িয়ে ভারতীয় সীমান্ত পরিদর্শন ও স্বজনদের দেখছেন।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]