ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা সোমবার ৬ ডিসেম্বর ২০২১ ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
ই-পেপার সোমবার ৬ ডিসেম্বর ২০২১
http://www.shomoyeralo.com/ad/amg-728x90.jpg

বার্সেলোনার জয়ে ফাতি জাদু
সময়ের আলো অনলাইন
প্রকাশ: সোমবার, ১৮ অক্টোবর, ২০২১, ৬:৩৪ এএম আপডেট: ১৮.১০.২০২১ ৬:৪৮ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 88

কাম্প নউয়ে রোববার রাতে লা লিগার ম্যাচটি ৩-১ গোলে জিতেছে বার্সেলোনা। হোসে গায়ার গোলে পিছিয়ে পড়ার পর দলকে সমতায় ফেরান রোনাল্ড কুমানের দলে ‘সৌভাগ্যের প্রতীক’ হয়ে ফেরা আনসু ফাতি। মেমফিস ডিপাই স্বাগতিকদের এগিয়ে নেওয়ার পর বদলি নেমে ব্যবধান বাড়ান ফিলিপে কৌতিনিয়ো।

আনসু ফাতি প্রায় এক বছর পর শুরুর একাদশে ফিরে আলো ছড়ালেন রোববার রাতে। নিজে চমৎকার একটি গোল করার পাশাপাশি আদায় করে নেন পেনাল্টি। পিছিয়ে পড়েও দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে ভালেন্সিয়াকে হারাতে সক্ষম হয় বার্সেলোনা।

দারুণ জয়ের ম্যাচে বার্সেলোনার জন্য সুখবর হয়ে এলো সের্হিও আগুয়েরোর অভিষেক। চোট কাটিয়ে শেষ দিকে বদলি নামেন এই স্ট্রাইকার।

ভালেন্সিয়ার বিপক্ষে বার্সেলোনার পারফরম্যান্স বেশ ভালো হয়েছে। ৬১ শতাংশ সময় বল দখলে রেখে গোলের জন্য তারা শট নেয় ১২টি, যার পাঁচটি লক্ষ্যে ছিল। সফরকারীদের ৯ শটের তিন ছিল লক্ষ্যে।

পাল্টা আক্রমণে দ্বিতীয় মিনিটে ভালো একটি সুযোগ তৈরি করতে সক্ষম হয় বার্সেলোনা। মাঝমাঠের কাছাকাছি থেকে গাভির বাড়ানো বলে ফাতির শট এক ডিফেন্ডারের পা ছুঁয়ে পাশের জালে লাগে।

পঞ্চম মিনিটে স্বাগতিক দর্শকদের স্তব্ধ করে দিয়ে এগিয়ে যায় ভালেন্সিয়া। কর্নার ঠিকমতো ক্লিয়ার করতে পারেনি বার্সেলোনা। ডি-বক্সের বাইরে থেকে বুলেট গতির শটে ঠিকানা খুঁজে নেন ডিফেন্ডার গায়া। মার্ক-আন্ড্রে টের স্টেগেন ঝাঁপিয়ে পড়েন। বলে হাত ছোঁয়ালেও তিনি তা ঠেকাতে পারেননি।

সমতায় ফিরতে অবশ্য বেশি সময় লাগেনি বার্সেলোনার। ত্রয়োদশ মিনিটে অসাধারণ গোল করেন ফাতি। মেমফিসের সঙ্গে বল দেওয়া-নেওয়া করে ডি-বক্সের বাইরে থেকে তরুণ ফরোয়ার্ডের শট দূরের পোস্ট দিয়ে জালে ঢুকে পড়ে।

২৫তম মিনিটে ভালো একটি সুযোগ পেয়ে বাইরে মারেন ভালেন্সিয়ার গনসালো গেদেস। পাঁচ মিনিট পর ডি-বক্সের বাইরে থেকে উড়িয়ে মারেন মেমফিস।

বিরতির আগে এই ডাচ ফরোয়ার্ডের সফল স্পট-কিকে এগিয়ে যায় বার্সেলোনা। ডি-বক্সে ফাতিকে গায়া ফাউল করলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি।

দ্বিতীয়ার্ধের পঞ্চম মিনিটে ডি-বক্সে সের্জিনো দেস্তের পাসে দুরূহ কোণ থেকে ফাতির শট কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন গোলরক্ষক ইয়াসপের সিলেসেন।

দুই মিনিট পর বেঁচে যায় বার্সেলোনা। মাক্সি গোমেসের শট লাগে পোস্টে। একটু পর গেদেসের জোরালো শট এক হাতে ঠেকান টের স্টেগেন।

কিছুক্ষণের মধ্যেই ফাতিকে তুলে নিয়ে কৌতিনিয়োকে মাঠে নামান কুমান। নির্ধারিত সময়ের পাঁচ মিনিট বাকি থাকতে এই ব্রাজিলিয়ান তারকার গোলের আগ পর্যন্ত খেলার গতি ছিল ধীর। দেস্তের পাস থেকে গোলটি করেন তিনি।

তিন মিনিট বাকি থাকতে অভিষেক হয় আগুয়েরোর। ম্যানচেস্টার সিটিতে চুক্তির মেয়াদ শেষ করে গত জুলাইয়ে ফ্রি ট্রান্সফারে বার্সেলোনায় যোগ দেন তিনি। কিন্তু অগাস্টে প্রাক-মৌসুম প্রস্তুতিতে ডান পায়ের পেশিতে চোট পেয়ে ছিটকে যান সিটির ইতিহাসের সর্বোচ্চ গোলদাতা।

হাঁটুর চোট কাটিয়ে প্রায় ১০ মাস পর গত মাসে মাঠে ফেরেন ফাতি। লা লিগায় লেভান্তের বিপক্ষে ফেরার ম্যাচে শেষ ১০ মিনিটে বদলি হিসেবে খেলে দারুণ একটি গোলও করেন তিনি। 

এসএ


আরও সংবাদ   বিষয়:   লা লিগা   বার্সেলোনা  




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]