ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা মঙ্গলবার ৩০ নভেম্বর ২০২১ ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
ই-পেপার মঙ্গলবার ৩০ নভেম্বর ২০২১
http://www.shomoyeralo.com/ad/amg-728x90.jpg

মুসলিমকে কাফের বলা পাপ
মাওলানা দৌলত আলী খান
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর, ২০২১, ৪:১৯ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 107

ইসলাম ধর্ম একটি সার্বজনীন ও শান্তির ধর্ম। এ ধর্ম মানব জাতিকে আচার-ব্যবহারের শিক্ষা দিয়েছে। মানুষের কষ্ট হয় এমন কোনো কাজ ও কথা ইসলাম সমর্থন করে না। অন্যায়ভাবে কারও ক্ষতি করা বা জুলুম করা ইসলামে হারাম। হজরত মুহাম্মদ (সা.) স্বীয় উম্মতদেরকে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ উভয়ভাবে পারস্পরিক ক্ষতি করা থেকে বিরত থাকতে নির্দেশ দিয়েছেন। মুসলিম জাতিই পৃথিবীর সভ্য জাতি। তারাই জগতবাসীকে সভ্যতার শিক্ষা দেবে।
 
ভ্রাতৃত্ববোধ ও নীতি-নৈতিকতার পথ দেখাবে। কিন্তু মুসলিম সমাজের কতিপয় মানুষ ইচ্ছা-অনিচ্ছায় এমন কিছু ভুল করে ফেলে যা ইসলাম মোটেই পছন্দ করে না। তা দেখতে বা শুনতে ছোট হলেই কিন্তু অপরাধের বিবেচনায় ক্ষমাযোগ্য নয়। যেমন- মুসলমানদের অনেকে ঝগড়া-বিবাদে লিপ্ত হলে রাগের মাথায় একে অপরকে কাফের বলে গালি দেয়। বেঈমান, জাহান্নামি ইত্যাদি বলে। অথচ একজন মুমিন শুধু ঝগড়া করলে অথবা পারস্পরিক ইস্যু নিয়ে কাফের হয়ে যায় না। আর ঈমানবিরোধী কোনো কাজ না করা পর্যন্ত কোনো মুসলিমকে কাফের বলা যাবে না। অকাট্য প্রমাণ ব্যতীত ধারণার বশীভূত হয়ে কোনো মুসলমানকে কাফের বলা মহাপাপ- কবিরা গুনাহ। দলিল-প্রমাণ ছাড়া কোনো মুসলমানকে কাফের বলে অপবাদ দিলে তখন অপবাদদাতা নিজেই তাতে অভিযুক্ত হবে। এ প্রসঙ্গে রাসুল (সা.) বলেন, ‘যে ব্যক্তি কাউকে কাফের বলে ডাকে অথবা আল্লাহর দুশমন বলে, অথচ যাকে বলা হলো সে তা নয়, তখন ওই বাক্যটি তার নিজের ওপরই প্রত্যাবর্তন করবে।’ (মুসলিম: ২২৬)। রাসুল (সা.) আরও বলেন, ‘যে ব্যক্তি তার কোনো মুসলমান ভাইকে কাফের বলবে, তবে তা তাদের যেকোনো একজনের দিকে প্রত্যাবর্তন করবে।’ (বুখারি : ৬১৭২)

কোনো ঈমানদারকে ফাসেক বলে সম্বোধন করাও গুনাহ। কারণ, ফাসেক অর্থ অপরাধী। সাধারণত অপরাধ করলেই অপরাধী হয়। অন্যথায় অপরাধী বলা গুনাহ। একজন মানুষকে অপরাধী বলতে হলে তার মধ্যে অপরাধ প্রবণতার দোষ থাকতে হবে। কথায় কথায় ফাসেক বলে গালি দেওয়া কোনো মুমিনের কাজ হতে পারে না। নির্দোষীকে দোষী বলা এবং ন্যায়বানকে অপরাধী বলা ইসলামী শিষ্টাচার নয়। অন্যায়ভাবে কাউকে কথায় ও কাজে কষ্ট দেওয়া বা আঘাত করাও ইসলামে নিষিদ্ধ। তাই মুমিনদের জন্য উচিত, অন্যায়ভাবে কাউকে ফাসেক বলা থেকে বিরত থাকা। এটাই হলো নবীজির (সা.) অনুপম আদর্শ। এ মর্মে রাসুল (সা.) বলেন, কোনো ব্যক্তি অপর ব্যক্তিকে ফাসেক বলবে না এবং কুফরির অপবাদও দেবে না। কেননা, যদি সেই ব্যক্তি প্রকৃতপক্ষে সেইরূপ না হয়, তবে তার অপবাদ নিজের ওপরই প্রত্যাবর্তন করবে। (বুখারি : ৬১১৪)




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]