ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা মঙ্গলবার ৩০ নভেম্বর ২০২১ ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
ই-পেপার মঙ্গলবার ৩০ নভেম্বর ২০২১
http://www.shomoyeralo.com/ad/amg-728x90.jpg

মিতু হত্যা মামলা, বেনাপোল থেকে আসামি ভোলা গ্রেফতার
চট্টগ্রাম ব্যুরো
প্রকাশ: রোববার, ২৪ অক্টোবর, ২০২১, ৭:০৮ এএম আপডেট: ২৪.১০.২০২১ ৭:১৭ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 197

সাবেক পুলিশ সুপার বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা আক্তার মিতু হত্যা মামলায় পরোয়ানাভুক্ত আসামি এহতেশামুল হক ভোলাকে যশোরের বেনাপোল থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। পিবিআইর চট্টগ্রাম মেট্রো অঞ্চলের ইন্সপেক্টর সন্তোষ চাকমা শনিবার দুপুরে এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, গত বৃহ¯পতিবার রাত সাড়ে ৮টায় যশোরের বেনাপোল বাজার দুর্গাপুর রোড এলাকা থেকে ভোলাকে গ্রেফতার করা হয়। শনিবার সকালে তাকে আদালতে তোলা হয়।

প্রসঙ্গত, গত ১৪ অক্টোবর চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ শেখ আশফাকুর রহমানের আদালতে আসামি এহতেশামুল হক ভোলার পক্ষ থেকে জামিনের আবেদন করা হলে আদালত তা নামঞ্জুর করে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। এর আগে আলোচিত এই হত্যা মামলায় হাইকোর্টে আগাম জামিনের আবেদন করেন এহতেশামুল হক ভোলা। পরে বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলাম ও বিচারপতি কেএম জাহিদ সারওয়ার কাজলের হাইকোর্ট বেঞ্চ ভোলাকে চার সপ্তাহের আগাম জামিন দেন। একই সঙ্গে জামিনের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে তাকে চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ আদালতে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দেওয়া হয়। ভোলা আত্মসমর্পণ না করে সময়ের আবেদন করেন। ভোলা হাইকোর্টের নির্দেশনা পালন না করায় আদালত সময়ের আবেদন নামঞ্জুর করে এই গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। এরপর ভোলা আত্মগোপনে চলে যান। এমনকি যশোরের বেনাপোল দিয়ে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে ভারতে চলে যাওয়ার চেষ্টা চালান। খবর পেয়ে পিবিআইর কর্মকর্তারা গত বুধবার রাতে ভোলার বন্ধু মুজিব ও কর্মচারী জাহেদকে নগরীর বাকলিয়া থেকে আটক করেন। তাদের জিজ্ঞাসাবাদের পর গত বৃহ¯পতিবার রাতে ছেড়ে দেওয়া হয়। জাহেদের কাছ থেকে ভোলার মোবাইল নম্বর নিয়ে ট্র্যাকিং করে তার অবস্থান যশোরে নিশ্চিত করা হয়। এরপর যশোর জেলা পুলিশের মাধ্যমে ভোলাকে গ্রেফতার করা হয়।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ৫ জুন সকালে ছেলেকে স্কুল বাসে তুলে দিতে যাওয়ার সময় নগরীর পাঁচলাইশ থানার জিইসি মোড়ে প্রকাশ্যে গুলি চালিয়ে ও কুপিয়ে হত্যা করা হয় মিতুকে। পরে নগরীর পাঁচলাইশ থানায় অজ্ঞাতপরিচয় কয়েকজনকে আসামি করে স্বামী বাবুল আক্তার বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা করেন। ওই মামলায় ২০১৬ সালের ২৭ জুন নগরীর বাকলিয়া এলাকা থেকে মিতু হত্যায় ব্যবহৃত অস্ত্র-গুলিসহ এহতেশামুল হক ভোলা ও তার সহযোগী মো. মনিরকে গ্রেফতার করে নগর গোয়েন্দা পুলিশ। ২০১৯ সালের ২৯ ডিসেম্বর এ মামলায় জামিনে কারামুক্তি পান এহতেশামুল হক ভোলা।

অন্যদিকে ২০২০ সালের জানুয়ারিতে বাবুল আক্তারের করা মামলার তদন্তভার পায় পিবিআই। এরপর জট খুলতে থাকে চাঞ্চল্যকর এই মামলার। চলতি বছরের ১১ মে বাবুল আক্তারকে হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে পিবিআই। তদন্তে বাবুল আক্তারের সম্পৃক্ততা পাওয়ায় তার বিরুদ্ধে মামলা করার লক্ষ্যে ১২ মে ওই মামলার ৫৭৫ পৃষ্ঠার চূড়ান্ত প্রতিবেদন আদালতে জমা দেয় পিবিআই। আগের মামলায় চূড়ান্ত প্রতিবেদনে দাখিলের পর ১২ মে মিতুর বাবা মোশাররফ হোসেন বাদী হয়ে নগরীর পাঁচলাইশ থানায় বাবুল আক্তারসহ আটজনকে আসামি করে হত্যা মামলা করেন। মামলার অন্য আসামিরা হলোÑ মো. কামরুল ইসলাম শিকদার মুছা, এহতেশামুল হক প্রকাশ হানিফুল হক প্রকাশ ভোলাইয়া, মো. মোতালেব মিয়া ওয়াসিম, মো. আনোয়ার হোসেন, মো. খাইরুল ইসলাম কালু, মো. সাইদুল ইসলাম সিকদার সাক্কু ও শাহজাহান মিয়া। ওইদিনই (১২ মে) বাবুল আক্তারকে গ্রেফতার দেখানো হয়। এ মামলায় বাবুল আক্তার বর্তমানে কারাগারে।

/এমএইচ/




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]