ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা মঙ্গলবার ৩০ নভেম্বর ২০২১ ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
ই-পেপার মঙ্গলবার ৩০ নভেম্বর ২০২১
http://www.shomoyeralo.com/ad/amg-728x90.jpg

মেয়র জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে আসতে পারে কঠোর সিদ্ধান্ত
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: সোমবার, ২৫ অক্টোবর, ২০২১, ১:২৩ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 217

কঠোর সিদ্ধান্ত আসতে পারে গাজীপুর সিটির মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমের বিরুদ্ধে। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে ‘কটূক্তি’র কারণে দলের পক্ষ থেকে দেওয়া কারণ দর্শানোর নোটিসের জবাবে সন্তুষ্ট নন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিষয়টি নিয়ে আগামী ১৯ নভেম্বর আওয়ামী লীগের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় আলোচনা শেষে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্রের ৪৭ ধারার ১ উপধারা অনুযায়ী এ রকম ক্ষেত্রে কার্যনির্বাহী সংসদ যেকোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারে। ধারায় বলা আছে, ‘কোনো সদস্য আওয়ামী লীগের আদর্শ, লক্ষ্য, উদ্দেশ্য, গঠনতন্ত্র ও নিয়মাবলি বা প্রতিষ্ঠানের স্বার্থের পরিপন্থি কার্যকলাপে অংশগ্রহণ করলে এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কাউন্সিল, কার্যনির্বাহী সংসদ, সংসদীয় বোর্ড বা সংসদীয় পার্টির বিরুদ্ধে কোনো কাজ করলে, শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কার্যনির্বাহী সংসদ তার বিরুদ্ধে যেকোনো শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারবে।’ তবে দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী কার্যনির্বাহী সংসদের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে দলের জাতীয় কমিটির কাছে আপিল করা যাবে। সেক্ষেত্রে জাতীয় কমিটির সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত বলে গণ্য হবে। দলীয় সূত্র জানায়, যেহেতু প্রধানমন্ত্রী জাহাঙ্গীর আলমের চিঠিতে সন্তুষ্ট নন। আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী বৈঠকে কঠোর সিদ্ধান্ত আসতে পারে। দলীয় পদ হারাতে পারেন তিনি।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, গাজীপুরের মেয়র ও গাজীপুর সিটি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমের সাংগঠনিক শৃঙ্খলাবিরোধী উপস্থাপনীয় অভিযোগ আগামী ১৯ নভেম্বর বিকাল ৪টায় গণভবনে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সভায় উত্থাপিত হবে। সভায় দলীয় আদর্শ এবং শৃঙ্খলাবিরোধী বক্তব্যের জন্য গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র জাহাঙ্গীর আলমকে প্রদত্ত শোকজ নোটিসের ওপর আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গৃহীত হবে। তবে প্রধানমন্ত্রীর যেকোনো সিদ্ধান্ত মেনে নেবেন বলে জানিয়েছেন গাজীপুর সিটির মেয়র এবং মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম। 

সময়ের আলোকে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমার গার্ডিয়ান (অভিভাবক), দলের গার্ডিয়ান, দেশের গার্ডিয়ান। আমি দুঃখ প্রকাশ করে চিঠির জবাব দিয়েছি। প্রধানমন্ত্রীর যেকোনো সিদ্ধান্ত মেনে নেব।

অন্যদিকে আওয়ামী লীগের কয়েক নেতা বলছেন, বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটূক্তির অপরাধে দলীয় ব্যবস্থার পাশাপাশি বিচারের মুখোমুখিও হতে পারেন গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র জাহাঙ্গীর আলম। তার বিরুদ্ধে ডিজিটাল আইনেও মামলা করার সুযোগ রয়েছে।

আওয়ামী লীগ সভাপতিম-লীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম বলেন, ‘এখনই কিছু বলব না। ১৯ নভেম্বর সিদ্ধান্ত আসবে।’ কী সিদ্ধান্ত আসতে পারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু সারাজীবন এদেশের মানুষের মুক্তির আন্দোলনে লড়েছেন। জেল-জুলুম, অত্যাচার-নির্যাতন সহ্য করেছেন। তাঁকে খাটো করার চক্রান্ত এদেশের মানুষ সহ্য করবে না। এখন যা হবে গঠনতন্ত্র অনুযায়ী হবে। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটূক্তির বিরুদ্ধে দেশের বিদ্যমান আইনেও ব্যবস্থা গ্রহণের বিধান আছে।’
গোপনে ধারণকৃত মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের একটি ভিডিও সম্প্রতি ফেসবুকে ভাইরাল হয়। ওই ভিডিওতে মেয়র জাহাঙ্গীরকে মুক্তিযুদ্ধে শহীদের সংখ্যা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করতে শোনা গেছে। বঙ্গবন্ধুর দেশ স্বাধীন করার উদ্দেশ্য নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন তিনি।

আওয়ামী লীগ সভাপতিম-লীর সদস্য কাজী জাফর উল্যাহ বলেন, গাজীপুরের মেয়র জাহাঙ্গীরের মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধুকে জড়িয়ে যে বক্তব্য সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে, সেটা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ আমাদের সবাইকে আহত করেছে। অবশ্য শুরু থেকেই ভিডিওটিকে বানোয়াট বলে আসছেন মেয়র জাহাঙ্গীর। ভিডিও প্রকাশের পর গত ৩ অক্টোবর জাহাঙ্গীরকে শোকজ করে আওয়ামী লীগ। জাহাঙ্গীর সেটার জবাবও দিয়েছেন।

এসএ


আরও সংবাদ   বিষয়:  গাজীপুর সিটির মেয়র   জাহাঙ্গীর আলম  




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]