ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা মঙ্গলবার ৩০ নভেম্বর ২০২১ ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
ই-পেপার মঙ্গলবার ৩০ নভেম্বর ২০২১
http://www.shomoyeralo.com/ad/amg-728x90.jpg

বিফলে নাইম-মুশফিকের হাফসেঞ্চুরি
ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশ: সোমবার, ২৫ অক্টোবর, ২০২১, ৮:১৩ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 96

চলতি বিশ্বকাপে রান নেই। এক্সপার্টদের বক্তব্য, এখানে আগে ব্যাট করলে ১৪০ রান নিরাপদ। কিন্তু মাঠের খেলার হিসাব আলাদা। মোহাম্মদ নাইম শেখ ও মুশফিকুর রহিমের ব্যাটে ১৭১ রানের বড় পুঁজিও দাঁড় করাল বাংলাদেশ। এ অবস্থায় সহজ জয়ের কথাই ভাবছিল সবাই। কিন্তু বাস্তবে ঘটল বিপরীতটাই। টাইগারদের ১৭১ রানের সৌধ গুঁড়িয়ে ৫ উইকেটের জয় তুলে নিল শ্রীলঙ্কা। বিফলে গেল মোহাম্মদ নাইম ও মুশফিকুর রহিমের জোড়া হাফসেঞ্চুরি। 

টস হেরে ব্যাট করার সুযোগ পেয়ে খুশি হয়েছিলেন টাইগার কান্ডারি মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ম্যাচ শুরু হওয়ার আগে বাংলাদেশ অধিনায়ক বললেন, টস জিতলে আগে ব্যাটিং নিতেন। ব্যাটাররা ভালো একটা পুঁজি পেলে, বোলাররা জয় নিশ্চিত করতে পারবেন, আস্থাবান ছিলেন টাইগার কান্ডারি। অধিনায়কের আস্থার ন্যূনতম প্রতিদানও দিতে পারেননি বোলাররা। সেসঙ্গে বাংলাদেশের ফিল্ডাররাও সাহায্য করেছে লঙ্কান ব্যাটারদের। ম্যাচের খুবই গুরুত্বপূর্ণ সময়, দু-দুটো ক্যাচ বেরিয়ে গেল হাত ফসকে। ম্যাচও বেরিয়ে গেল হাত ফসকে। 

সভাবতই প্রশ্ন উঠছে আর কী করতে পারতেন নাইম-মুশফিক। বাছাইপর্বের প্রথম দুটো ম্যাচে পাওয়ার প্লেতে মোটেও সুবিধা করতে পারেনি বাংলাদেশ। প্রথম ৬ ওভারে এসেছিল ২৫ ও ২৯ রান। পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে পাওয়ার প্লেতে কিছুটা স্বচ্ছন্দ ছিল আমাদের টপঅর্ডার। তাই মূলমঞ্চে শক্তিশালী লঙ্কানদের বিপক্ষে পাওয়ার প্লেতে টাইগাররা কতটা কী করতে পারবেন, তা নিয়ে ছিল সংশয়। ভরসা জোগালেন নাইম। মার মার কাট কাট ভাব না থাকলেও দলকে মজবুত ভিত এনে দিলেন এই বাঁহাতি ওপেনার। লিটন দাসের আউট হওয়ার মধ্য দিয়ে সঙ্গী বদল হলেও, অবিচল থাকলেন বাছাইপর্বের প্রথম ম্যাচে বাদ পড়া নাইম। চলতি আসরে এখন পর্যন্ত ব্যাট হাতে টাইগার শিবিরে সবচেয়ে ধারাবাহিকও এই ওপেনার। এক উইকেট হারিয়ে পাওয়ার প্লেতে যোগ হলো ৪১ রান। 

আগের দুই ম্যাচের ত্রাতা সাকিব আল হাসানও (১০) ব্যাট হাতে খুব একটা সঙ্গ দিতে পারলেন না নাইমকে। তাতে বাংলাদেশের রান উৎসবে ভাটা পড়েনি। তৃতীয় উইকেটে প্রতিপক্ষ বোলারদের ওপর ছড়ি ঘোরালেন নাইম-মুশফিক। মাত্র ৫১ বলের জুটিতে ৭৪ রান যোগ করলেন দুজনে। ৪৪ বলে হাফসেঞ্চুরি পাওয়া নাইম খেললেন ৬২ রানের ইনিংস। তার ৫২ বলে গড়া ইনিংসটিতে ছয়টি চারের মার। মুশফিকের ইনিংসটি আরও আগ্রাসী। তার হার না মানা ৫৭ রানের ইনিংসটি এসেছে মাত্র ৩৭ বলের কনকর্ডে চড়ে। সাজানো ইনিংসটিতে ৫ চারের সঙ্গে দুটো ছক্কা মারেন মুশফিক। কিন্তু দিন শেষে হারের লজ্জা নিয়েই মাঠ ছাড়তে হলো নাইম-মুশফিককে।


আরও সংবাদ   বিষয়:   মোহাম্মদ নাইম শেখ   মুশফিকুর রহিম  




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]