ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা সোমবার ৬ ডিসেম্বর ২০২১ ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
ই-পেপার সোমবার ৬ ডিসেম্বর ২০২১
http://www.shomoyeralo.com/ad/amg-728x90.jpg

মেয়র জাহাঙ্গীরের অনুসারী নেতাকে প্রকাশ্যে মারধর
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: বুধবার, ২৪ নভেম্বর, ২০২১, ৯:১৮ পিএম আপডেট: ২৪.১১.২০২১ ৯:২৮ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 125

আওয়ামী লীগ থেকে বহিস্কারের পর গাজীপুর সিটি মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের সমর্থক নেতাকর্মীরা অনেকটা বেকায়দায় পড়েছেন। মেয়র বিরোধীদের রোষানলে পড়ার আশঙ্কায় অনেকে বাসা থেকেও বের হচ্ছেন না বলে জানা গেছে।

বুধবার (২৪ নভেম্বর) দুপুরে নগরীর ৫৬নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সদস্য সচিব আবুল হোসেনকে মারধরের ঘটনায় ঘটেছে। 

জানা গেছে, কয়েক জন যুবক ও কিশোর তাকে ঘিরে ধরে চড়-থাপ্পর ও কিল-ঘুষি মারার একটি ভিডিও পাওয়া গিয়েছে। এ বিষয়ে জানতে আবুল হোসেনের মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে প্রথমে তিনি লাঞ্চিতের বিষয়টি অস্বীকার করেন৷ পরে অবশ্য তিনি স্বীকার করে বলেন, মান-সম্মানের ভয়ে কাউকে বলিনি। এখন তো হামলাকারীরা ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছেড়ে দিয়েছে।

আওয়ামী লীগ নেতা আবুল হোসেন জানান, গত সোমবার ভরান এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী ও কিশোর গ্যাংয়ের সদস্য মিম আমার দোকানে এসে খেয়ে বিল না দিয়ে চলে যায়। এসময় পাশের সেলুন দোকানের এক কাস্টমারকেও চড়-থাপ্পর দিয়ে চেয়ার থেকে উঠিয়ে দেয় মিম। বিষয়টি দেখে আমি তাকে বুঝিয়ে বাসায় পাঠিয়ে দেই। কিন্তু বুধবার দুপুরে জোহরের নামাজের পর মধুমিতা মেগা সিটির সামনে ছাত্রলীগ নেতা ইমরান খান হৃদয় ও আকাশের নেতৃত্বে আমার উপর অতর্কিত হামলা চালানো হয়। প্রথমে মান-সম্মানের ভয়ে কাউকে কিছু জানাইনি। কিন্তু এখন জানাজানি হওয়ার পর আমি হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা নিয়ে থানায় এসেছি আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য।
 
জাহাঙ্গীর অনুসারী বলেই কি আপনার উপর হামলা হয়েছে- এমন প্রশ্নে আবুল হোসেন বলেন, আজমত উল্লাহ খানের কাছ থেকে আমার রাজনীতির হাতেখড়ি। জাহাঙ্গীর আলম দলের সাধারণ সম্পাদক এবং মেয়র ছিলেন। তিনি আমার ছেলেকে সিটি করপোরেশনে চাকরি দিয়েছেন৷ সেই সুবাধে  তার কাছে যেতাম। তাকে বহিষ্কার করার পর তার সাথে আমাদের দলীয় কোন সম্পর্ক নেই।
 
আক্ষেপের সুরে আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, এক সময় ছাত্রলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগ করেছি। এখন আওয়ামী লীগ করছি। কখনও এমন অপদস্ত হইনি। কিন্তু আজ আমার উপর তারা কেন হামলা করলো বুঝতে পারছি না। 

অভিযুক্ত ইমরান খান হৃদয় গাজীপুর মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আজমত উল্লাহ খানের ভাতিজা।
 
জানতে চাইলে অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা ইমরান খান হৃদয় বলেন, আমি এ ব্যাপারে কিছুই জানিনা। ঘটনার সময় আমি বাসার সামনের ভরান মসজিদে ছিলাম। ঘটনার সময় আমি ঘটনাস্থলে ছিলাম না।

এ বিষয়ে টঙ্গী পূর্ব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. জাবেদ মাসুদ বলেন, এখনও কোন অভিযোগ পাইনি।

/আরএ


আরও সংবাদ   বিষয়:  মেয়র জাহাঙ্গীর  




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]