ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা মঙ্গলবার ৩০ নভেম্বর ২০২১ ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
ই-পেপার মঙ্গলবার ৩০ নভেম্বর ২০২১
http://www.shomoyeralo.com/ad/amg-728x90.jpg

৫ বছরে ময়লার ট্রাকে ১২ মৃত্যু
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: শুক্রবার, ২৬ নভেম্বর, ২০২১, ১:৪০ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 4681

চলতি বছরের ১৭ জানুয়ারি গেণ্ডারিয়ার দয়াগঞ্জ মোড়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটির ময়লার গাড়ির ধাক্কায় বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার (বাসস) টেলিফোন বিভাগের স্টাফ খালিদের (৫০) মৃত্যু হয়। এ ঘটনার ১১ মাস অতিবাহিত হলেও বিচার পায়নি পরিবারটি। গত দুই দিনের ঘটনায় ছাত্রসহ ২ জনের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। সব মিলিয়ে গত ৫ বছরে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের ময়লা বহনকারী গাড়ির চাকায় পিষ্ট হয়ে ১২ জনের প্রাণ গেছে। এই তালিকায় আছে কলেজছাত্র, সাংবাদকর্মী, শ্রমিক, শিক্ষিকা ও সাধারণ মানুষ। প্রতিটি ঘটনাতেই তদন্ত কমিট গঠিত হয়েছে; কিন্তু প্রতিবারই দায়সারা প্রতিবেদন দাখিল করে প্রকৃত দোষীদের আড়াল করা হয়েছে। ফলে ভুক্তভোগী পরিবারগুলো কোনো বিচার পায়নি। বন্ধ হয়নি সেই ময়লার গাড়িতে মৃত্যুর মিছিল।

দেখা গেছে, অধিকাংশ ঘটনায় ময়লার গাড়িতে আসল চালককে খুঁজে পাওয়া যায়নি। এমন গুরুতর অভিযোগ উঠলেও বিষয়টি সুনজরে নেয়নি দুই সিটি কর্তৃপক্ষ। ফলে দিনের পর দিন চালকের বদলে পরিচ্ছন্নতা কর্মীরা এসব গাড়ি চালিয়ে যাচ্ছে। এতে মৃত্যুর মিছিল ভারী হচ্ছে বলে মনে করছেন অনেকে।

বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছরের ১৬ এপ্রিল সিটি করপোরেশনের একটি ময়লাবাহী গাড়ির ধাক্কায় মোস্তফা (৪০) নামে এক রিকশাচালকের প্রাণ যায়। এ ঘটনায় আরেক রিকশা আরোহী হরেন্দ্র দাস (৭০) আহত হন। এরপর বিক্ষুব্ধ জনতা সেই ময়লার গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দিয়েছিল। এ ছাড়া ২ মে রাজধানীর শাহজাহানপুর টিটিপাড়ায় ময়লার ট্রাকচাপায় স্বপন আহমেদ (৩৩) নামে এক ব্যাংক কর্মচারী নিহত হন। এ ঘটনায় ট্রাকচালক নূরুল ইসলামকে আটক করা হয়। গত ১৩ মে উত্তর সিটির ময়লার গাড়ির চাপায় সাভারের অদূরে মিরা আরফিম (৩৫) নামে এক নারী মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হন। নিহত মিরা আরফিম কুষ্টিয়া জেলার খোকসা থানার মাসুরিয়া গ্রামের ইউসুফ শেখের মেয়ে। তিনি ঈদের ছুটিতে ভাইয়ের সঙ্গে নিজ বাড়ি কুষ্টিয়া যাচ্ছিলেন। মিরা আরফিম মিরপুরে কম্বাইন স্কুল অ্যান্ড কলেজে শিক্ষকতা করতেন। সর্বশেষ গত মঙ্গলবার নটর ডেম কলেজের শিক্ষার্থী নাঈম ও বুধবার ব্যবসায়ী আহসান কবির খানের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়।

তার আগে ২০১৬ সালের ৪ মার্চ রাজধানীর উত্তরার হাউস বিল্ডিং এলাকায় ময়লার ট্রাকের চাপায় আবুল কালাম আজাদ নামে এক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। আজাদকে চাপা দেওয়ার আগে ট্রাকটি উল্টো দিক থেকে এসেছিল। পরে এ ঘটনায় চালক মোস্তফা মোস্তাকিনকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়। একই বছর ৩০ সেপ্টেম্বর দক্ষিণ সিটির গাড়িচাপায় আবু তাহের নামে এক বিজিবি জওয়ান নিহত হন।

২০১৭ সালের ৭ সেপ্টেম্বর রাজধানীর সবুজবাগ বৌদ্ধ মন্দিরের সামনের রাস্তায় সিটি করপোরেশনের ময়লার গাড়িচাপায় রিমন (২৫) ও শারিন (২২) নামে দুই খালাতো ভাইবোনের মৃত্যু হয়।

২০১৮ সালের ২৪ নভেম্বর রাজধানীর চানখাঁরপুল এলাকায় সিটি করপোরেশনের ময়লাবাহী গাড়ির ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী তাসমিয়া জাহান নামে এক নারী নিহত হন। এই ঘটনায় আহত হন মোটরসাইকেলটির চালক স্বামী শফিউল্লাহ। তারও আগে ২০১৯ সালের ৭ ডিসেম্বর মিরপুরে আবদুল খালেক হাওলাদার (৬৭) নামে একজন ভ্রাম্যমাণ পান বিক্রেতা প্রাণ হারান। 

এ বিষয়ে সিটি করপোরেশন, থানা পুলিশ ও দুর্ঘটনার পরিসংখ্যান রাখে এমন কোন সংস্থা বা স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের কাছে কোনো তথ্য নেই। এ বিষয়ে যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মোজাম্মেল হক সময়ের আলোকে বলেন, আমরা পুরো দেশের দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা ও খোঁজখবর রাখি। কিন্তু ঢাকা সিটিকে কেন্দ্র করে ময়লার গাড়িতে নিহতের সংখ্যা রাখা হয় না। এখন থেকে বিষয়টি আমরা নজরে রাখব।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সিটিতে ময়লার গাড়িগুলো রাতের বেলা চলাচলের কথা থাকলেও দিনে সেগুলো দাপিয়ে বেড়ায়। গত ৫ বছরে ১২টি দুর্ঘটনার পরও কোনো ধরনের নিয়মে আসেনি দুই সিটির পরিবহন ব্যবস্থা। ফলে প্রতিনিয়ত মৃত্যুর ঘটনা ঘটছে। এ বিষয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের পরিবহন শাখার মহাব্যবস্থাপক বিপুল চন্দ্র বিশ্বাস ও উত্তরের মহাব্যবস্থাপক মিজানুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তাদের ফোনে পাওয়া যায়নি।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]