ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা মঙ্গলবার ১৮ জানুয়ারি ২০২২ ৪ মাঘ ১৪২৮
ই-পেপার মঙ্গলবার ১৮ জানুয়ারি ২০২২
http://www.shomoyeralo.com/ad/Amin Mohammad City (Online AD).jpg

কঠিন চ্যালেঞ্জের সামনে তাইজুলরা
ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর, ২০২১, ২:২০ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 104

বৃষ্টি ছাড়া চট্টগ্রাম টেস্ট ড্র হওয়ার আর কোনো সুযোগ নেই। জয়ের জন্য চতুর্থ ইনিংসে ২০১ রানের টার্গেটের সামনে সোমবার শেষ বিকালে নির্বিঘ্নেই অর্ধেকের বেশি পথ পাড়ি দিয়েছে সফরকারী পাকিস্তান। গতকাল চতুর্থ দিন শেষে তাদের সংগ্রহ বিনা উইকেটে ১০৯ রান। প্রথম টেস্ট জিতে সিরিজে এগিয়ে যাওয়ার জন্য আর মাত্র ৯৩ রান প্রয়োজন সফরকারীদের। ওপেনার আবিদ আলী অপরাজিত আছেন ৫৬ রানে। আবদুল্লাহ শফিক খেলছেন ৫৩ রানে।

পাকিস্তানের কতৃত্ব করা ম্যাচে আজ পঞ্চম ও শেষ কঠিন চ্যালেঞ্জের সামনে তাইজুল ইসলামরা। চট্টগ্রাম টেস্ট জিততে হলে ৯১ রানের মধ্যে সফরকারীদের ১০ উইকেটের পতন ঘটাতে হবে বাংলাদেশের বোলারদের। প্রথম ইনিংসেও তৃতীয় দিনের শেষে সফরকারীদের সংগ্রহ ছিল বিনা 

উইকেটে ১৪৫ রান। কিন্তু চতুর্থ দিন তাইজুলের ঘূর্ণিতে মোটেও সুবিধা করতে পারেনি পাকিস্তান। অলআউট হয়ে যায় ২৮৬ রানে। ৪৪ রানের লিড পায় বাংলাদেশ। তাইজুল একাই নেন ৭ উইকেট। তবে আজকের চ্যালেঞ্জ আরও কঠিন। কেননা হাতে পুঁজি খুবই সামান্য। তবে পঞ্চম ও শেষ দিনের ক্ষত-বিক্ষত উইকেট হতে পারে তাইজুল-মেহেদী হাসান মিরাজদের প্রেরণা। আরেকটা বিষয় বিশেষভাবে লক্ষ্যণীয়। এই টেস্টের প্রথম চার দিনই সকালের সেশনে ব্যাটারদের ওপর ছড়ি ঘুরিয়েছে বোলাররা।

পাকিস্তান ব্যাটারদের আজ মঙ্গলবার তাইজুলরা দুঃস্বপ্নের সকাল উপহার দিতে পারে কি না তার ওপর নির্ভর করছে টাইগারদের ম্যাচে ফেরা।
বাংলাদেশের ব্যাটারদের দুঃস্বপ্নের মধ্য দিয়েই শুরু হয় সোমবারের সকাল। আগের দিনের ৩৯/৪ নিয়ে খেলতে নেমে  মাত্র ৪ রান যোগ করতেই বিদায় নেন বাংলাদেশ ক্রিকেটের ক্রাইসিসম্যান খ্যাত মুশফিকুর রহিম। প্রতিপক্ষ ফাস্ট বোলার হাসান আলীকে দৃষ্টিনন্দন বাউন্ডারি মেরে ভালো শুরুর ইঙ্গিতও দেন মুশফিক। কিন্তু এক বল পরই ঘটে বিপত্তি। হাসান আলীর বল বেরিয়ে যাবে ভেবে ছেড়ে দেন তিনি। কিন্তু বল সুইং করে ভেঙে দেয় মুশফিকের উইকেট। এই ধাক্কা সামলে ওঠার চেষ্টা করেন ইয়াসির ও প্রথম ইনিংসের সেঞ্চুরিয়ান লিটন কুমার দাস।

পঞ্চম উইকেটে ৪৭ রান যোগ করেন দুজনে। জেগে ওঠে একটা চ্যালেঞ্জিং লিডের সম্ভাবনাও। নিজের অভিষেকটাকে রাঙানোর পথেই ছিলেন ইয়াসির আলী রাব্বি। কিন্তু দুর্ভাগ্যের শিকার হন ইয়াসির। স্পিডস্টার শাহিন শাহ আফ্রিদির লাফিয়ে ওঠা বলে ডাক করতে চেয়েছিলেন ইয়াসির। কিন্তু বল লাগে তার হেলমেটে। ওই ওভার ব্যাটিং করলেও পরের ওভারে রিটায়ার্ড হার্ট হয়ে মাঠ ছাড়েন ইয়াসির। তখন তার নামের পাশে ৩৬ রান। তার জায়গায় কনকাশন বদলি হিসেবে নেওয়া হয় নুরুল হাসান সোহানকে। লিটনের সঙ্গী হিসেবে যোগ দেন মেহেদী হাসান মিরাজ। বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। বিদায় নেন ১১ রান করে।

কনকাশন বদলি হিসেবে সুযোগ পাওয়া সোহান জুটি বাঁধেন লিটনের সঙ্গে। ভালোই সঙ্গ দিচ্ছিলেন তিনি। কিন্তু উচ্চাভিলাষী শট খেলতে গিয়ে বিপদ ডেকে আনেন। প্রতিপক্ষ স্পিনার সাজিদ খানের একটা নিরীহ বল অযথাই উড়িয়ে খেলতে গিয়ে ধরা পড়লেন লংঅনে। ব্যক্তিগত ১৫ রানে সাজঘরমুখো হলেন সোহান। লিটনও আর টানতে পারলেন না দলকে। আউট হওয়ার আগে দ্বিতীয় ইনিংসে বাংলাদেশের হয়ে একমাত্র হাফসেঞ্চুরিটি করেন লিটন। আউট হয়ে যান ৫৯ রানে। বলাবাহুল্য প্রথম ইনিংসেও বাংলাদেশের একমাত্র সেঞ্চুরিটি করেন লিটন। তার আউটের পর আর কোনো প্রতিরোধই গড়তে পারেনি স্বাগতিকরা। ১৫৭ রানের মাথায় শেষ ৩ উইকেট হারায় বাংলাদেশ।

প্রথম ইনিংসে ৪৪ রানের লিড থাকায় পাকিস্তানের সামনে ২০১ রান টপকানোর চ্যালেঞ্জ ছোড়ে স্বাগতিকরা। এই চ্যালেঞ্জে জিতে দিনের শেষ বিকালটা নিজেদের রঙে রাঙিয়েছেন সফরকারী দলের দুই ওপেনার আবিদ ও শফিক। এর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের সম্ভাবনাকে অনেক কঠিন করে দিয়েছেন এই পাকিস্তানি ওপেনাররা।





সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]