ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শুক্রবার ১৯ আগস্ট ২০২২ ৪ ভাদ্র ১৪২৯
ই-পেপার শুক্রবার ১৯ আগস্ট ২০২২
http://www.shomoyeralo.com/ad/Amin Mohammad City (Online AD).jpg

এত খাবার আনো কেন, পুত্রবধূকে খালেদা জিয়ার প্রশ্ন
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: রোববার, ৫ ডিসেম্বর, ২০২১, ১২:২৫ এএম আপডেট: ০৫.১২.২০২১ ১২:২৮ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 758

রোজই অসুস্থ শ্বাশুড়ি খালেদা জিয়াকে হাসপাতালে দেখাতে যান পুত্রবধূ শর্মিলা রহমান সিঁথি। হাসপাতালে আসা যাওয়ার মধ্যেই থাকেন তিনি। চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুয়ায়ী, নানা ধরনের খাবার রান্না করে নিয়ে গেলেও তেমন কিছু খেতে পারেন না বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

দীর্ঘদিন অসুস্থ থাকা কারণে খালেদা জিয়ার মুখের রুচি কমে গেছে। তাই ক্রিটিক্যাল কেয়ার ইউনিটের (সিসিইউ) বেডে শুয়ে খালেদা জিয়া পুত্রবধূ শর্মিলাকে বলেন ‘এত খাবার আনো কেন? আমি তো কিছুই খেতে পারি না’।

শ্বাশুড়ির কাছে পুত্রবধূ জানতে চান ‘মা আপনার কেমন লাগে? কি খেতে ভালো লাগে। জোর করে হলেও তো কিছু খেতে হবে। আপনার জন্য সবাই দোয়া করছেন’।

শনিবার (৪ ডিসেম্বর) পুত্রবধূ ও শাশুড়ির মধ্যে এমন কথোপকথন জানিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসনের চিকিৎসায় গঠিত মেডিক্যাল বোর্ডের একজন সদস্য সময়ের আলোকে বলেন, ‘ম্যাডামের আত্মবিশ্বাস ও মনোবল দৃঢ় আছে। আমরা মাঝেমধ্যে বিচলিত হয়ে পড়লেও তিনি ঠিক থাকেন। সবার কাছে দোয়া চান। আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী প্রতিদিন হাসপাতালে খাবার নিয়ে আসেন। তবে তিনি হাসপাতালে থাকেন না। মাকে খাইয়ে দিয়ে আবার চলে যান’।

বোর্ডের আরেকজন সদস্য জানান, এন্টিবায়োটিক চালিয়ে যাওয়ার কারণে খালেদা জিয়ার রক্তক্ষরণ কমে আসছে। এই অবস্থা ধরে রাখতে পারলে এই সপ্তাহের মধ্যে কেবিনে নেওয়া সম্ভব। তবে আশঙ্কার কথা হলো যেকোন সময় তা বেড়ে যেতে পারে। এজন্যই ঝুঁকি নেওয়া হচ্ছে না। স্বস্তির খবর হলো- ইলেকট্রোরাল ব্যালেন্স এসেছে। অর্থাৎ শরীরে খনিজের সমতা বিরাজমান। এটি ভারসাম্যহীন হয়ে পড়লে আবোলতাবোল করেন খালেদা জিয়া। শরীরে তাপমাত্রা স্বাভাবিক আছে। ইনসুলিন দিয়ে ডায়বেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখা হয়েছে। বর্তমানে রক্তের হিমোগ্লোবিন ৮.৫০ আছে। তবে ম্যাডামের মুখ শুকনো, চোখেমুখে ক্লান্তির ছাপ। কথা খুব আস্তেধীরে কম বলেন। জোর করে খাওয়ানো লাগছে।

জানা গেছে, গতকালও লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের একাধিক রুটিন টেস্ট করা হয়েছে। চিকিৎসকরা বলছেন, যত দ্রুত তাকে বিদেশে চিকিৎসা দেওয়া যায় ততই মঙ্গল। নইলে ঝুঁকি বাড়বে।  




http://www.shomoyeralo.com/ad/Google-News.jpg

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]