ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শনিবার ৩ ডিসেম্বর ২০২২ ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
ই-পেপার শনিবার ৩ ডিসেম্বর ২০২২
https://www.shomoyeralo.com/ad/Amin Mohammad City (Online AD).jpg

অমর একুশে গ্রন্থমেলায় শেষ দিনে ছিলো মানুষের ঢল
ঢাবি প্রতিনিধি
প্রকাশ: শুক্রবার, ১৮ মার্চ, ২০২২, ৪:১৫ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 387

কোভিডকালীন পরিস্থিতিতে নানা প্রতিকূলতার মধ্য দিয়ে শুরু হওয়া অমর একুশে বইমেলা ২০২২ বিদায় নিয়েছে। সব মানুষের কাছে প্রাণের মেলা হিসেবে পরিচিত এই সাংস্কৃতিক তীর্থের পর্দা নেমেছে। শেষবেলায় মেলা প্রাঙ্গণে ঢল নেমেছিল দর্শনার্থী-পাঠকের। মেলার শেষদিনে বিকাল থেকেই রাজধানী ও আশপাশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে জনস্রোত শুরু হয় বাংলা একাডেমি ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের পথে। দোয়েল চত্বর কিংবা টিএসসির দুই পাশ থেকে বাংলা একাডেমি পর্যন্ত রাস্তায় দেখা যায় মানুষের ঢল। এ সময় মেলা প্রাঙ্গণে প্রবেশ করতে লাইনে দাঁড়াতে হয় পাঠক-দর্শনার্থীদের। মেলায় দেখা যায়, দর্শনার্থী-পাঠকদের মধ্যে উৎসবমুখর আমেজ।

যারা ঘুরতে এসেছেন, তাদের কেউ কেউ শেষবারের মতো পছন্দের জায়গায় ছবি তোলেন, আবার কেউ কেউ বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডায় মেতে ওঠেন। আর বইপ্রেমীরা ঘোরেন স্টলে স্টলে। মেলায় দেখা গেছে লম্বা ফর্দ নিয়ে পছন্দের বই কিনতে স্টলে স্টলে যাচ্ছেন বইপ্রেমীরা। কারও হাতে, কারও ঝোলায় ঝুলছিল পছন্দের বই।

আবার মেলা শেষ হয়ে যাওয়ায় খারাপ লাগার অনুভূতিও প্রকাশ করেন অনেক পাঠক। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নুসরাত জাহান ইমা বলেন, মেলায় আসার খুব একটা সময় হয় না। তবে সবসময় মনটা পড়ে থাকে মেলায়। মেলা শেষ হয়ে যাচ্ছে ভেবে খুব খারাপ লাগছে।

বইমেলা আয়োজক কমিটির তথ্যমতে এবারের বইমেলায় ৩ হাজার ৪১৬টি নতুন বই প্রকাশিত হয়েছে। এগুলোর মধ্যে ৯০৯টি মানসম্পন্ন। ২০২০ সালে ৪ হাজার ৯১৯টি নতুন বইয়ের মধ্যে মানসম্পন্ন বই ছিল ৭৫১টি। এবার ২৬ শতাংশ মানসম্পন্ন বই প্রকাশিত হয়েছে। গতবার মানসম্পন্ন বই ছিল মোট বইয়ের ১৫ শতাংশ। বইমেলায় বাংলা একাডেমিসহ সব প্রতিষ্ঠানের বই ২৫ শতাংশ কমিশনে বিক্রি হয়েছে। ২০২০ সালে সমগ্র মেলায় ৮২ কোটি টাকার বই বিক্রি হয়েছিল। এবার কমপক্ষে ৫২ কোটি ৫০ লাখ টাকার বই বিক্রি হয়েছে।

এ ছাড়া বৃহস্পতিবার বইমেলার সমাপনী দিনে মেলা চলে বেলা ১১টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত। গতকাল নতুন বই এসেছে ২১৫টি। বিকাল ৫টায় বইমেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা ভাষণ দেন একাডেমির মহাপরিচালক কবি মুহম্মদ নূরুল হুদা।

প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন ‘অমর একুশে বইমেলা ২০২২’-এর সদস্য সচিব ড. জালাল আহমেদ। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ এমপি। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব অসিম কুমার দে। সভাপতিত্ব করেন বাংলা একাডেমির সভাপতি কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন।

স্বাগত ভাষণে বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক মুহম্মদ নূরুল হুদা বলেন, এবারের বইমেলা ছিল অত্যন্ত প্রাণবন্ত ও অংশগ্রহণমূলক। পরিসর বৃদ্ধিসহ নানা উৎকর্ষ সাধনের মাধ্যমে মেলাকে সার্থক করে তোলার যথাসাধ্য চেষ্টা আমরা করেছি।

প্রতিবেদন উপস্থাপন করে ড. জালাল আহমেদ বলেন, বইমেলায় বাংলা একাডেমিসহ সব প্রতিষ্ঠানের বই ২৫ শতাংশ কমিশনে বিক্রি হয়েছে। ২০২০ সালে বাংলা একাডেমি মোট ২ কোটি ৪৬ লাখ টাকার বই বিক্রি করেছিল। এবার ১৬ মার্চ পর্যন্ত ৩০ দিনে বাংলা একাডেমি ১ কোটি ২৭ লাখ টাকার বই বিক্রি করেছে। ২০২১ সালে একাডেমি মাত্র ৪৬ লাখ টাকার বই বিক্রি করেছিল। আজকের বিক্রি হিসাবে নিলে বাংলা একাডেমির মোট বিক্রি হবে কমপক্ষে ১ কোটি ৩৫ লাখ টাকা। ২০২০ সমগ্র মেলায় ৮২ কোটি টাকার বই বিক্রি হয়েছিল। এবার ১৬ মার্চ পর্যন্ত স্টল মালিকদের কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্য এবং আজকের সম্ভাব্য বিক্রি যুক্ত করলে বলা যায় যে, এবার কমপক্ষে ৫২ কোটি ৫০ লাখ টাকার বই বিক্রি হয়েছে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে কেএম খালিদ বলেন, গত বছর করোনা মহামারির ভয়াবহতায় আমরা বইমেলা শুরু করেও নির্ধারিত সময়ের আগে শেষ করতে বাধ্য হয়েছি। তবে এবার বইমেলা শুরুতে বিলম্ব হলেও সংস্কৃতিবান্ধব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আগ্রহ ও আনুকূল্যে ১৫ ফেব্রুয়ারি বইমেলা শুরু হয়ে ১৭ মার্চ বইমেলা শেষ হচ্ছে। অমর একুশে বইমেলার প্রায় চার দশকের ইতিহাসে এটিই সবচেয়ে দীর্ঘমেয়াদি বইমেলা।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে অতিরিক্ত সচিব অসীম কুমার দে বলেন, অনিশ্চয়তার মধ্যে শুরু হলেও এবারের বইমেলা সুষ্ঠুভাবে হয়েছে যা আমাদের সবার জন্যই আনন্দের বিষয়।

বাংলা একাডেমির সভাপতি সেলিনা হোসেন বলেন, বইমেলা জাতির প্রাণকে আলোকিত করে, বাঙালির ভাষা আন্দোলনের চেতনাকে তুলে ধরে এবং প্রজন্মকে গড়ে ওঠার সুযোগ করে দেয়। বাঙালির জীবনের এক অসাধারণ দিক এই বইমেলা।






https://www.shomoyeralo.com/ad/Google-News.jpg

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : shomoyeralo@gmail.com