ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা বৃহস্পতিবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৪ আশ্বিন ১৪২৯
ই-পেপার বৃহস্পতিবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২
http://www.shomoyeralo.com/ad/Amin Mohammad City (Online AD).jpg

http://www.shomoyeralo.com/ad/Untitled-1.jpg
মুক্তির আগেই ‘আশীর্বাদ’ নিয়ে তোলপাড়!
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: শুক্রবার, ১৯ আগস্ট, ২০২২, ৩:১৮ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 181

মুক্তির আগেই বিতর্কের ঝড় তুলেছে ‘আশীর্বাদ’ সিনেমাটি। তবে সিনেমার ট্রেইলার কিংবা পোস্টারের প্রশংসা নিয়ে নয় কলাকুশলীদের পাল্টাপাল্টি মন্তব্যই যেন বলে দিচ্ছে পরিস্থিতি কোন দিকে মোড় নিচ্ছে। 

জিয়াউল রোশান ও মাহিয়া মাহি জুটির সরকারি অনুদানের সিনেমাটিতে পরিচালনা করেছেন মোস্তাফিজুর রহমান মানিক। আর প্রযোজক হিসেবে ছিলেন তাহেরা ফেরদৌস জেনিফার। তার মন্তব্যের কড়া জবাব দিলেন রোশান-মাহি। 

নায়ক-নায়িকাকে নিয়ে যে পাল্টা-পাল্টি অভিযোগ চলছে সেটা নিয়ে বৃহস্পতিবার (১৮ আগস্ট) সন্ধ্যায় নির্মাতা মোস্তাফিজুর রহমান মানিকের বাড়ির ছাদে আয়োজন করা হয় এক সংবাদ সম্মেলনের। সেখানে উপস্থিত ছিলেন নায়িকা মাহিয়া মাহি, নায়ক রোশান ও অন্য শিল্পী-কুশলীরা। 

তারা জানান, এ সিনেমায় অভিনয় করতে গিয়ে তাদের নানা প্রতিবন্ধকতার স্বীকার হয়েছেন। 

অভিযোগ করে মাহি বলেন, অনুদানের সিনেমাতে সরকার যে টাকা দিয়েছে সেটা কি এই ছবিতে খরচ করা হয়েছে? আমি হলফ করে বলতে পারি, সরকার ৬০ লাখ টাকা দিয়েছে, অথচ খরচ করেছে ২৫ লাখ। বাকি টাকা প্রযোজক কোথায় খরচ করেছে সরকারের খতিয়ে দেখা উচিত। তার জবাবদিহি করা উচিত। এই টাকা ওনার নয়। সরকারি অনুদান দেওয়া হয় জনগণের ট্যাক্স থেকে। বাকি টাকা জেনিফার ফেরদৌস কোথায় খরচ করেছেন নাকি শপিং করেছেন খুঁজে দেখার অনুরোধও জানান মাহি। 

জেনিফার ফেরদৌস কোনো পেশাদার প্রযোজক নন। যেহেতু এটা সরকার ও জনগণের টাকার সিনেমা তাই জেনিফার ফেরদৌস এখানে লাইন প্রডিউসার। তাকে যে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল উনি বরং সেখান থেকে টাকা মেরেছেন। এজন্যই ছবিটির সঙ্গে আমরা নাই- যোগ করেন এই চিত্রনায়িকা। 

মাহি আরও বলেন, মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক ছবি এবং সরকারি অনুদানের ছবি বলেই ‘আশীর্বাদ’ করতে রাজি হয়েছিলাম। আরেকটি কারণ হচ্ছে, এর পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান মানিক। তার সঙ্গে আমার এতো ভালো বোঝাপড়া যে ১০ লাখের জায়গায় ৫ লাখ টাকা পারিশ্রমিক নেই। আমি কিন্তু শুরু থেকে বলে আসছি জেনিফারকে দেখে আমি সিনেমাটি করিনি। কিন্তু জেনিফার যে শুটিংয়ে এমন অপেশাদার আচরণ করবেন ভুলেও ভাবিনি। 

‘আমি ঠকেছি, সম্মান ক্ষুণ্ণ হয়েছে। ছবি করতে গিয়ে যে তিক্ত অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হয়েছি গত ১০ বছরের ক্যারিয়ারে কোনো প্রযোজকের সঙ্গে এমন বাজে অভিজ্ঞতা হয়নি। খুব স্বপ্ন নিয়ে অনুদানের সিনেমাটি করতে চেয়েছিলাম। ভেবেছিলাম কোনোভাবে যদি প্রধানমন্ত্রী কাজটি দেখেন! হয়তো দেখবেনও.. তবে বলবো ৬০ লাখ টাকা সত্যি খরচ করলে অনেক ভালো সিনেমা বানানো যেত।’

শুধু মাহিয়া মাহি নন। প্রযোজকের বক্তব্যের কড়া জবাব দেন অভিনেতা রোশান। তিনি বলেন, এই সিনেমা মুক্তিযুদ্ধের সিনেমা। এটি করতে পারাও আমাদের জন্য গর্বের। তবে সিনেমা নিয়ে যা হচ্ছে মুক্তির আগেই তাতে আমরা লজ্জিত। 

রোশান বলেন, আমি সিনেমা করতে যা পারিশ্রমিক নেই তার ধারেকাছেও যাইনি। মাত্র একলাখ টাকা নিয়েছি। বাকি টাকা সিনেমাটির ভালোর জন্য খরচ করতে বলেছিলাম। কিন্তু জেনিফার তা করেনি। বরং নিজের মন মতো যা ইচ্ছে তাই করছেন। আমাদের না জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন করছেন যাতে তার ব্যক্তিগত প্রচার বাড়ে। এসব মেনে নেওয়া যায় না।

জোড়াতালি দিয়ে আশীর্বাদ সিনেমা বানানো হয়েছে মন্তব্য করেন খোদ এই সিনেমার পরিচালক। মোস্তাফিজুর রহমান মানিক বলেন, আমি মুক্তিযুদ্ধের সময়কার একটা জিপ পাইনি শুটিংয়ের জন্য। এটা আমার গল্পের ডিমান্ড ছিলো। আমি একটা গান প্রপারলি শ্যুট করতেও পারিনি। যা করেছি জোড়াতালি দিয়ে। মোদ্দাকথা, অনেক আশা নিয়ে শুরু করেও ছবিটা আমি ঠিকঠাক মতো বানাতেই পারি নাই। দেশে এখন সিনেমার জোয়ার চলছে। ‘পরাণ’, ‘হাওয়া’ হিট যাচ্ছে।  অথচ এই সময়ে আমার একটা ছবি নেই! 

একজন নির্মাতা হিসেবে এরচেয়ে কষ্টের বিষয় আর কি হতে পারে? প্রযোজক জেনিফার যেসব অভিযোগ তুলেছেন সেসব একেবারেই অপ্রয়োজনীয় বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

সম্প্রতি এক সংবাদ সম্মেলনে এসে নায়ক-নায়িকার ওপর ক্ষুব্ধ হন প্রযোজক তাহেরা জেনিফার ফেরদৌস। সেই অনুষ্ঠানে এবং বিভিন্ন সময়ে সিনেমার নায়ক-নায়িকা জিয়াউল রোশান এবং মাহিয়া মাহিকে নিয়ে নানা অভিযোগ করেন এই প্রযোজক। সেসব অভিযোগেরই পাল্টা দিলেন রোশান-মাহি জুটি।

/আরএ




http://www.shomoyeralo.com/ad/Google-News.jpg

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : shomoyeralo@gmail.com