ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা বৃহস্পতিবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৪ আশ্বিন ১৪২৯
ই-পেপার বৃহস্পতিবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২
http://www.shomoyeralo.com/ad/Amin Mohammad City (Online AD).jpg

http://www.shomoyeralo.com/ad/Untitled-1.jpg
প্রতিমাশিল্পীদের শেষ মুহূর্তের ব্যস্ততা
ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি
প্রকাশ: শুক্রবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ৫:৩৫ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 60

শেষ পর্যায়ের প্রস্তুতিতে ব্যস্ত ভৈরবের প্রতিমাশিল্পীরা। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম প্রধান ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। আগামী ১ অক্টোবর ষষ্ঠী পূজার মধ্য দিয়ে শুরু হবে এবারের দুর্গাপূজা। আসন্ন পূজা ঘিরে ভৈরবে ব্যস্ত সময় পার করছেন প্রতিমা তৈরির শিল্পীরা। কে কত ভালো প্রতিমা তৈরি করে ভক্তদের হৃদয় ছুঁতে পারেন তারই প্রতিযোগিতা চলছে মণ্ডপে মণ্ডপে। সামর্থ্য অনুযায়ী, স্থানীয় এবং অন্য জেলা থেকে শিল্পী এনে প্রতিমা তৈরি করছে পূজামণ্ডপ কমিটি। 

প্রতিবারের ধারাবাহিকতায় শারদীয় দুর্গাপূজা ঘিরে ভৈরব উপজেলার মন্দির ও মণ্ডপগুলোতে এখন চলছে মূর্তি তৈরির ব্যস্ততা। এবার ভৈরব উপজেলায় ১৯টি পূজামণ্ডপে চলছে পূজার আয়োজন। পূজার দিন ঘনিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে বেড়েছে ব্যস্ততাও। অধিকাংশ মণ্ডপে প্রতিমা নির্মাণের কাজ শেষ। প্রতিমাশিল্পীদের রংতুলির কাজ বাকি। শ্রদ্ধা আর ভালোবাসার সঙ্গে রাত-দিন সমান তালে কাজ করছেন তারা। মনের মাধুরী মিশিয়ে নিখুঁতভাবে ফুটিয়ে তুলছেন দুর্গা দেবীর আকৃতি। পাশাপাশি চলছে লক্ষ্মী, সরস্বতী, গণেশ ও কার্তিকের প্রতিমা তৈরির কাজ। তবে এবার পূজার সংখ্যা বেড়েছে, কিন্তু বাজেট বাড়েনি বলে জানালেন প্রতিমাশিল্পীরা।

ভৈরব পৌর শহরের গোপাল মন্দির সংলগ্ন টিনপট্টি এলাকায় প্রতি বছর সার্বজনীন দুর্গামণ্ডপে প্রতিমা তৈরি করেন শিল্পী টনি চক্রবর্তী। প্রতিমা তৈরির কাজে তিনি ঢাকার কেরানীগঞ্জ থেকে ভৈরবে এসেছেন। 

টনি চক্রবর্তী বলেন, ‘এ বছর ১০টি পূজামণ্ডপে প্রতিমা তৈরির কাজ নিয়েছি। বংশ পরম্পরায় এই কাজ করে আসছি। এ বছর প্রতিটি প্রতিমা তৈরির খরচ ৮০-৯০ হাজার টাকা নিলেও আমাদের পোষাবে না। কারণ প্রয়োজনীয় উপকরণের মধ্যে রং, কাপড়, পুঁথির মালা, পরচুলা, চুমকি, শোলা ও কারিগরের মজুরিসহ সব কিছুর দাম বেড়ে গেছে। শুধু পেশাটি টিকিয়ে রাখার জন্য এ কাজ করতে হচ্ছে।’

আরেক প্রতিমাশিল্পী সুখরঞ্জন বলেন, ‘চলতি বছর কাজের পরিমাণ ভালো থাকলেও কম খরচে ভালো কাজ উপহার দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। প্রতিমা তৈরি বাড়লেও পূজার বাজেট বাড়েনি।’ 

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ, ভৈরবের সভাপতি অধ্যাপক জিতেন্দ্র চন্দ্র দাস জানান, শারদীয় দুর্গোৎসব উদযাপনের প্রস্তুতি প্রায় শেষ পর্যায়ে। সবার সহযোগিতায় হিন্দু ধর্মের সবচেয়ে বড় শারদীয় দুর্গোৎসব যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপন হবে। সে জন্যই প্রতিমা তৈরির প্রস্তুতি চলছে পুরোদমে।

ভৈরব থানার ওসি (তদন্ত) মো. শাহ আলম বলেন, ‘আসন্ন শারদীয় দুর্গোৎসব যাতে সুন্দর ও সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হতে পারে সে জন্য নিরাপত্তার ব্যাপারে কোনো প্রকার ত্রুটি হবে না। পূজাকে কেন্দ্র করে শহর নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা থাকবে।’




http://www.shomoyeralo.com/ad/Google-News.jpg

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : shomoyeralo@gmail.com