ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা মঙ্গলবার ৬ ডিসেম্বর ২০২২ ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
ই-পেপার মঙ্গলবার ৬ ডিসেম্বর ২০২২
https://www.shomoyeralo.com/ad/Amin Mohammad City (Online AD).jpg

পঞ্চগড়ের নৌকাডুবিতে তীর্থযাত্রীদের মৃত্যু, অনিবন্ধিত নৌযানের ওপর নিয়ন্ত্রণ জরুরি
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ৯:০১ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 102

পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলায় করতোয়া নদীতে শুভ মহালয়া উদযাপনে যাওয়া তীর্থযাত্রীদের নৌকাডুবিতে প্রায় অর্ধশত জন প্রাণ হারিয়েছেন। নিখোঁজ রয়েছেন অনেকে। তাদের বাড়ি পঞ্চগড় জেলার বোদা, দেবীগঞ্জ এবং ঠাকুরগাঁও জেলায়। মর্মান্তিক এ দুর্ঘটনায় শোক জানান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, পঞ্চগড় জেলার বোদা উপজেলার বড়শশী ইউনিয়নের বদেশ^রী মন্দিরে মহালয়া উপলক্ষে এক বিশাল ধর্মসভার আয়োজন করা হয়। সেখানে যোগ দিতে জেলার বোদা ও দেবীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের দেড় শতাধিক লোক শ্যালো মেশিনচালিত একটি নৌকাযোগে মন্দিরে যাচ্ছিলেন। নদীর মাঝপথে অতিরিক্ত যাত্রীর কারণে নৌকাটি উল্টে যায়। এ সময় কিছু যাত্রী তীরে উঠে আসতে পারলেও অনেকে পানিতে ডুবে যায়। চিৎকার শুনে এলাকার লোকজন ছুটে এসে অনেককে উদ্ধার করে।

জানা যায়, বদেশ্বরী মন্দিরে প্রতি বছরই মহালয়া উপলক্ষে হাজার হাজার মানুষের আগমন ঘটে। আশপাশের ৮-১০ জেলার পুণ্যার্থীরা এখানে আসেন। ঐতিহ্যবাহী এই উৎসবের কারণেই মন্দিরটি এলাকায় বিশেষভাবে পরিচিত। অনেক নারী-পুরুষ মানত আদায় করার জন্য সন্তানদের নিয়ে আসেন। প্রতিবারই এই উৎসবে নারী ও শিশুদের উপস্থিতি থাকে লক্ষণীয়।

বোদা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সোলেমান আলী বলেন, ‘শ্যালো ইঞ্জিনচালিত নৌকাটি বড়শশী ইউনিয়নের বদেশ^রী মন্দিরের দিকে যাচ্ছিল। ঘাট থেকে কিছু দূর যাওয়ার পর নৌকাটি দুলতে থাকে। এ সময় মাঝি নৌকাটি ঘাটে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করলেও ডুবে যায়। স্থানীয়দের ধারণা, নৌকাটিতে কমপক্ষে ১৫০ জন যাত্রী ছিল।’

পঞ্চগড়ের জেলা প্রশাসক মো. জহুরুল ইসলাম বলেন, ‘ধারণক্ষমতার চেয়ে অনেক বেশি যাত্রী নৌকাটিতে ছিল। ছোট নৌকায় অতিরিক্ত যাত্রী তোলার কারণে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে। লাশ সৎকারের জন্য প্রত্যেক পরিবারকে ২০ হাজার টাকা করে দেওয়া হয়েছে। এদিকে মৃত স্বজনদের আহাজারিতে থমকে গেছে সবকিছু। লাশগুলো বোদা উপজেলার স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়ার পর শত শত মানুষ সেখানে জড়ো হচ্ছেন। লাশগুলোর মধ্যে নিজেদের কোনো আত্মীয়স্বজন আছে কি না, হন্যে হয়ে খুঁজছে তারা।

নৌকাডুবির ঘটনা তদন্তে পাঁচ সদস্যের কমিটি গঠন করেছে জেলা প্রশাসন। অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট দীপংকর রায়কে প্রধান করে কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে আগামী তিন কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। তারা তদন্ত করে রিপোর্ট দেবেন। অতীতে দেখা গেছে, এ রকম দুর্ঘটনার জন্য মাঝিসহ সংশ্লিষ্টদের দায়িত্বহীনতা ও গাফিলতি অনেকাংশে দায়ী থাকে। প্রত্যাশা করি, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বিষয়টি গুরুত্বসহকারে বিবেচনায় নেবেন।

আমরা মনে করি, প্রতিটি নৌদুর্ঘটনার পেছনেই রয়েছে কারও-না-কারও দায়িত্বে অবহেলা। পঞ্চগড়ের করতোয়ায় নৌকাডুবির ঘটনায় ধারণক্ষমতার চেয়ে যাত্রীসংখ্যা অনেক বেশি ছিল। আবার গত কয়েক দিনের বৃষ্টির কারণে নদীতে স্রোতও ছিল বেশি। এ ক্ষেত্রে যাত্রীরাও অসচেতনতার পরিচয় দিয়েছেন।

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের এসব ঘটনার দায় এড়ানোর সুযোগ নেই। অনিবন্ধিত নৌযানের ওপর নিয়ন্ত্রণ না আনলে এমন দুর্ঘটনা রোধ মোটেই সম্ভব হবে না। নৌ পরিবহন অধিদফতরকে এ ব্যাপারে ত্বরিত উদ্যোগ নিতে হবে। একই সঙ্গে তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে যারা দোষী সাব্যস্ত হবে তাদের শাস্তি দিতে হবে। আমরা পঞ্চগড়ের করতোয়ায় নৌকাডুবিতে নিহতদের আত্মার শান্তি এবং আহতদের সুস্থতা কামনা করছি।




https://www.shomoyeralo.com/ad/Google-News.jpg

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : shomoyeralo@gmail.com