ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা মঙ্গলবার ৬ ডিসেম্বর ২০২২ ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
ই-পেপার মঙ্গলবার ৬ ডিসেম্বর ২০২২
https://www.shomoyeralo.com/ad/Amin Mohammad City (Online AD).jpg

চট্টগ্রামে সাফ জয়ী পাঁচ নারী ফুটবলারকে সংর্বধনা
‘আঁরার মাইয়া, আঁরার গর্ব’
চট্টগ্রাম ব্যুরো
প্রকাশ: বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১০:২৭ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 144

দক্ষিণ এশিয়া নারী ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ (সাফ) জয়ী বৃহত্তর চট্টগ্রামের পাঁচ নারী ফুটবলারকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে। বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর) বিকেল ৫টায় চট্টগ্রাম মহানগরীর জামালখান মোড়ে এ সংবর্ধনা দেওয়া হয়। 

চট্টগ্রাম থেকে প্রকাশিত স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম সংবাদপত্র দৈনিক আজাদী পত্রিকার পক্ষ থেকে এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানের স্লোগান নির্ধারণ করা হয়েছে- ‘আঁরার মাইয়া, আঁরার গর্ব’। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে পাঁচ ফুটবলারকে ১ লাখ টাকা করে পুরস্কার দেওয়া হয়েছে। 

সংবর্ধনা পাওয়া বৃহত্তর চট্টগ্রামের পাঁচ ফুটবলার হলেন- রাঙামাটির রুপনা চাকমা ও ঋতুপর্ণা চাকমা, খাগড়াছড়ি জেলার মনিকা চাকমা ও যমজ দুই বোন আনাই মগিনী ও আনুচিং মগিনী।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ঋতুপর্ণা চাকমা বলেন, আমি গর্বিত চট্টগ্রামের মেয়ে হয়ে। যখন দূরে থাকি তখন চট্টগ্রামকে মিস করি। অনেকদিন পরে চট্টগ্রামে শহরে এসে অনেক ভালো লাগছে। অনেক খুশি লাগছে। আমাদের সংবর্ধনা দেওয়ার জন্য সবাইকে ধন্যবাদ। 

ঋতুপর্ণা চাকমা আরও বলেন, এতোদিন যেভাবে আমাদের পাশে ছিলেন, ভবিষ্যতেও এভাবে পাশে থাকবেন বলে প্রত্যাশা করি। আমারা যেন বাংলাদেশকে আরও ভালো সাফল্য এনে দিতে পারি সেই দোয়া করবেন। আপনাদের সীমাহীন সমর্থন আমাদের পথচলা আরও দৃঢ় করবে।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার মোহাম্মদ আশরাফ উদ্দিন, পুলিশ কমিশনার কৃষ্ণপদ রায়, সাবেক মেয়র ও সিজেকেএস সাধারণ স¤পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীন, বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের ন্যাশনাল টিম কমিটি এবং উইম্যান উইংসের সদস্য, বিসিবি পরিচালক মনজুর আলম মঞ্জু। 

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে নারী ফুটবলারদের নিয়ে আগত অতিথিরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে কেক কাটেন। অনুষ্ঠান শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিচালনা করা হয়।

এর আগে বুধবার বেলা ১১টার দিকে পাঁচ ফুটবলার ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম আসেন। চট্টগ্রাম শাহ আমানত বিমানবন্দরে স্বাগত জানান দৈনিক আজাদী পরিবারের সদস্যরা। 
এরপর বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে খোলা ছাদের জিপে করে মোটর শোভাযাত্রার মাধ্যমে চট্টগ্রাম ক্লাব থেকে অনুষ্ঠানস্থলে নিয়ে আসা হয় সাফজয়ী পাঁচ ফুটবলারকে। এ সময় রাস্তার দুই পাশের মানুষজন তাদের দেখতে ভিড় করেন, হাত উঁচিয়ে শুভেচ্ছা জানান। পরে জামাল খানে পৌছার পর সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের শুরুতে পাঁচ ফুটবলারকে ফুলের মালা এবং উত্তরীয় পরিয়ে দেওয়া হয় আয়োজকদের পক্ষ থেকে। 

পাঁচ ফুটবল তারকার পথচলার গল্প : 
বাংলাদেশ দলের সাফ চ্যাম্পিয়নের বড় অংশীদার পার্বত্য চট্টগ্রাম। মনিকা, রূপনা, ঋতু, আনুচিং ও আনাই মগিনীদের উঠে আসার গল্পটা মোটেও সহজ ছিল না। দরিদ্রতা ও দুর্গমতার মতো শত বাধা পেরিয়ে দেশের ফুটবলের আগ্রহের কেন্দ্র বিন্দুতে এখন তারা। 

মনিকা চাকমা : পার্বত্য জেলা খাগড়াছড়ির সবচেয়ে দুর্গম উপজেলা লক্ষ্মীছড়ির সুমন্ত পাড়ায় মনিকা চাকমার বাড়ি। দারিদ্রের পাহাড়সম বাধা ডিঙিয়ে দেশের অন্যতম তারকা ফুটবলার এই পাহাড়ি কন্যা। খাগড়াছড়ির সবচেয়ে দুর্গম উপজেলা লক্ষ্মীছড়ি জন্মগ্রহণ করলেও শৈশব থেকেই ফুটবলের প্রতি ছিল তার তীব্র অনুরাগ। শত বাধা ডিঙিয়ে ফুটবল শৈলির মাধ্যমে অনূর্ধ্ব-১৯ নারী দলে ডাক পান। এরপরই বাংলাদেশের ফুটবল ইতিহাসে লেখা হয়ে গেলো মনিকা চাকমার নাম।

মনিকার বাবা বিন্দু কুমার চাকমা বলেন, পাহাড়ি এলাকায় ছোট্ট মনিকা তখন থেকেই ফুটবলের প্রতি আসক্ত ছিল। বাবা-মা হিসেবে প্রথমে মেনে নিতে পারিনি। এ জন্য প্রায় সময় মারও খেতে হত তাকে। কিন্তু আমরা এখন তাকে নিয়ে গর্বিত।

রূপনা চাকমা : সাফ মহিলা ফুটবল চ্যাম্পিয়নের সেরা গোলরক্ষক রূপনা। বাংলাদেশের শিরোপা জয়ে বড় অবদান তার। পুরো টুর্নামেন্টে মাত্র এক গোল হজম করেছে বাংলাদেশ। গোল প্রতিরোধে মজবুত দেয়াল গড়ে তোলা জাতীয় দলের গোলরক্ষক রূপনার বেড়ে উঠার গল্পটা সবার থেকে আলাদা। জন্মের আগেই হারান বাবাকে। মা কালাসোনা চাকমা (৬৫) অন্যের ক্ষেতে-খামারে কাজ করে দৈনিক ২৫০-৩০০ টাকা আয় করেন। এ টাকা দিয়েই চলে সংসারের খরচাপাতি। তবে রূপনার সাফল্যে দিন বদল হচ্ছে কালাসোনার। সরকারি সহায়তায় তৈরি হচ্ছে ঘর।

রূপনার মা কালোসোনা চাকমা বলেন, রাঙামাটির নানিয়াচর উপজেলা ঘিলাছড়ি ইউনিয়নের বুইয়ো আদম গ্রামে আমাদের বাড়ি। আমার দুই ছেলে, দুই মেয়ে। রূপনা সবার ছোট। সে যখন আমার পেটে তখন তার বাবা মারা যায়। খুব অভাবের সংসার আমার। আমার কষ্টের শেষ নেই। ছেলেমেয়েদের লেখাপড়া শেখাতে পারিনি। আমার মেয়ের এতটুকু যাওয়ার পেছনে ঘাগড়ার বীরসেন, শান্তিমনি বাবুদের অবদান সবচেয়ে বেশি। তারা আমার মেয়েকে ঘাগড়ায় নিয়ে ফুটবল খেলা শিখিয়েছেন। আমার মেয়ে এখন জাতীয় দলের গোলরক্ষক। মেয়ের জন্য আমি গর্বিত।

ঋতুপর্ণা চাকমা : বাংলাদেশ নারী ফুটবল দলের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য। মাঠে তার পায়ের জাদু খেলার নৈপুণ্য ফুটিয়ে তোলে। রাঙামাটি শহর পেরিয়ে কাউখালি উপজেলার ঘাগড়া ইউনিয়নের মগাছড়িতে ঋতুপর্ণাদের বাড়ি। মেঠোপথ আর ধানি জমির রাঙামাটি থেকে উঠে আসতে গিয়ে পাহাড়ের মতোই চড়াই উতরাই পার হতে হয়েছে তাকে। বাবা কৃষক। অনেক সময় প্র্যাকটিসে যাওয়ার টাকা থাকত না। বাবা ধার করে এনে দিতেন। বাবা বলতেন, ভালো করে খেল। জাতীয় দলে খেলতে হবে। বাবার কথা রেখেছেন ঋতুপর্ণা। কিন্তু ঋতুপর্ণার এ সাফল্য দেখে যেতে পারেননি তিনি।

ঘাগড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক চন্দ্রা দেওয়ান, তার সাবেক ও বর্তমান তিন ছাত্রী বাংলাদেশের জাতীয় দলে প্রতিনিধিত্ব করছে। তাদের এই অসামান্য অর্জনে যারপরনাই খুশি তিনি। তিনি বলেন, রূপনা এখনও আমার স্কুলের ছাত্রী, ঋতুপর্ণাও এখানে পড়ত। আর মনিকা এই স্কুল থেকে এসএসসি পাস করেছে। আমার ছাত্রীদের অর্জনে আমি গর্বিত।

ঋতুপর্ণার মা বসুবতি চাকমা বলেন, দেশ চ্যাম্পিয়ন হয়েছে, আমার মেয়ে সেই দলের সদস্য। এলাকার মানুষ আমাদের সম্মান দেখাচ্ছে। দেখেই ভালোই লাগছে।

আনাই মগিনী : সাফ শিরোপা চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ নারী ফুটবল দলের অন্যতম খেলোয়াড় আনাই মগিনী-আনুচিং মগিনী। তারা যমজ বোন। খাগড়াছড়ির সাতভাইয়া পাড়ায় ২০০৩ সালে আনাই মগিনীর জন্ম। দুই মিনিট পরে আনুচিংয়ের জন্ম। দুই মেয়ের জন্মে চিন্তিত হয়ে পড়েন তাদের বাবা-মা রিপ্রু মগ ও আপ্রুমা মগিনী দ¤পতি।

আনাইয়ের বাবা রিপ্রু মগ বলেন, ২০১০ সালে সাতভাইয়া পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ার সময় বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা ফুটবল টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণের মাধ্যমে ফুটবল যাত্রা শুরু হয় মেয়েদের। আনাই মারমার ফুটবল নৈপুণ্য দেখে রাঙামাটির মগাছড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বীরসেন চাকমা ঘাগড়া হাই স্কুলে ভর্তির সুযোগ করে দেন। পরবর্তীতে সেখান থেকে জাতীয় দলের খেলার সুযোগ হয় তার।

আনুচিং মগিনী : আনাই মগিনীর জন্মের দুই মিনিট পর পৃথিবীর আলো দেখে আনুচিং মগিনী। দুই জনের গল্পটা একই সঙ্গে বেদনাদায়ক ও রোমাঞ্চকর। দুই জনের বেড়ে উঠার গল্পটা প্রায় অভিন্ন। দুই বোনের জন্মের পর তাদের বাবা-মার কপালে চিন্তার ভাজ পড়লেও তারাই এখন পরিবারটির আশার প্রদীপ। আনাই-আনুচিং-এর আয়ে সুখে-শান্তিতে চলছে রিপ্রু মারমা ও আপ্রুমা মগিনীর সংসার। বাংলাদেশ নারী ফুটবল দলে এখন অপরিহার্য আনুচিং। আনুচিংয়ের মা আপ্রুমা মগিনী বলেন, আমি দুই মেয়ের জন্য গর্বিত। আমি চাই তারা ফুটবল খেলে যাক। পুরো জেলার মানুষ আমার মেয়েদের নিয়ে গর্ব করে। এটাই আমার বড় আনন্দ।

/ডিএফ




https://www.shomoyeralo.com/ad/Google-News.jpg

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : shomoyeralo@gmail.com