ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা বৃহস্পতিবার ৮ ডিসেম্বর ২০২২ ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
ই-পেপার বৃহস্পতিবার ৮ ডিসেম্বর ২০২২
https://www.shomoyeralo.com/ad/Amin Mohammad City (Online AD).jpg

মনুষ্য-সৃষ্ট কারণে দ্রুত ক্ষয় হচ্ছে পৃথিবী
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: বুধবার, ১৬ নভেম্বর, ২০২২, ৩:২৬ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 122

জাতিসংঘ তাদের এক প্রতিবেদনে আগেই জানিয়েছিল ১৫ নভেম্বর-২০২২ (গতকাল মঙ্গলবার) বিশ্বে জীবিত মানুষের সংখ্যা ৮০০ কোটিরও বেশি হবে। ওয়ার্ল্ডোমিটারে প্রকাশিত সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, এদিন জনসংখ্যা ৮০০ কোটি ছাড়িয়েছে। ওয়ার্ল্ডোমিটারে প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, ২০২২ সালে বিশ্বে ৫৮ কোটি ৪০ লাখের বেশি মানুষ জন্মগ্রহণ করেছেন। এ ছাড়া ৮০০ কোটিতম মানুষটির জন্ম হয়েছে এশিয়ায়।

পৃথিবী নামক এই গ্রহটির কি এই বিশাল জনসংখ্যার ভার নেওয়ার সক্ষমতা রয়েছে। যেখানে শিল্পায়ন, আবাসন ও নানা কারণে কমে আসছে বসবাসযোগ্য জমির পরিমাণ। এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) পপুলেশন বিভাগের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক একেএন নুরুন নবী সময়ের আলোকে বলেন, ‘এই পৃথিবীকে ছোট গ্রহ মনে হলেও এখনও যে জমি আছে তা দিয়ে এই ৮০০ কোটি মানুষের থাকার জায়গার কোনো অভাব হবে না। এই বিশাল জনসংখ্যার ভার নেওয়ার সক্ষমতা এখনও রয়েছে পৃথিবীর। তবে হ্যাঁ, পৃথিবীর ক্ষয় হচ্ছে দ্রুত। কিন্তু এই ক্ষয় যতটা না হচ্ছে প্রকৃতিগত কারণে তার চেয়ে বেশি হচ্ছে মনুষ্য সৃষ্ট কারণে। বিশেষ করে বৃহৎ ক্ষমতাধর রাষ্ট্রগুলোর অস্ত্র ব্যবসার জন্য যুদ্ধ বাধানো, ব্যাপকহারে শিল্পায়ন, নগরায়ণ করার কারণে এই পৃথিবীর ক্ষতি হচ্ছে বেশি।

তিনি আরও বলেন, ‘আরেকটি সমস্যা হচ্ছে, এই বিশাল পৃথিবীটা সংকুচিত হয়ে গেছে তখন থেকে, যখন একেকটি দেশের সীমারেখা নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। এতে কোনো দেশ বিশাল আয়তনের, আর কোনো দেশ সামান্য আয়তনের। যেমন রাশিয়া, চীন, ভারতের মতো দেশগুলো বিশাল আয়তনের। বিশ্বের মোট জনসংখ্যার সিংহভাগই এসব দেশে। তবুও দেশগুলোতে এখনও জনসংখ্যার ঘনত্ব ছোট অনেক দেশের চেয়ে বেশ কম। যেমন, বিশাল আয়তনের রাষ্ট্র রাশিয়ায় প্রতি বর্গ কিলোমিটারে জনসংখ্যার ঘনত্ব ৫৮ জন, চীনের ঘনত্ব ২৪২ জন এবং ভারতের ঘনত্ব ৩৭৩ জনের মতো।’ 

তিনি আরও জানান, পৃথিবীতে যেদিন থেকে মানুষের বসবাস শুরু হয়েছে সেদিন থেকে দুই মিলিয়ন বছর পর্যন্ত জনসংখ্যার প্রবৃদ্ধি ছিল খুবই কম। এরপর যখন থেকে কৃষির আবিষ্কার হলো, আগুনের আবিষ্কার হলো, শিল্পায়ন হলো-তখন থেকে জনসংখ্যার হার বাড়তে শুরু করল। বিশ্বে প্রথম ১ মিলিয়ন বা ১০০ কোটি জনসংখ্যা পূর্ণ হয় ১৮০৪ সালে। 

এভাবে ২০০ কোটি পূর্ণ হয় ১৯২৭ সালে, ৩০০ কোটি পূর্ণ হয় ১৯৬০ সালে, ৪০০ কোটি পূর্ণ হয় ১৯৭৪ সালে, ৫০০ কোটি পূর্ণ হয় ১৯৮৭ সালে, ৬০০ কোটি জনসংখ্যা পূর্ণ হয় ১৯৯৯ সালে, ৭০০ কোটি জনসংখ্যা পূর্ণ হয় ২০১১ সালের ৩১ অক্টোবর এবং পৃথিবীর জনসংখ্যা ৮০০ কোটি পূর্ণ হলো ২০২২ সালের ১৫ নভেম্বর। এভাবে ৯০০ কোটি পূর্ণ হবে ১০৩৭ সালে এবং ১০০০ কোটি জনসংখ্যা পূর্ণ হবে ২০৫৭ সালে। এ সময় পর্যন্ত বিশ্বের জনসংখ্যার প্রবৃদ্ধির হার বেশি হবে। তবে ২০৫৭ সালের পর থেকে জনসংখ্যার এই প্রবৃদ্ধির হার কমতে থাকবে।




https://www.shomoyeralo.com/ad/Google-News.jpg

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : shomoyeralo@gmail.com