ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শনিবার ২৮ জানুয়ারি ২০২৩ ১৪ মাঘ ১৪২৯
ই-পেপার শনিবার ২৮ জানুয়ারি ২০২৩
https://www.shomoyeralo.com/ad/Amin Mohammad City (Online AD).jpg

https://www.shomoyeralo.com/ad/780-90.jpg
রংপুর সিটি নির্বাচন: ইভিএম চ্যালেঞ্জে ইসি!
শাকিল আহমেদ, ঢাকা ও সাইফুল ইসলাম, রংপুর
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০২২, ১১:৫৯ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 201

আগামী ২৭ ডিসেম্বর রংপুর সিটি করপোরেশনে (রসিক) প্রথমবারের মতো ইভিএমে ভোট গ্রহণ করবে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ভোটকে কেন্দ্র করে উৎসাহ-উদ্দীপনা থাকলেও প্রান্তিক ভোটারদের ইভিএমে ভোট গ্রহণ, যান্ত্রিক ত্রুটি, মেশিনের ধীরগতিসহ নানান শঙ্কায় রয়েছে ভোটার ও প্রার্থীরা।

এদিকে সব কেন্দ্রে ইভিএমে ভোট গ্রহণ চ্যালেঞ্জ মনে করে রিটার্নিং কর্মকর্তা আবদুল বাতেন বলেছেন, পিছিয়ে থাকা ভোটারদের সঙ্গে ইভিএমের পরিচয় করিয়ে ভোট প্রদানে তাদের দক্ষ করে নিতে ভোটের আগে মকভোটিংসহ নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

আগামী ২৭ ডিসেম্বর রংপুর সিটিতে সকাল সাড়ে ৮টা থেকে বিকাল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত ২২৯টি কেন্দ্রে বিরতিহীনভাবে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। আগামীকাল ৭ ডিসেম্বর প্রার্থীদের আপিল নিষ্পত্তি করবে আপিল কর্তৃপক্ষ। ৮ ডিসেম্বর প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন। প্রতীক বরাদ্দ ৯ ডিসেম্বর। এর পরই শুরু হবে প্রার্থীদের আনুষ্ঠানিক প্রচার-প্রচারণা। এবারই প্রথম রংপুর সিটিতে সব কেন্দ্রে একসঙ্গে ইভিএমে ভোট গ্রহণ হতে চলছে।

এর আগে ২০১৮ সালের নির্বাচনে ২৫ নম্বর ওয়ার্ডের মাত্র একটি (সরকারি বেগম রোকেয়া কলেজ) কেন্দ্রে পরীক্ষামূলকভাবে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহার করা হয়েছিল। ২০১২ সালে পৌরসভাকে বর্ধিত করে ২০৫ বর্গ কিলোমিটার আয়তনের রংপুর সিটি করপোরেশন করা হয়। তবে নগরীর ৭০ ভাগ এলাকা এখনও প্রান্তিক এবং কৃষিনির্ভর। ফলে এসব প্রান্তিক ভোটারদের কাছে ইভিএম আস্থাহীনতায় রয়েছে। তাদের অধিকাংশই জানেন না কীভাবে ইভিএম মেশিনে ভোট দিতে হয়। এমনকি তাদেরকে কোনো প্রশিক্ষণও দেওয়া হয়নি।

ইভিএমে ভোট প্রসঙ্গে রাজেন্দ্রপুরের বাসিন্দা লুতু মিয়া বলেন, ‘হামরা কোনো মেশিনোত ভোট দিবান নাই। মেশিনে হামরা ভোট দিবার পারি না।’

অপর বাসিন্দা মো. রফিক মিয়া (৫০) বলেন, ‘আমরা অল্প শিক্ষিত মানুষ কোনদিন মেশিনে ভোট দেইনি। কীভাবে দিব বুঝতে পারছি না। মেশিনের কথা শুনে ভোট দেওয়ার আগ্রহ কমে গেছে। তার পরও দেখা যাক কী হয়।’

এদিকে ইভিএম নিয়ে ভোটারদের পাশাপাশি শঙ্কায় রয়েছেন প্রার্থীরাও। রসিক নির্বাচনে জাতীয় পার্টির মেয়র প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফা সময়ের আলোকে বলেন, রংপুরের মানুষ ব্যালোটে ভোট দিয়ে অভ্যস্ত, ইভিএমের সঙ্গে তেমন পরিচিত নয়। এবার নির্বাচনে সব কেন্দ্রে ইভিএমে ভোট হবে জেনে অনেক ভোটার উৎসাহ হারিয়ে ফেলেছে। এখন পর্যন্ত এই ইভিএম মেশিন নিয়ে আমাদের মাঝে উদ্বেগ, ভয় ও শঙ্কা কাজ করছে। তিনি আরও বলেন, ইভিএমে অনেক কারচুপির সুযোগ থাকে। ভোট রিডিং কিংবা আগের ভোট কাস্ট করে দেওয়া যায়। সরকার যদি এসব করে তাহলে কিন্তু এটা বুমেরাং হয়ে যাবে। তাই স্বচ্ছতার জন্য ইভিএমে জিরো রেটিং নিশ্চিত করতে হবে।

যদিও আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট হোসেন আরা লুৎফা ডালিয়া সময়ের আলোকে বলেছেন, স্বচ্ছ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভোট গ্রহণে ইভিএমের বিকল্প নেই। গ্রাম বা শহরের মানুষ ইভিএম পদ্ধতিকে ভয় করে না। ভোটাররা এটিকে সহজভাবেই নেবেন। তারা সবাই বিশ্বাস করে আধুনিক বিজ্ঞানের প্রযুক্তিতে বিশ্ব এগিয়ে যাচ্ছে। রংপুরের মানুষ উৎসাহের সঙ্গে ইভিএমে ভোট প্রদান করে নৌকা প্রতীককে বিজয়ী করবেন।

রাজেন্দ্রপুরের কাউন্সিলর প্রার্থী মো. আফজাল হোসেন সময়ের আলোকে বলেন, অনেক ভোটার আমাকে অনুরোধ করে বলেছেন যেন ব্যালোটের মাধ্যমে ভোট হয়। ইভিএমে ভোট হলে তারা ভোট দিতে যাবে না।

অবশ্য নির্বাচনের আগেই ইভিএম সম্পর্কে ভোটারদের ধারণা দিতে মক ভোটের আয়োজন করা হবে বলে জানিয়েছেন ইসি। রসিক নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা আবদুল বাতেন সময়ের আলোকে বলেন, নির্বাচনের আগেই আমাদের মক ভোটিং কার্যক্রম শুরু হবে। কোনো এলাকায় বয়োজ্যেষ্ঠ বা অসুস্থ মানুষ ইভিএমের সঙ্গে পরিচিত হতে চাইলে প্রয়োজনে তার কাছে আমাদের লোক গিয়ে ইভিএম ব্যবহারের পদ্ধতি শিখিয়ে দেবেন। ৯ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্দের পর থেকে ২৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত, কোন কেন্দ্র কী অবস্থা তা চিহ্নিত করে মক ভোটিংয়ের ব্যবস্থা নেবেন। এভাবে শতভাগ ভোটারকেই ইভিএম ভোটিং সিস্টেমে নিয়ে আসতে পারবেন বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

রংপুরে সংরক্ষিত ইভিএমের ৬০ শতাংশ ত্রুটিপূর্ণ : 

রংপুর অঞ্চলে সংরক্ষিত ১০ হাজার ৭৫৯টি ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মধ্যে ছয় হাজার ৩৫টি মেশিনে ত্রুটি পাওয়া গেছে বলে প্রকল্পের কর্মকর্তারা তাদের মূল্যায়ন শেষে নির্বাচন কমিশনকে এ তথ্য জানিয়েছিল। রংপুর-এ ইভিএম মনিটরিংয়ের পর প্রকল্প কর্মকর্তারা কমিশনকে যে চিঠি দিয়েছেন তাতে বলা হয়, অধিকাংশ ইভিএমই উইপোকার কারণে নষ্ট হয়ে গেছে। অযত্ন ও অবহেলায় অকেজো হয়ে পড়েছে বেশিরভাগ স্পর্শকাতর ইভিএম যন্ত্রপাতি। এ বিষয়ে জানতে ইভিএম প্রকল্পের পরিচালক (পিডি) কর্নেল সৈয়দ রাকিবুল হাসানকে একাধিকবার ফোন করেও পাওয়া যায়নি। মুঠোফোনে খুদেবার্তা পাঠালেও কোনো উত্তর দেননি। এ ছাড়া ইভিএমের দায়িত্বে থাকা নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আহসান হাবিব খানকে একাধিকবার ফোন করেও পাওয়া যায়নি।

রংপুর সিটি নির্বাচনে সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ৬৯ জন ও সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১৯৮ জন মনোনয়ন জমা দিয়েছিলেন। এদের মধ্যে নানা বিষয়ে ত্রুটি থাকায় সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদের সাতজন ও সাধারণ কাউন্সিলর পদে ২৯ জনের মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে। আর মেয়র পদে জমা দেওয়া ১০ জনের মনোনয়নপত্রই বৈধ হয়েছে। এ পদে বৈধ প্রার্থীরা হলেন- জাতীয় পার্টির মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা, আওয়ামী লীগের অ্যাডভোকেট হোসনে আরা লুৎফা ডালিয়া, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ-ইনু) শফিয়ার রহমান, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমিরুজ্জামান পিয়াল, খেলাফত মজলিশের তৌহিদুর রহমান মণ্ডল রাজু, জাকের পার্টির খোরশেদ আলম খোকন, বাংলাদেশ কংগ্রেস পার্টির আবু রায়হান এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী মেহেদী হাসান বনি, লতিফুর রহমান মিলন ও আতাউর জামান বাবু।

রংপুর সিটি করপোরেশনে ভোটার সংখ্যা চার লাখ ২৬ হাজার ৪৬৯ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার দুই লাখ ১২ হাজার ৩০২ জন ও নারী ভোটার দুই লাখ ১৪ হাজার ১৬৭ জন।

২০১৭ সালের ২১ ডিসেম্বর এ সিটিতে সর্বশেষ নির্বাচন হয়েছিল। নির্বাচিত করপোরেশনের প্রথম সভা হয়েছিল ২০১৮ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি। সে মোতাবেক এ সিটির বর্তমান নির্বাচিতদের মেয়াদ শেষ হবে ২০২৩ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি।

https://www.shomoyeralo.com/ad/Local-Portal_728-X-90 (3).gif



https://www.shomoyeralo.com/ad/Google-News.jpg

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : shomoyeralo@gmail.com