ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শনিবার ২৮ জানুয়ারি ২০২৩ ১৪ মাঘ ১৪২৯
ই-পেপার শনিবার ২৮ জানুয়ারি ২০২৩
https://www.shomoyeralo.com/ad/Amin Mohammad City (Online AD).jpg

https://www.shomoyeralo.com/ad/780-90.jpg
যৌন নিপীড়নের অভিযোগ
জাবিতে শিক্ষকের অব্যাহতি দাবিতে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন
জাবি প্রতিনিধি
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০২২, ৩:০৪ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 123

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) পাবলিক হেলথ এন্ড ইনফরমেটিক্স বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মাহামুদুর রহমান জনির অপসারণ দাবিতে মানববন্ধন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের একটি অংশ।

শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও শিক্ষক জনির বিরুদ্ধে ছাত্রীকে যৌন নিপীড়ন এবং শিক্ষক নিয়োগে প্রভাব বিস্তারের কিছু অডিও ও ছবি সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হয়। এর প্রেক্ষিতে ঘটনার তদন্ত সাপেক্ষে শিক্ষক মাহামুদুর রহমান জনির অপসারণ দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনার পাদদেশে মানববন্ধন করেন শিক্ষার্থীরা।

এসময়ে শিক্ষার্থীদের হাতে ‘চরিত্রহীন জনিকে ক্যাম্পাস থেকে অপসারণ করো’,‘লম্পট শিক্ষক নিপাত যাক, দূর হটাও’  সহ বিভিন্ন স্লোগান সম্বলিত প্ল্যাকার্ড দেখা যায়। মানববন্ধনে সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট জাবি সংসদের সভাপতি আবু সায়েম বলেন, আজকের অভিযুক্ত শিক্ষক পদ পদবির লোভ দেখিয়ে শিক্ষার্থীদের অনৈতিক কাজে প্রলুব্ধ করছে। এমন যারা শিক্ষার স্বাভাবিক পরিবেশ নষ্ট করছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রণ করছে  তাদের শাস্তি হোক। অভিযুক্ত শিক্ষককে নৈতিক স্খলনের দায়ে প্রশাসনিক দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেয়া হোক এবং তদন্ত সাপেক্ষে তাকে চাকরিচ্যুত করার দাবি করছি।

বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদক আলিফ মাহমুদ বলেন, একটি লজ্জাজনক অধ্যায়ের সাক্ষী হয়ে আমরা এখান দাঁড়িয়েছি। শিক্ষকরা নৈতিকতার শিক্ষা দেন। কিন্তু  ক্ষমতাসীন ছাত্র সংগঠনের সাবেক সভাপতি ও বর্তমান শিক্ষক মাহমুদর রহমান জনি নৈতিকতাকে জলাঞ্জলি দিয়ে অনৈতিক উপায়ে শিক্ষক নিয়োগে জড়িত থাকার সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। আমরা আজ সেই শিক্ষকের অব্যাহতির দাবি নিয়ে দাঁড়িয়েছি। মাহমুদুর রহমান জনি সহকারী প্রক্টরের দায়িত্বে থাকায় শিক্ষার্থীরা আতংকে রয়েছে। একজন নিপীড়নকারী কখনো সহকারী প্রক্টরের মতো দায়িত্বে থাকতে পারেন না। মাহমুদুর রহমান জনি ইস্যুতে প্রশাসনের নিশ্চুপ ভঙ্গি আমাদের লজ্জিত করে।  তাকে দ্রুত সহকারী প্রক্টরের পদ থেকে অব্যাহতি পূর্বক তার বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি গঠন করার দাবি জানাই।

জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি সৌমিক বাগচী বলেন, শিক্ষক আমাদের নৈতিকতার শিক্ষা দিবেন। কিন্তু তিনি অনৈতিকতার শিক্ষা দিচ্ছেন। আজকে একটা মহল এই ঘটনাকে ধামাচাপা দেয়ার জন্য বলছে এ ঘটনার কোন অভিযোগ নেই৷ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদের ভিত্তিতে স্বপ্রণোদিত হয়ে তদন্ত করবে। তার কর্মকাণ্ড শিক্ষার পরিবেশকে ব্যাহত করে। তাকে সকল প্রশাসনিক দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দিতে হবে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন গড়িমসি হলে আমরা হ জানাতে চাই যে অতীতে জাহাঙ্গীরনগরে কোন নিপীড়নকারীর ঠাই হয়নি। এবারেও হবে না। সুষ্ঠু তদন্ত না হলে আমরা বৃহত্তর আন্দোলনে যাবো৷

তবে শিক্ষক নিয়োগে প্রভাব বিস্তার, ছাত্রীকে যৌন নিপীড়ন ও ফাঁস হওয়া অডিও বিষয়ক অভিযোগ অস্বীকার করেছেন মাহামুদুর রহমান জানি।

https://www.shomoyeralo.com/ad/Local-Portal_728-X-90 (3).gif



এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ


https://www.shomoyeralo.com/ad/Google-News.jpg

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : shomoyeralo@gmail.com