ই-পেপার বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

১৩৬ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ
এমজিএইচ গ্রুপের এমডি গোর্কির বিরুদ্ধে দুদকের মামলা
প্রকাশ: বুধবার, ২৮ ডিসেম্বর, ২০২২, ৭:২০ পিএম  (ভিজিট : ২৪২)
বিনিয়োগে অস্বচ্ছতা ও অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে এমজিএইচ গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) আনিস আহমেদ গোর্কির বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। বুধবার দুদকের উপ-পরিচালক সৈয়দ নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে ঢাকা সমন্বিত জেলা কার্যালয়ে মামলাটি দায়ের করেন। তার বিরুদ্ধে ১৩৬ কোটি টাকা অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ আনা হয়েছে। দুদক সচিব মো. মাহবুব হোসেন এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, আনিস আহমেদ বিএনপির চেয়ারম্যান তারেক জিয়ার সহযোগী হিসেবে পরিচিত বলে জানা গেছে।

দুদক সচিব বলেন, আনিস আহমেদ নিয়মিত আয়কর দাতা হলেও উল্লিখিত মোট আয়ের মধ্যে ২০২০-২০২১ কর বর্ষের আয়কর নথিতে আয়কর অধ্যাদেশ ১৯৮৪ এর ১৯এএএএএ ধারায় ১৩৬ কোটি ২ লাখ ৭৭ হাজার ৪০০ টাকা বিনিয়োগ হিসাবে প্রদর্শন করেন। কিন্তু বিনিয়োগ হিসাবে প্রদর্শিত অর্থের স্বপক্ষে সন্তোষজনক কোনো রেকর্ডপত্র উপস্থাপন করতে পারেননি। অনুসন্ধানকালে বৈধ উৎস নিয়ে কোনো তথ্য-প্রমাণ না পাওয়ায় মনে হয়েছে তিনি অবৈধ সম্পদ বৈধ করার অপচেষ্টা করেছেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, আনিস আহমেদের বিরুদ্ধে শত শত কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনসহ মানিলন্ডারিং সংক্রান্ত অভিযোগ ওঠে। প্রাথমিকভাবে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তার নামে অর্জিত স্থাবর-অস্থাবর সম্পদের হিসাব প্রদানের জন্য আদেশ জারি করে দুদক। পরবর্তীতে তিনি সম্পদ বিবরণী দাখিল করলে দেখা যায়, আনিস আহমেদ ২০০৮-২০০৯ থেকে ২০২১-২০২২ কর বর্ষে আয়ের বিভিন্ন উৎসের মধ্যে ২০২০-২১ কর বর্ষে ১৩৬ কোটি ২ লাখ ৭৭ হাজার ৪০০ টাকা আয়ের তথ্য প্রদান করেন। অনুসন্ধানকালে দেখা যায়, অসৎ উদ্দেশ্যে ও দুদকের চলমান অনুসন্ধান কার্যক্রমের অভিযোগ থেকে রক্ষা পেতে তিনি এসব অর্থকে বিনিয়োগ হিসাবে প্রদর্শন করেছেন। যা দুদক আইন ২০০৪ এর ২৭(১) ধারায় এবং মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন ২০১২ এর ৪(২) ও ৪(৩) ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেছেন।

দুদক সূত্রে জানা যায়, অবৈধ সম্পদ অর্জন ও অর্থ পাচারের অভিযোগে ২০২০ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি আনিস আহমেদকে জিজ্ঞাসাবাদ করে দুদক। তিনি এমজিএইচ গ্রুপের সিইও ছাড়াও ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেডের একজন পরিচালক। এমজিএইচ গ্রুপের জাহাজে পণ্য পরিবহন, খুচরা বিপণন, এয়ারলাইন্স রিজার্ভেশন, রিয়েল এস্টেট, পোশাক, চা ও রাবার প্ল্যান্টেশন, অটোমোবাইল, ব্যাংকসহ বিভিন্ন খাতে ব্যবসা রয়েছে।

প্রসঙ্গত, অর্থ আইন ২০২০ (সংশোধিত ২০২১) অনুযায়ী আয়কর অধ্যাদেশ ১৯৮৪ এর ১৯এএএএএ ধারায় রিটার্ন অথবা সংশোধিত রিটার্ন দাখিলের তারিখে অথবা তার পূর্বে আয়কর অধ্যাদেশ, ১৯৮৪ এর অধীন কর ফাঁকির অভিযোগে কোনো কার্যধারা বা অন্য কোনো আইনের অধীন আর্থিক বিষয়ে কোনো কার্যধারা চালু হলে এ ধারার বিধান প্রযোজ্য হবে না। কমিশন ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে তার বিরুদ্ধে অনুসন্ধান চালু করার পর ওই আইনে সুবিধা পাওয়ার কোনো সুযোগ নেই।


আরও সংবাদ   বিষয়:  এমজিএইচ গ্রুপ   গোর্কি  




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫ | ই-মেইল : shomoyeralo@gmail.com
close