ই-পেপার শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪
শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪

বিদায় ২০২২ : তবু অনন্ত জাগে
প্রকাশ: শনিবার, ৩১ ডিসেম্বর, ২০২২, ৮:৫০ এএম  (ভিজিট : ১৩৩৫)
সব বিদায়ের সঙ্গেই লুকিয়ে আছে আনন্দ-বেদনার কাব্য। সেটা বর্ষবিদায়ের বেলায়ও। বিদায়ের দ্বারপ্রান্তে ২০২২ সাল। মহাকালে বিলীন হয়ে গেল আরও একটি বছর। ঘড়ির কাঁটা রাত ১২টার ঘর স্পর্শ করতেই সারা বিশ্বের সঙ্গে বাংলাদেশও আতশবাজি আর নীল আলোয় বরণ করবে নতুন বছরকে।

বিদায়ি বছরের পূর্ব মুহূর্তে চলে সালতামামির আয়োজন। হিসাব-নিকাশ, চুলচেরা বিশ্লেষণ চলে মাসজুড়ে। যা কিছু ঘটেছে, তা আমাদের চোখের সামনেই। চোখ বুজলেই তা দেখতে পাই। তবুও স্মরণ করিয়ে দেওয়া, একটু আলোড়িত করা। অনেক প্রাপ্তির মধ্যেও হারানোর বেদনা আমাদের আহত করেছে। এ বছর কবি, লেখক, গবেষক, সাংবাদিক ও বুদ্ধিজীবীসহ আলোকিত কিছু মানুষ বিষাদের অন্ধকারে ফেলে চলে গেছেন চিরদিনের জন্য। ২০২২-এ অনেক ক্ষমতাধর নেতার উত্থান হয়েছে। একই সঙ্গে অনেক বরেণ্য নেতাকেও আমরা হারিয়েছি।

সময়ের অতল গহ্বরে হারিয়ে যাওয়া এসব বিশ্ববরেণ্য ব্যক্তির মধ্যে আছেন- সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রেসিডেন্ট ও আবুধাবির শাসক শেখ খলিফা বিন জায়েদ আল নাহিয়ান, জাপানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে, চীনের সাবেক প্রেসিডেন্ট জিয়াং জেমিন, ব্রিটেনের রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ, সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের শেষ নেতা মিখাইল গর্বাচেভ প্রমুখ। খেলোয়াড়দের মধ্যে শেন ওয়ার্ন ২০২২ সালের ৪ মার্চ থাইল্যান্ডে বেড়াতে গিয়ে মারা যান, গত বৃহস্পতিবার মারা গেছেন ফুটবলের রাজা পেলে।

বছরের এই শেষ দিনটিতে এসে ভালো-মন্দ আর আনন্দ-বেদনার স্মৃতিগুলো আরও একবার রোমন্থন করবেন অনেকেই। একইভাবে জীবনের সব ধরনের নেতিবাচক বিষয়গুলোকে দূরে ঠেলে সুন্দর আগামীর প্রত্যাশায় নতুন করে পথচলার প্রত্যয় ব্যক্ত করবেন প্রায় সবাই। এ ছাড়া দৈনন্দিন কর্মকাণ্ডগুলো মূলত ইংরেজি সালের গণনায় হওয়ায় খ্রিস্টীয় বছর বেশ গুরুত্বপূর্ণ আমাদের জীবনে। সেদিক বিবেচনায় বিদায়ি বছরটা কেমন গেল তার হিসাবও কষবেন কেউ কেউ। ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা আর ভাবনায় নানাভাবে মূল্যায়িত হবে বিদায়ি এই বছরটি। আমাদের ব্যক্তি জীবনের সঙ্গে তাল মিলিয়ে জাতীয় জীবনেও বিদায়ি বছরটি ছিল গুরুত্বপূর্ণ। এ বছরও ছিল করোনার প্রভাব। তাই এটা বলাই যায় যে, বছরটা খুব একটা ভালো কাটেনি। তারপরও রাজনৈতিক, সামাজিক, অর্থনৈতিক, সাংস্কৃতিক, শিক্ষাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ২০২২ বেশ ঘটনাবহুল একটি বছর। 

নানা ক্ষেত্রে অনেক চ্যালেঞ্জ এসেছে, ঘটেছে উত্থান-পতনের ঘটনা। তারপরও এগিয়ে যাচ্ছি আমরা।

পেছনে ফেলে যাচ্ছি যে বছর সেটি অর্থনৈতিক দিক থেকে ছিল দারুণ চ্যালেঞ্জের মুখে। নানা ক্ষেত্রে ঘটেছে উত্থান-পতন। সবার আশা, যাবতীয় বাধা পেরিয়ে ২০২৩ সালে বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে তার লক্ষ্যে।

কেমন কাটল ২০২২? রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক ও সামাজিক ব্যক্তিত্বরা বলছেন, অর্থনীতির স্বাভাবিক প্রবাহ বন্ধ থাকা, মানুষের চলাচল ব্যাহত বা কর্মহীন হয়ে পড়া- যাই হোক না কেন, সামনে দেখাটা জরুরি। তারা বলছেন, যে বছরটি আজ শেষ হচ্ছে তাতে আমাদের কাজের পরিধি সংকুচিত হয়েছে ঠিকই কিন্তু অনেককে বাস্তবতা বুঝতেও শিখিয়েছে। কে ভেবেছিল কেবল আমাদের দেশ নয়, একই সমস্যায় জর্জরিত হয়ে একসঙ্গে পথ খুঁজবে সারা বিশ্ব? এর মধ্য থেকেই জীবনকে খুঁজে বের করতে হবে।

বিদায় বছরে পাওয়া না-পাওয়ার হিসাব চুকিয়ে নতুন স্বপ্ন, নতুন প্রত্যাশা নিয়ে এসেছে ২০২৩। নতুন বছর মানেই নতুন উদ্দীপনা, নতুন প্রেরণা নিয়ে এগিয়ে চলা। পেছনে ফেলে আসা বছরের ভুল, হতাশা, দুঃখ, গ্লানিকে দূরে ঠেলে নতুন উদ্যমে সাহস নিয়ে পথচলা। দেশজুড়ে শীতের মাঝে উত্তাপ নিয়ে এসেছে ইংরেজি নতুন বছর।

সভ্যতার ইতিহাস বলে, অগ্রগতির পথে এগিয়ে যাওয়ার এই স্পৃহা মানুষকে নিয়ে এসেছে এতদূর। তাই নতুন বছরে নতুন স্বপ্ন বুকে নিয়ে এগিয়ে যাবে বিশ্বের অন্যান্য জাতির মতো বাঙালিরাও।

শিক্ষাঙ্গন, রাজনৈতিক, সামাজিক, অর্থনৈতিক, সাংস্কৃতিক নানা ক্ষেত্রে দেশ এগিয়ে যাবে- এমন প্রত্যাশা দেশের সব মানুষের। গত বছর যে আশা-আকাক্সক্ষা নিয়ে পথচলা শুরু হয়েছিল তার অনেকটা হয়তো পূরণ হয়নি। কিন্তু তাতে কী? নতুন উদ্যম নিয়ে এগিয়ে গেলে সাফল্য ধরা দেবেই।

কথায় বলে, ‘যায় দিন ভালো; আসে দিন মন্দ’। যেদিন গেছে; তা হোক সফলতার কিংবা ব্যর্থতার। অতীত থেকে শিক্ষা নিয়ে আগামী দিনগুলো আলোকিত হবে নির্ভুলভাবে। অনেক উত্থান-পতন পেরিয়ে অতীতের খাতায় জমা হচ্ছে ২০২২ সাল। বিগত সময়ের সব দুঃখ, কষ্ট, হতাশা, গ্লানি ভুলে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশও বরণ করে নিচ্ছে ২০২৩ সালকে। বিদায় বছর পদ্মা সেতু, মেট্রোরেলের মতো উদ্বোধন হওয়াসহ নানা কারণে ২০২২ সাল খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বছর। নতুন বছরে ২০২৩ সালে আমাদের চাওয়া কার্যকর গণতন্ত্র, সুশাসন, দুর্নীতি দমন, মানবাধিকার এবং নারী-শিশুর অধিকার- সব ক্ষেত্রে আরও এগিয়ে যাওয়া।

আজকের সূর্যাস্ত খ্রিস্টীয় বছর ২০২২-এর সমাপ্তির চূড়ান্ত বারতা ছড়িয়ে দেবে। আর আগামীকালের ভোর পৃথিবীর বুকে আমন্ত্রণ জানাবে নতুন বছর ২০২৩। অনেক পাওয়া-না পাওয়া, হাসি-কান্না, আনন্দ-বেদনার গল্প নিয়ে স্মৃতি হয়ে যাবে পুরোনো বছর। যার নির্যাস থেকে সঞ্চিত অভিজ্ঞতার আলোকে প্রতিটি মানুষের একটাই প্রত্যাশা- আসছে বছর যেন সুন্দর হয়, সুখ-সমৃদ্ধিতে ভরে ওঠে।

নতুন বছরে অগ্রগতির পথে সব জটিলতা দূর হবে- এটাই সবার প্রত্যাশা।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫ | ই-মেইল : shomoyeralo@gmail.com
close