ই-পেপার বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

পোশাক কারখানায় ডেঙ্গু প্রতিরোধে নির্দেশনা
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২৩, ৪:১৪ এএম  (ভিজিট : ২৪৩)
দেশে ভয়াবহ আকার ধারণ করছে ডেঙ্গু। শহর থেকে গ্রাম পর্যন্ত বিস্তৃতি লাভ করেছে ডেঙ্গু। এ জন্য ডেঙ্গু প্রতিরোধে ব্যবস্থা নিতে কারখানার মালিকদের নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রফতানিকারক সমিতি (বিজিএমইএ)। রোববার বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান স্বাক্ষরিত একটি চিঠিতে এ নির্দেশনা দেওয়া হয়।

বিজিএমইএর সদস্যদের উদ্দেশে চিঠিতে বলা হয়, আপনি হয়তো জানেন যে, বাংলাদেশে ডেঙ্গু সংক্রমণের হার সবচেয়ে বেশি থাকে এপ্রিল থেকে অক্টোবর পর্যন্ত। গত এক দশকের মধ্যে এ বছরের জুলাই মাসে দেশে সর্বোচ্চ ডেঙ্গু সংক্রমণ হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশে চলতি বছর ১৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছে ১ লাখ ৬৪ হাজার ৫৬২ মানুষ। এ সময়ে মারা গেছে ৮০০ জনের বেশি। স্বাভাবিকভাবেই ডেঙ্গু জ্বর নিয়ে মানুষের মধ্যে প্রবল উদ্বেগ তৈরি হয়েছে। শরীরে কোনো লক্ষণ দেখলে আপনি বুঝবেন যে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়েছেন এবং সে ক্ষেত্রে আপনার করণীয় কী হতে পারে তা নিম্নে উল্লেখ করা হলো-

ডেঙ্গুর লক্ষণ : ডেঙ্গু জ্বর হলো একটি মশাবাহিত ভাইরাস রোগ। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে প্রথমবার ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগীর বিশেষ কোনো উপসর্গ বা লক্ষণ দেখা যায় না। শুধু অল্প কিছু ক্ষেত্রেই রোগের প্রভাব গভীর হয়। ডেঙ্গুর লক্ষণ হলো-তীব্র জ্বর, তীব্র মাথায় যন্ত্রণা, হাতে-পায়ে ব্যথা, গাঁটে ব্যথা, চোখের পেছনেও ব্যথা হতে পারে। ঘনঘন বমি/খিদে না পাওয়া, তীব্র পেটে ব্যথা। শরীরের বিভিন্ন জায়গা দিয়ে রক্ত ক্ষরণ, রক্তচাপ কমে যাওয়া, র‌্যাশ, চুলকানি হওয়া।

খাবার স্যালাইন খেতে না পারা, তীব্র অবসাদ/অস্থিরতা। শ্বাসকষ্ট হওয়া, প্রস্রাব কমে যাওয়া। গ্রন্থি ফুলে যাওয়া।

ডেঙ্গু প্রতিরোধে করণীয়-বাড়ির চারপাশে ঝোপঝাড়ে পরিষ্কার পানি জমতে না দেওয়া। অব্যবহৃত পানির পাত্র, গাছের টব, গাড়ির টায়ারে জমে থাকা পানি ফেলে দিন। দিনে-রাতে ঘুমানোর সময় মশারি ব্যবহার করুন। 

প্রয়োজনে মশা নিবারক কেমিক্যাল যেমন-পারমেথিন ব্যবহার করুন, সম্ভব হলে জানালায় নেট লাগান। যথাসম্ভব লম্বা পোশাক পরিধান করুন। আক্রান্ত ব্যক্তিকে সার্বক্ষণিক মশারির ভেতরে রাখুন। জ্বর হলে ডেঙ্গু জ্বরের পরীক্ষা করান এবং অবশ্যই রেজিস্টার্ড চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

চিঠিতে আরও বলা হয়, তৈরি পোশাক শিল্পের লাখ লাখ শ্রমিক-কর্মচারী নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। এই শ্রমিক-কর্মচারীদের সুরক্ষা নিশ্চিত করা আমার/আপনার সবার দায়িত্ব। কারণ এই শ্রমিক-কর্মচারীরা দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের মেরুদণ্ড এবং প্রধান চালিকাশক্তি।


সময়ের আলো/আরএস/




https://www.shomoyeralo.com/ad/1698385080Google-News-Update.jpg

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫ | ই-মেইল : shomoyeralo@gmail.com
close