ই-পেপার মঙ্গলবার ২৮ নভেম্বর ২০২৩
মঙ্গলবার ২৮ নভেম্বর ২০২৩

দশের ভারবাহী ভারত
ক্রীড়া ডেস্ক
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর, ২০২৩, ৩:১৩ এএম  (ভিজিট : ১৬০)
কথায় বলে, শেষ ভালো যার সব ভালো তার। বহুল ব্যবহৃত এই প্রবাদটি যে কত বড় সত্যি সেটি খুব ভালোভাবে অনুধাবন করতে পারছে ভারত। টানা দশ ম্যাচ জিতে ফাইনালে ওঠা রোহিত শর্মারা অজেয় গৌরব নিয়েই ওঠে ফাইনালে। কিন্তু শেষ ভালোর যুদ্ধে পথ খুঁজে পায়নি স্বাগতিকরা। ঘরের মাঠ, সোয়া লক্ষাধিক মানুষের অকুণ্ঠ সমর্থন- কোনো কিছুই কাজে আসেনি। শেষাঙ্কে পা হড়কেছে রোহিতদের। ৪২ বল হাতে রেখে ৬ উইকেটের জয় নিয়ে শিরোপা উৎসব করেছে অস্ট্রেলিয়া। অজিদের হেক্সা মিশনের কোনো জবাব যেন জানা ছিল না ভারতের। ফাইনালে দশের ভারবাহী হয়েই থাকতে হলো রোহিতদের।

আগামী দিনগুলোতে দশের বোঝার ভার নিয়েই চলতে হবে ভারতকে। শিরোপার ঘ্রাণ পাওয়া স্বাগতিকদের চেয়ে চেয়ে দেখতে হলো প্যাট কামিন্সদের উৎসব। আহমেদাবাদের নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামে প্রধানমন্ত্রী মোদির হাত থেকে শিরোপা নেন কামিন্স তথা অজি শিবির। আর অশ্রুসিক্ত চোখে তাকিয়ে তাকিয়ে দেখলেন ভারতীয় ক্রিকেটাররা। দিনের শুরুতে যে গ্যালারিতে ছিল নীল সমুদ্রের ঢেউ, ম্যাচের শেষের দিকে সেই গ্যালারিতে নেমে আসে বধ্যভূমির নিস্তবদ্ধতা।

রেওয়াজ অনুযায়ী ম্যাচ শেষে হাত মেলাতে হয়। চ্যাম্পিয়ন দলের সঙ্গে হাত মেলানো শেষ না হতেই কেঁদে ফেলেন ভারত অধিনায়ক রোহিত। আটকে রাখতে পারেননি চোখের জল। মেঘ থমথমে মুখ আড়াল করতে পারছিলেন না বিরাট কোহলি। চেষ্টা করছিলেন দ্রুত মাঠ ছাড়ার। স্ত্রী আনুশকা তাকে জড়িয়ে ধরে রাখেন অনেকটা সময়। প্লেয়ার অব দ্য সিরিজ সেরার পুরস্কারও শান্ত করতে পারেনি রানমেশিনকে। শিশুর মতো অঝোরে কেঁদেছেন ভারতীয় দলের অন্যতম পেস ব্যাটারি মোহাম্মদ সিরাজ। ভারতীয় পেস আক্রমণের প্রধানতম অস্ত্র যশপ্রীত বুমরা অনেক চেষ্টা করেও সিরাজের কান্না থামাতে পারেননি। ম্যাচ শেষে গ্লাভসে মুখ লুকিয়ে ফেলেন লোকেশ রাহুল। ক্ষোভে-দুঃখে উইকেট ভেঙে ফেলেন ভারতীয় অলরাউন্ডার রবীন্দ্র জাদেজা।

রোববার ফাইনালে হারার পর কোনো অজুহাত দাঁড় করাননি রোহিত। হারার কারণ হিসেবে দায়ী করলেন নিজেদের ব্যাটিং ব্যর্থতাকে। তার ভাষায়, আরও ২০-৩০ রান হলে ভালো হতো। কোহলি ও রাহুল ব্যাটিংয়ে ভালো জুটি গড়তে যাচ্ছিল। তাদের জুটিটা আরও লম্বা হওয়ার প্রয়োজন ছিল। আমরা তখন ২৭০-২৮০ রানের দিকে তাকিয়ে ছিলাম। এরপর উইকেট হারাতে থাকি। আর কোনো বড় জুটি গড়তে পারিনি। আর সেটাই অস্ট্রেলিয়া করেছে। ৩ উইকেট হারানোর পর বড় জুটি গড়তে সমর্থ হয়েছে তারা।

ম্যাচে জয়ের জন্য ২৪১ রানের টার্গেটের সামনে মাত্র ৪৭ রানেই ৩ উইকেট হারায় অস্ট্রেলিয়া। ওই সময় দ্রুত উইকেট নিতে পারলে ফল অন্যরকম হতে পারত বলে মনে করছেন রোহিত। বলেছেন, যখন ২৪০ রান নিয়ে আপনি নামবেন, আপনাকে যত দ্রুত সম্ভব উইকেট নিতে হবে। আমরা সেটা করেছি। কিন্তু কৃতিত্ব দিতে হয় মারনাস লাবুশেন ও ট্রাভিস হেডকে। তারা জুটি গড়ে আমাদের ম্যাচ থেকে পুরোপুরি ছিটকে দিয়েছে। যোগ করেন, আমরা জানতাম রাতে উইকেট আরেকটু ভালো হবে। তবে সেটাকে অজুহাত হিসেবে দেখাতে চাই না। আসলে আমরা ভালো ব্যাটিং করতে পারিনি।

সময়ের আলো/জেডআই




https://www.shomoyeralo.com/ad/1698385080Google-News-Update.jpg

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : shomoyeralo[at]gmail.com