ই-পেপার মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪
মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪

নওগাঁয় বেশি দামে ছাগল কেনায় মারধর, আপোষে বসার পর মারল ইজারাদারকে
প্রকাশ: বুধবার, ১০ জুলাই, ২০২৪, ৫:৪০ পিএম  (ভিজিট : ২৬০)
নওগাঁর বদলগাছীতে এবার ছাগল বেপারিদের বিরুদ্ধে হামলা, ভাঙচুর ও টোল আদায়ের টাকা লুটপাটের অভিযোগ উঠেছে। ছাগল বেশি দামে কেনার কারণে গোলাপ নামের এক ক্রেতাকে মারপিট করে একাধিক বেপারি। বিষয়টি নিয়ে আপোষ মিমাংসায় বসলে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে হাট ইজারাদারসহ অন্যদের মারধর করে টোল আদায়ের টাকা ছিনতাই করে বলে ভুক্তভোগীদের অভিযোগ। এ ঘটনায় হাটের ইজারাদার ফেরদৌস হোসেন বাদী হয়ে গত রোববার কয়েকজনের নাম উল্লেখ করে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। ঘটনাটি ঘটেছে গত শুক্রবার (৫ জুলাই) দিনব্যাপী উপজেলার কোলা ইউনিয়নের কোলাহাটে। বুধবার (১০ জুলাই) মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন থানার অফিসার ইনাচার্জ মাহবুবুর রহমান।

এদিকে, হামলার ঘটনার একটি ভিডিও ফুটেজ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হলে বিষয়টির বিচার দাবি করেন স্থানীয়রা।

স্থানীয় ও মামলা সূত্রে জানা যায়, উপজেলার কোলা ইউনিয়নের কোলাহাটে গত শুক্রবার (৫ জুলাই) বিকেলে পার্শ্ববর্তী জয়পুরহাট জেলার আক্কেলপুর উপজেলার গনিপুর এলাকার গোলাপ নামের এক ক্রেতার সাথে এক হাজার টাকা বেশি দামে ছাগল কেনা নিয়ে বিরোধ বাঁধে ছাগল বেপারির। তর্ক বিতর্কের এক পর্যায়ে ওই ক্রেতাকে মারপিট করেন স্থানীয় ছাগল বেপারি হারুন ও তার ছেলে সিজার। ক্রেতাকে মারধরের ঘটনায় ওইদিনই রাত সাড়ে ৭টার দিকে হাটের অফিস কক্ষে বিষয়টি আপোষ মীমাংসার জন্য দুই পক্ষকে নিয়ে সালিশ বৈঠকে বসেন স্থানীয় মাতব্বরসহ হাট-ইজারাদার। কিন্তু বৈঠক চলাকালে হঠাৎ ছাগল বেপারিরা উত্তেজিত হয়ে বিশৃঙ্খল সৃষ্টি করে। এসময় কোলা গ্রামের আলমগীর আল ফারুক (৪০), আব্দুল কুদ্দুস (৪২), আজহার আলী (৫০), নন্দাহার গ্রামের রিংকু (৩৫), হারুন, সিজার হোসেন (২২), সুমন (৩০), মিঠুন (৪৫), রাসেল হোসেন (৪০), শহিদুল ইসলাম (৫০), রায়হান হোসেন (৩৫), সেতু (২২), ফিরোজ হোসেন (৩৫), কয়াভবানীপুর গ্রামের ভোদন হোসেন (৫০) সহ আরও অজ্ঞাত নামা কয়েকজন দলবদ্ধ হয়ে রড, লাঠি, শাবল ও দেশীয় অস্ত্র দিয়ে হাটের অফিসে অতর্কিত হামলা ও ভাঙচুর চালায়। হামলায় কোলা হাটের ইজারাদার ফেরদৌস হোসেন, আদায়কারী হোসেন আলী ও সাখাওয়াতকে বেধড়ক মারধর করে। এছাড়া হাট থেকে টোল আদায়ের ৭ লক্ষ ৫৫ হাজার ৬২৫ টাকা ছিনতাই করে নিয়ে যায় তারা। সেই সাথে তাদের হামলার কারণে হাটের অফিসের দরজা, চেয়ার সহ প্রায় ৮০ হাজার টাকার ক্ষয়ক্ষতি করে। এমনটাই জানান ভুক্তভোগী ও স্থানীয়রা।

ভুক্তভোগী ছাগল ক্রেতা গোলাপ বলেন, আমি কোলা হাটে গিয়ে একটি ছাগলের দাম ১৬ হাজার টাকা বলেছিলাম। কিন্তু বেপারিরা ওই ছাগলের দাম করেছিল ১৫ হাজার টাকা, সেটা আমি জানতাম না। ছাগলের দাম বেপারির চাইতে বেশি বলেছি এটাই আমার অপরাধ। তার জন্য আমাকে বেপারিরা বেধড়ক মারপিট করেছে। তারপর বদলগাছী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা শেষে বাড়ি ফিরি।

হাট ইজারদার ফেরদৌস হোসেন বলেন, ক্রেতাকে মারপিটের ঘটনায় দুই পক্ষকে নিয়ে বিষয়টি আপোষ মীমাংসার জন্য ওই দিন সন্ধ্যায় বসা হয়। কিন্তু একটি প্রভাবশালী মহলের ইশারায় হঠাৎ আজাহারের নেতৃত্বে নন্দাহারের হারুন, সিজার, রাসেল, সুমন, মুকুল ও কয়েকজন ছাগল বেপারিসহ ২৫-৩০ জন লোক দলবদ্ধ হয়ে হাটের অফিসে অতর্কিত হামলা চালায়। হামলা করে আমাকে এবং হাটের শেয়ারদার রফিকুল ও তার ছেলে রনিসহ বেশ কিছু লোকজনকে মারপিট করে। এবং অফিস কক্ষ ভাঙচুর করে টোল আদায়ের ব্যাগে থাকা সমস্ত টাকা তারা লুট করে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় সুষ্ঠু বিচারের আশায় কয়েকজনকে আসামি করে থানায় মামলা করেছি।

কোলাবাজার বণিক-সমিতির সাধারণ সম্পাদক লিটন বলেন, সেদিন অফিসে হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনাটি শুনেছি। আমাদের কেউ অভিযোগ দিলে বিষয়টি নিরসনের চেষ্টা করবো। আর ভুক্তভোগীরা আইনের আশ্রয় নিলে যারা দোষী তাদের ব্যবস্থা প্রশাসন নিবেন। তবে এ ঘটনায় সাধারণ কোনো ব্যক্তি যেন ঝামেলায় না পড়েন এমনটাই আমি আশা করছি।

জানতে চাইলে কোলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহীনুর ইসলাম স্বপন মুঠোফোনে বলেন, হাটের এই ছাগল বেপারিরা একটা সিন্ডিকেট গড়ে তুলেছে। তাদের ছাড়া কেউ ছাগল কিনতে পারে না। সেদিন অন্যায়ভাবে এক কৃষক ক্রেতাকে তারা মারপিট করেছে। এই বিষয়টি নিয়ে আপোষে বসলে তারা আবারও হামলা ও মারপিট করে। ঘটনার বিষয়ে সুষ্ঠু ব্যবস্থা হওয়া উচিৎ বলেও মনে করেন তিনি।

জানতে চাইলে আব্দুল কুদ্দুস মুঠোফোনে বলেন, আমি এই ঘটনা সম্পর্কে কিছুই জানি না। এবং আমি সেখানে ছিলাম না। কিন্তু আমাকে হুকুমের ২নং আসামি বানানো হয়েছে বলে দাবি করেন তিনি। আমার আরেক ভাতিজাকেও আসামি করা হয়েছে। যদিও সে হাটে ছিল। কিন্তু ঘটনাস্থলে ছিলনা।

এছাড়া মুঠোফোন বন্ধ থাকায় আর কোনো বিবাদীর সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আব্দুল আলিম জানান, কোলা হাটের ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। যার মামলা নং-৮।

থানার অফিসার ইনচার্জ মাহবুবুর রহমান মুঠোফোনে বলেন, এ ব্যাপারে থানায় একটি মামলা হয়েছে। আসামিরা আত্মগোপনে থাকায় কাউকে গ্রেফতার করা যায়নি। তবে অভিযান অব্যাহত আছে।

সময়ের আলো/আরআই


আরও সংবাদ   বিষয়:  ছাগল বেপারিদের কাণ্ড   নওগাঁ   




https://www.shomoyeralo.com/ad/1698385080Google-News-Update.jpg

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫ | ই-মেইল : shomoyeralo@gmail.com
close