ই-পেপার মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪
মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪

মূল্যায়নের প্রশ্নপত্র ফাঁস হয় প্রধান শিক্ষকদের মাধ্যমে
দুজন চিহ্নিত
প্রকাশ: বুধবার, ১০ জুলাই, ২০২৪, ৭:২৭ পিএম  (ভিজিট : ১৯৮)
ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণির ষাণ্মাসিক মূল্যায়নে প্রশ্নপত্র ফাঁস হচ্ছে। এর মধ্যে দুই দিন মূল্যায়ন হয়েছে, কিন্তু দুই দিনই একাধিক শ্রেণির একাধিক বিষয়ের প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা ঘটেছে। একাধিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের মাধ্যমেই প্রশ্নপত্র ফাঁস হচ্ছে। এ ঘটনায় জড়িত দুজন প্রধান শিক্ষককে চিহ্নিতও করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। 

গত ৩ জুলাই শুরু হওয়া এই মূল্যায়ন কার্যক্রমের প্রথম দিনেই প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়। একাধিক অভিভাবক জানান, পরীক্ষার আগের দিন রাতে ও পরীক্ষার দিন সকালে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মূল্যায়নের প্রশ্নপত্র ছড়িয়ে পড়ে। সঙ্গে উত্তর তৈরি করেও ছড়ানো হয়। পরে দেখা যায়, মূল্যায়ন কার্যক্রমের শিক্ষার্থী নির্দেশিকার সঙ্গে ফাঁস হওয়া নির্দেশিকার হুবহু মিল পাওয়া গেছে। এরপর ৬ জুলাই অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় দিনের মূল্যায়নেও একাধিক বিষয়ের প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা ঘটে। 

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর (মাউশি) ও এনসিটিবি সূত্রে জানা গেছে, ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার আমিনাবাদ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের (ইআইআএন বা পরিচিতি নম্বর ১০১৩০২) প্রধান শিক্ষকের মাধ্যমে নৈপুণ্য অ্যাপের মাধ্যমে পাঠানো ষাণ্মাসিক মূল্যায়নের নবম শ্রেণির ‘ডিজিটাল প্রযুক্তি’ বিষয়ের প্রশ্নপত্র ফাঁস করা হয়েছে। অন্যদিকে একই দিনে অনুষ্ঠিত ‘শিল্প ও সংস্কৃতি’ বিষয়ের প্রশ্নপত্র ফাঁস হয় পটুয়াখালী সদর উপজেলার ডোনাভান মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের মাধ্যমে। এই দুই প্রধান শিক্ষককে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে। দুজনই এমপিওভুক্ত শিক্ষক। তিন কর্মদিবসের মধ্যে তাদের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

এনসিটিবি সূত্রে জানা গেছে, এবার মূল্যায়নে শিক্ষার্থী নির্দেশিকা বা প্রশ্নপত্র তৈরি করে তা পরীক্ষার আগের দিন সন্ধ্যায় নৈপুণ্য অ্যাপের (নতুন শিক্ষাক্রমে মূল্যায়নসংক্রান্ত বিভিন্ন তথ্য এই অ্যাপে সংরক্ষণ করা হয়) মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানপ্রধানদের নিজস্ব আইডিতে পাঠানো হচ্ছে। পরে প্রতিষ্ঠান প্রধানেরা নির্ধারিত পাসওয়ার্ড দিয়ে তা ডাউনলোডের পর ফটোকপি করে শিক্ষার্থীদের মধ্যে সরবরাহের ব্যবস্থা করছেন। অন্য কারও তাতে ঢোকার সুযোগ নেই। প্রথম দিন প্রশ্নপত্র ফাঁসের পর নৈপুণ্য অ্যাপের ইউজার আইডির মাধ্যমে এই মূল্যায়ন নির্দেশনা ডাউনলোড ও বিতরণ কার্যক্রম ট্র্যাকিং করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করা হয়। এরপর কার আইডি থেকে তা ছড়িয়ে দেওয়া হয়, এটি চিহ্নিত করা হয়।

সময়ের আলো/জিকে




https://www.shomoyeralo.com/ad/1698385080Google-News-Update.jpg

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫ | ই-মেইল : shomoyeralo@gmail.com
close