ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা বৃহস্পতিবার ৪ জুন ২০২০ ২০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭
ই-পেপার বৃহস্পতিবার ৪ জুন ২০২০

ধামইরহাট-জয়পুরহাট আঞ্চলিক মহাসড়ক খানাখন্দে বেহাল
নওগাঁ প্রতিনিধি
প্রকাশ: বুধবার, ২ অক্টোবর, ২০১৯, ৫:৪৮ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 123

নওগাঁর ধামইরহাট-জয়পুরহাট আঞ্চলিক মহাসড়কটি প্রায় ১১ কিলোমিটার দীর্ঘদিন সংস্কার না হওয়ায় ছোট-বড় অসংখ্য খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে। রাস্তার কার্পেটিং ওঠে গিয়ে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হওয়ার যানবাহন চলাচলের অনুপযোগি হয়ে পড়েছে। আঞ্চলিক এই মহাসড়কে চলাচলকারী যানবাহন ক্ষতিগ্রস্থ ও জনসাধারণকে প্রায় ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে।


জানাগেছে, নওগাঁ-ধামইরহাট-জয়পুরহাট আঞ্চলিক মহাসড়কটির দৈর্ঘ্য প্রায় ৭১ কিলোমিটার। নওগাঁ থেকে ধামইরহাট বাজার পর্যন্ত ৫০ কিলোমিটার বর্তমানে যানবাহন চলাচল করতে কোন অসুবিধা হচ্ছে না। কিন্তু ধামইরহাট থেকে জয়পুরহাট আঞ্চলিক মহাসড়কটি প্রায় ১১ কিলোমিটার সড়ক দীর্ঘদিন সংস্কার না হওয়ায় ছোট-বড় অসংখ্য খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে। উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ আঞ্চলিক এই মহাসড়কটি ধামইরহাট বাজার থেকে শুরু করে হরিতকিডাঙ্গা, শলপি বাজার, নানাইচ মোড় এবং মঙ্গলবাড়ি বাজারের সামনে পর্যন্ত পিচ ও ইটের খোয়া উঠে গিয়ে অসংখ্য ছোট-বড় গর্ত তৈরী হয়েছে। এসব গর্তে সামান্য বৃষ্টিতে পানি জমে ছোটখাটো পুকুরে পরিণত হয়। বিশেষ করে ধামইরহাট বাজারের সোনালী ব্যাংক ভবনের পূর্ব পার্শে রাস্তায় বড় বড় গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। ওই রাস্তায় মাল বোঝাই ট্রাক রাস্তার গর্তে পড়ে গিয়ে দীর্ঘ সময় সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। এতে অসংখ্য যাত্রীদেরকে ভোগান্তিতে পড়তে হয়। দীর্ঘ সময়ে সংস্কার না হওয়ায় রাস্তাটি এখন মরদ ফাঁদে পরিনত হয়েছে। যে কোন সময় বড় ধরনের দূর্ঘটনা ঘটতে পারে। এমন দূর্ঘটনার হাত থেকে রক্ষা পেতে দ্রুত এই গুরুত্বপূর্ণ আঞ্চলিক মহাসড়কটি সংস্কারের দাবি জানিয়েছেন এলাকার সচেতনমহল।

স্থানীয় ধান আড়ৎদার আলহাজ্ব শবনম কাওছার বলেন, ওই রাস্তা চলাচলের অনুপযোগি হয়ে পড়ার তারা ব্যবসায়িকভাবে ক্ষতির সম্মুখিন হচ্ছেন। রাস্তাটি সংস্কার না হওয়ায় পিচ ও খোয়া উঠে গিয়ে খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে। প্রতিনিয়ত ব্যাটারি চালিত চার্জার ও অটোরিকশা উল্টে গিয়ে ছোট খাটো দূর্ঘটনা ঘটছে। হেলে দুলে যানবাহন আসা-যাওয়া করছে। যে কোন সময় বড় ধরনের দূর্ঘটনা ঘটতে পারে।

ব্যবসায়ী কামরুজ্জামান বলেন, রাস্তার পার্শে ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকার ধামইরহাট বাজারের অধিকাংশ পানি রাস্তার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ার এ সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে। অথচ কিছু দিন আগে ওই রাস্তায় সিলকোট করা হলেও কাজের কাজ কিছুই হয়নি। বাস চালক ফুলবর হোসেন বলেন, বড় বড় গর্ত সৃষ্টি হওয়ার ঝঁকি নিয়ে রাস্তায় চলাচল করতে হচ্ছে। বর্তমানে মালবাহী ট্রাকগুলো অধিক পরিমাণে মাল বহন করায় এ অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। এ রাস্তার ৬ চাকা ট্রাক সাড়ে ১৫ টন এবং ১০ চাকা ট্রাক ২২ টন মাল বহনের ধারণ ক্ষমতা রয়েছে। কিন্তু ট্রাকগুলো বাস্তবে অনেক বেশি পরিমাণে মাল বহন করায় রাস্তাগুলো নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

নওগাঁ সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী হামিদুল হক বলেন, ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় বৃষ্টির পানি রাস্তায় জমে যায়। এতে করে রাস্তা ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। ধামইরহাট থেকে মঙ্গলবাড়ী পর্যন্ত রাস্তাটি নতুনভাবে সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া
হয়েছে। ইতোমধ্যে ওই রাস্তার জন্য ২১ কোটি টাকা বরাদ্দ পাওয়ায় টেন্ডার আহবান করা হয়েছে। আশা করছি আগামী ডিসেম্বর-জানুয়ারী মধ্যে রাস্তাটির কাজ শুরু হবে। তার আগে গর্তগুলো ভরাট করে রাস্তাটি চলাচলের উপযোগী করা হবে।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]