ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শনিবার ৪ জুলাই ২০২০ ২০ আষাঢ় ১৪২৭
ই-পেপার শনিবার ৪ জুলাই ২০২০

অতিরিক্ত লাভের আশায় মজুদ
চট্টগ্রামে আবর্জনার ভাগাড়ে নদীতে টনে টনে পচা পেঁয়াজ
চট্টগ্রাম ব্যুরো
প্রকাশ: রোববার, ১৭ নভেম্বর, ২০১৯, ১২:০০ এএম আপডেট: ১৭.১১.২০১৯ ১:০৬ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 219

পেঁয়াজের মূল্য নিয়ে যখন চলছে সারা দেশে তোলপাড়, তখন চট্টগ্রাম মহানগরীর ময়লা আবর্জনার ভাগাড় ও নালা-নদীতে রাতের আঁধারে ফেলে দেওয়া হচ্ছে টনে টনে পেঁয়াজ। অতিরিক্ত লাভের আশায় আড়তে মজুদ করে রাখায় পচে যাওয়া এসব পেঁয়াজ ফেলে দেওয়া হচ্ছে। শনিবার  সকালে সিটি করপোরেশনের আবর্জনাবাহী ট্রাক খাতুনগঞ্জে ফেলে দেওয়া প্রায় ১৫ টন পেঁয়াজ সরিয়ে ফেলেছে বায়েজীদ বোস্তামী থানাধীন আরেফিন নগর ডাম্পিং ইয়ার্ডে। এর আগে শুক্রবার ১০ টনের মতো পেঁয়াজ ফেলা হয় আবর্জনার ভাগাড়ে এবং কর্ণফুলী নদীতে। পচা পেঁয়াজ কম দামে কিনে নিয়ে কর্ণফুলী নদীর তীরে শুকানোর জন্য রোদে বিলিয়ে দেওয়ার ঘটনাও ঘটছে। এসব পেঁয়াজ থেকে বাছাই করে কিছু নিয়ে তা ১০০-১২০ টাকা দরে বিভিন্ন হোটেলে বিক্রি হয়েছে বলেও এলাকার লোকজন জানিয়েছে।

খাতুনগঞ্জের হামিদুল্লাহ মার্কেট কাঁচামাল আড়তদার সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ইদ্রিস জানান, ফেলে দেওয়া পেঁয়াজ মিয়ানমার থেকে আমদানি করা। আনার সময় নৌকার নিচে যেগুলো থাকে তা টেকনাফে খালাস করে ট্রাকে চট্টগ্রাম আনতে আনতেই পচে যায়। ফলে এসব পেঁয়াজ ফেলে দেওয়া ছাড়া আর কোনো উপায় থাকে না। তবে ভিন্ন কথা বলছেন স্থানীয়রা। তাদের দাবি এসব পেঁয়াজ আড়তে মজুদ করে রাখা হয়েছিল অতিরিক্ত মুনাফা ও কৃত্রিম সঙ্কট তৈরির জন্য। পচে যাওয়ায় এখন ফেলে দেওয়া হচ্ছে। বিভিন্ন আড়তে অভিযান চালালে শত শত টন পেঁয়াজ পাওয়া যাবে যা ইচ্ছাকৃতভাবে আটকে রাখা হয়েছে মাত্রাতিরিক্ত মুনাফা লাভের আশায়। কৃত্রিম সঙ্কট তৈরির জন্য যেসব ব্যবসায়ী দায়ী তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান তারা।






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]