ই-পেপার শনিবার ২৫ জানুয়ারি ২০২০ ১০ মাঘ ১৪২৬
ই-পেপার শনিবার ২৫ জানুয়ারি ২০২০

নারীদের বিশেষ সময়ের সমস্যা সমাধানে
লিন্থী আক্তার
প্রকাশ: বুধবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৯, ২:২৫ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 267

নারীদের সাধারণত ২১ থেকে ৩৫ দিন পরপর পিরিয়ড হয়ে থাকে। প্রতিটি পিরিয়ডেই একটি নির্দিষ্ট পরিমাণে রক্তক্ষরণ হয়ে থাকে। কিন্তু অনেকেই অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হওয়াকে গুরুত্ব দেন না। কেন হয় এমন সমস্যা জেনে নিন

লক্ষণ
● মাসে ২-৩ বার মাসিক বা ঋতুস্রাব হতে পারে।
● এক নাগাড়ে অনেকদিন ধরে চলতে পারে।
● শুরু হওয়ার ১-২ দিন পরই শেষ হয়ে যায় এবং কয়েকদিন পর আবার শুরু হয়।
● প্রতি ১-২ ঘণ্টায় স্যানিটারি ন্যাপকিন পরিবর্তন করতে হয়।
● রাতের বেলা স্যানিটারি প্যাড পরিবর্তনের প্রয়োজন পড়ে।
● মাসিকের রক্তের সঙ্গে রক্তের বড় চাকা গেলে।
● ক্লান্ত, অবসাদ অনুভব অথবা শ্বাসকষ্ট হয়।

কারণ
● হরমোনের অসামঞ্জস্যতা বা ভারসাম্যহীনতা।
● গর্ভধারণজনিত অনিয়মিত পিরিয়ড।
● গর্ভনিরোধ বড়ি খাওয়ার ফলে অনিয়মিত পিরিয়ড।
● শারীরিক ওজন বাড়লে বা কমলে অনিয়মিত পিরিয়ড হতে পারে।
● মানসিক চাপের কারণেও হতে পারে।
● জরায়ুর টিউমারের ফলে হতে পারে।
● জরায়ু, ডিম্বাশয় অথবা জরায়ু মুখে ক্যানসার হলে।
● বংশগতভাবে রক্তের রোগের ইতিহাস থাকলে।
● ওষুধের সাইড ইফেক্ট থেকেও হতে পারে।

পরীক্ষা-নিরীক্ষা
রোগের ইতিহাস এবং মাসিক চক্র জানা, রক্ত গ্রুপিং ও অন্যান্য পরীক্ষা করা, আল্ট্রাসাউন্ড স্ক্যান, অ্যান্ডোমেটরিয়াল বায়োপসি, প্যাপ টেস্ট, ডি অ্যান্ড সি।

করণীয়
● নিয়মিত আপনার পিরিয়ড শুরুর দিনটির হিসাব রাখুন। ক্যালেন্ডারে দাগ দিয়ে রাখতে পারেন।
● কতদিন পর্যন্ত থাকে তার হিসাব রাখুন।
● কতগুলো প্যাড পরিবর্তন করতে হয় তার হিসাব রাখুন।
● কোনো শারীরিক দুর্বলতা বা অন্য কোনো সমস্যা হলে তা চিকিৎসকে জানান।
● অতিরিক্ত রক্তপাত হলে পর্যাপ্ত বিশ্রাম করতে হবে।
● এসপিরিন ওষুধ খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]