ই-পেপার শনিবার ২৫ জানুয়ারি ২০২০ ১০ মাঘ ১৪২৬
ই-পেপার শনিবার ২৫ জানুয়ারি ২০২০

সিনহার সাজা হতে পারে যাবজ্জীবন
সময়ের আলো ডেস্ক
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৯, ৯:৩৪ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 259

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা ঋণ জালিয়াতি ও অর্থ আত্মসাতের মামলায় অভিযোগ প্রমাণিত হলে যাবজ্জীবন সাজা হতে পারে সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার। মামলার ধারা এমনটাই ইঙ্গিত করছে। দুদকের মামলায় দণ্ডবিধির ১০৯, ৪০৯ ও ৪২০ ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে সিনহার বিরুদ্ধে। পাশাপাশি অভিযোগ আনা হয়েছে অর্থ পাচার প্রতিরোধ আইনে।

আলোচিত মামলাটির তদন্তে এস কে সিনহার বিরুদ্ধে অভিযোগের সত্যতা পাওয়ার কথা জানিয়ে বুধবার অভিযোগপত্র অনুমোদন দেয় কমিশন। এখন সেটি আদালতে জমা দেয়া হবে। এরপর অভিযোগ গঠন হলে শুরু হবে বিচারকাজ।

সিনহার বিরুদ্ধে বিচার প্রক্রিয়া শুরুর বিষয়ে জানতে চাইলে দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম বলেন, ‘অভিযোগপত্র এখন আদালতে যাবে। আদালত চার্জশীটের ওপর শুনানি করবে। আদালত সন্তুষ্ট হলে এটি আমলে নেবে। তারপর বিচারের কাজ শুরু হবে। যেসব ধারায় তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে, সেসব ধারায় সর্বোচ্চ যাবজ্জীবনের কথা উল্লেখ করা আছে।

নিয়ম অনুযায়ী কোনো আসামী সময়মতো হাজিরা না দিয়ে দেশের বাইরে অবস্থান করলে তাকে পলাতক হিসেবে গণ্য করা হয়। সে অনুযায়ী সিনহাকে পলাতক আখ্যায়িত করে এ আইনজীবী বলেন, আদালত তার নিজস্ব বিধি অনুযায়ী চলবে। পলাতক অবস্থায় কেউ আইনজীবী নিয়োগ দিতে পারে না।’

সিনহার বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলার ধারা বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, ৪০৯ ধারাটি সরকারি কর্মচারী কর্তৃক অথবা ব্যাংকার, ব্যবসায়ী বা প্রতিনিধি কর্তৃক অপরাধমূলক বিশ্বাস ভঙ্গের অপরাধ। এ অপরাধটি প্রমান হলে যাবজ্জীবন সাজা অথবা দশ বছর মেয়াদের সশ্রম বা বিনাশ্রম সাজা হতে পারে। ধারা ৪২০-এ বলা আছে প্রতারণা ও সম্পত্তি অর্পণ করার জন্য অসাধুভাবে প্রবৃত্ত করা। এ ধারায় সর্বোচ্চ সাজার কথা বলা হয়েছে সাত বছরের সশ্রম বা বিনাশ্রম কারাদণ্ড। আর ১০৯ ধারায় অপরাধে সহায়তা করা প্রমাণিত হলে অপরাধ সংঘটনকারীর অনুরুপ সাজা ভোগ করতে হবে।





সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]