ই-পেপার শনিবার ২৫ জানুয়ারি ২০২০ ১০ মাঘ ১৪২৬
ই-পেপার শনিবার ২৫ জানুয়ারি ২০২০

বিয়ের পিঁড়ি থেকে পালিয়েছিলেন স্বর্ণজয়ী ইতি
ক্রীড়া ডেস্ক
প্রকাশ: সোমবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১০:৫২ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 147

নেপালে এসএ গেমসের আসরে স্বর্ণজয়ী ইতি খাতুন। বাংলাদেশকে সোনার পদক উপহার দিয়েছেন আরচ্যারির মেয়েদের রিকার্ভ দলগত ও মিশ্র দলগত ইভেন্টে। এরপরই জানা গেল, ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ার সময় পরিবারের বিরুদ্ধে গিয়ে বিয়ের পিঁড়ি থেকে পালিয়েছিলেন ইতি। জানালেন আরচ্যারি ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক কাজী রাজীব উদ্দিন আহমেদ চপল।

স্বর্ণজয়ী ইতিকে নিয়ে চপলের ভাষ্য ছিল এমন, ‘কি বলব? ইতি একটা বিস্ময় বালিকা। কারণ এত অল্প বয়সে এই পর্যায়ে কেউ খেলে না। ২০১৬ সালে ট্যালেন্ট হান্টের সময় ওকে পেয়েছি। চুয়াডাঙ্গার মেয়ে। ওর বাবা-মা ওকে বিয়ে দিতে চেয়েছিল। বলতে গেলে বিয়ের পিঁড়ি থেকে ওকে তুলে আনা। ওর বিয়ের প্রস্তুতি ছিল। কিন্তু ওর চিন্তা ছিল পড়াশোনা করা। আরচ্যার হওয়ার ইচ্ছা ছিল না হয়ত, কিন্তু ওপরে ওঠার ইচ্ছা ছিল। এখন সে দেশ বরেণ্য আরচ্যারে পরিণত হয়েছে।’

আরচ্যারি ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘পড়াশোনা করবে বলেই সে বিয়ের আসর থেকে ওঠে গিয়েছিল। সে তখন সুযোগ খুঁজছিল কিভাবে পালাবে। বিয়েটা যেন না হয়। আমাদের ট্যালেন্ট হান্ট প্রোগামটা তার জন্য একটা উপলক্ষ্য ছিল। তার বো ধরা ও দাঁড়ানোর স্টাইল দেখলে আমাদের কোচরা বুঝে ফেলেন যে সে ভালো আরচ্যার হবে।’

এদিকে ইতি কিন্তু মুখ খুলেননি তার অতীত নিয়ে। বলেন, ‘রিকার্ভ থেকে তিনটি গোল্ড জয়ের সুযোগ আমরা কখনও আশাও করতে পারিনি। আশা ছিল একটা পদকের, একটা ভালো ফল করার। আমি জানতামই না ও (কারমা) অলিম্পিকে কোয়ালিফাই করেছে। যখন ওর সঙ্গে খেললাম, তখন সেটা মনে হয়নি। আজ আমি কোনো কিছু নিয়েই কথা বলব না। আগামীকাল (আজ) আমার রিকার্ভ এককের ফাইনালের পর কথা বলব।’




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]