ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা  বুধবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ ৮ আশ্বিন ১৪২৭
ই-পেপার  বুধবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০

টঙ্গীতে অপপ্রচারকে কেন্দ্র করে দুপক্ষের সংঘর্ষ
টঙ্গী (গাজীপুর) প্রতিনিধি
প্রকাশ: সোমবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৯, ৩:০৫ পিএম আপডেট: ০৯.১২.২০১৯ ৩:২৮ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 211

টঙ্গীর কলাবাগান বস্তি

টঙ্গীর কলাবাগান বস্তি

টঙ্গীর কলাবাগান বস্তি এলাকায় দু’পক্ষের লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। রোববার গভীর রাতে সাবেক কাউন্সিলর সেলিমের বিরুদ্ধে অপপ্রচার পোস্টার ফেস্টুন প্রচার করাকে কেন্দ্র করে এ ঘটনার সূত্রপাত।

জানা যায়, সোমবার সকালে একদল সন্ত্রাসী বাহিনী দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সেলিমের ছোট ভাই মামুন ও নজরুল ইসলাম এবং মাইদুল ইসলামের ওপর হামলার চেষ্টা চালালে এলাকাবাসি পাল্টা হামলা চালায়। এসময় শরিফের হাত থেকে দেশীয় রামদা পরে যায়। এ নিয়ে এলাকায় বড় ধরনের সংঘর্ষের আশঙ্কায় পুরো বস্তিবাসীদের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে ও টঙ্গী পশ্চিম থানার পুলিশের নিরাপত্তা পুরো এলাকা জুড়ে রয়েছে। এলাকাবাসি দেশীয় অস্ত্রটি পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে।

ঘটনাস্থল পরিদর্শনকালে সেলিমের ছোট ভাই গাজীপুর মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লিগের সিনিয়র সহ সভাপতি মামুন জানান, সুন্দর একটি পরিবেশ কাঠালদিয়া গ্রামে। এই গ্রামে গাজীপুর মহানগর যুবলীগের ১নং আহ্বায়ক সাইফুল ইসলাম কিছু সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে মারামারি পরিবেশ তৈরী করেছিল। আমরা এলাকাবাসিসহ সবাই মিলে সুন্দর একটি পরিবেশ করে দিছি। সাইফুল ইসলাম আমাদের নামে মিথ্যা বানোয়াট একটি পোষ্টার তৈরী করেছে। কলাবাগান বস্তির সাধারণ মানুষ সেইসব পোষ্টার দেখে বললো আমরা এর প্রতিবাদ জানাই। এলাকার শত শত লোকজন আমাদের বাড়ির সামনে জরো হওয়া শুরু করলো। এলাকাবাসি বললো এই মিথ্যা পোষ্টার ও ফেসটুনের যারা তৈরী করেছে তাদের বিরুদ্ধে আমরা পতিবাদ করবো ও ঝাড়ু মিছিল করবো। সাইফুলের বাড়ি শ্রীপুর সে টঙ্গীতে ঘরজামাই হিসেবে থাকে। সে টাকা নিয়ে গাজীপুর মহানগর যুবলীগের কমিটি দিতে পারে না আরও যুবলীগকে ধ্বংশ করে দিয়েছে। সাইফুলের বাবাকে আমি মামুন প্রশ্ন করেছিলাম ফুফা সাইফুল কোথায় থাকে তার জন্মদাতা পিতা জানেনা সে কোথায়া থাকে। গাজীপুর ২-আসনের প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এমপি মহাদয় সাথে কাঠালদিয়া বস্তির বিষয় কথা বলা হলে তিনি বলেন একজন বস্তিবাসি যেন ক্ষতিপূণ ছাড়া যেন না যায়। অনেকে ক্ষতিপূন নিয়ে চলে গেছে। আমরা আরো যানতে পারি যুবলীগের সাইফুল এই সরকারি প্রজেক্ট থেকে প্রচুর টাকা দাবি করছে। ওই প্রজেক্টের কর্মকর্তা আমাদের কাছে বলেছে। সাইফুলকে কোটি টাকা দিতে হবে। সরকারি একটি টাকা আমরা নস্ট করতে দিবো না এলাকাবাসি। সরকারি লোকজন যেন তদন্ত করে বস্তি বাসিকে ক্ষতিপূণ দেয় এলাকাবাসি সেটাই দাবি। ক্ষতি পূরণ ছাড়া আমরা একটি ঘরও উচ্ছেত করতে দিবোনা।

এ বিষয়ে গাজীপুর মহানগর যুবলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক মো. সাইফুল ইসলাম বলেছেন, টঙ্গীর কতিপয় সন্ত্রাস, হত্যা মামলার আসামী ও মাস্তান শ্রেণির লোক জোরপূর্বক বস্তিবাসীকে উচ্ছেদের পায়তারা করছে। বস্তি উচ্ছেদ করতে হলে বস্তিবাসীদের ক্ষতিপূরণ দিয়েই করতে হবে। তারা সমাজের খেটে খাওয়ার গরীর-অসহায় মানুষ। অনৈতিকভাবে আপনাদের কেউ বস্তি থেকে উচ্ছেদ করতে পারবে না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের গরীব-দু:খী মানুষের জন্য রাজনীতি করে।

টঙ্গী পশ্চিম থানার এসআই সুমন বলেন, ঘটনাস্থল থেকে একটি দাও উদ্ধার করেছি। এ বিষয়ে তদন্ত করে তথ্য দেওয়া যাবে।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]