ই-পেপার শনিবার ১৮ জানুয়ারি ২০২০ ৪ মাঘ ১৪২৬
ই-পেপার শনিবার ১৮ জানুয়ারি ২০২০

পাঁচ শতাধিক পরিবহন পারাপারের অপেক্ষায় ল²ীপুর-ভোলা নৌ রুটে ফেরি সঙ্কট
ল²ীপুর প্রতিনিধি
প্রকাশ: শুক্রবার, ১৭ জানুয়ারি, ২০২০, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 2

নাব্য সঙ্কট, ডুবো চর ও পাতানো জালের কারণে ব্যাহত হচ্ছে ল²ীপুর-ভোলা নৌ-রুটের ফেরি চলাচল। নদীর জোয়ার ভাটার ওপর নির্ভর করেই এখন এই নৌ-রুটে চলাচল করছে ফেরি। তবুও পারাপারের সময় মেঘনা নদীর ডুবোচরে আটকা পড়তে হয়। এতে নষ্ট হচ্ছে কর্মঘণ্টা। ফলে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন এই নৌ-রুটে চলাচলকারীরা। এদিকে ফেরি কৃষাণি ও ফেরি কলমিলতা বিকল হওয়ার কারণে ফেরি চলাচলে বিঘœ ঘটায় গত পাঁচ দিন ধরে ল²ীপুরের মজু চৌধুরী হাট ফেরি ঘাটে আটকা পড়েছে যাত্রীবাহী বাস, লাশবাহী অ্যাম্বুলেন্স ও পণ্যবাহী ট্রাকসহ প্রায় পাঁচ শতাধিক যানবাহন। এতে চরম বিপাকে পড়েছে এ পথে যাতায়াতকারী যাত্রী ও যানবাহনের শ্রমিকরা।
ল²ীপুর হয়ে ঢাকা-চট্টগ্রামের সঙ্গে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের যাতায়াতের সুবিধার্থে ল²ীপুরের মজু চৌধুরী হাট ফেরি ঘাট সার্ভিস ২০০৮ সালে চালু করে সরকার। এরপর থেকেই ল²ীপুর-ভোলা এই নৌ-রুট দিয়ে যাতায়াত করছে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষ। বর্তমানে এই নৌ-রুটে কনকচাঁপা, কলমিলতা, কুসুমকলি ও কিষাণি নামের চারটি ফেরি চলাচল করছে। কিন্তু গত পাঁচ দিন ধরে কৃষাণি ও কলমিলতা নামের দুইটি ফেরি বিকল হওয়ায় চরম দুর্ভোগে পড়েছে এরুট ব্যবহারকারীরা। এ ছাড়াও মজু চৌধুীর হাট-ঘাটের প্রায় এক কিলোমিটার অদুরে মেঘনা নদীর সংযোগ স্থল রহমতখালী চ্যানেল, বুড়ির খাল ও মেঘনার নদীর মতিহাট পয়েন্টে নাব্য সঙ্কট , ডুবোচর ও পাতানো জালের কারণে প্রতিনিয়তই এ নৌ-রুটে ফেরি চলাচলে বিঘœ ঘটছে। এতে ল²ীপুর-ভোলা নৌ-রুটে ফেরি চলাচল করছে জোয়ার-ভাটার ওপর নির্ভর করে। এতে করে সময় নষ্ট হওয়ায় পাশাপশি প্রতিদিন ফেরি ডুবোচরে আটকা পড়ে চরম দুর্ভোগে পড়তে হয় এই নৌ-রুটে চলাকারী যাত্রীদের।
ঢাকা ও চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা কয়েকজন ট্রাকের চালক জানান, গত পাঁচ দিন ধরে দুইটি ফেরি বিকল থাকায় সমস্যা তীব্র আকার ধারণ করেছে। তা ছাড়া ডুবোচরের কারণে ফেরি পারাপারে এখন সময় লাগে আট থেকে দশ ঘণ্টা। এতে করে ফেরি না পেয়ে পারাপারের জন্য দিনের পর দিন তাদের আটকা পড়ে থাকতে হয় মজু চৌধুরী হাট ঘাটে। এতে নষ্ট হচ্ছে ট্রাকে থাকা কাঁচামাল ও বিভিন্ন ধরনের পণ্য সামগ্রী। ঘাটে আটকা পড়ে থাকায় টাকার অভাবে না খেয়েও থাকতে হয় বলে জানান যানবাহন শ্রমিকরা।
ফেরি কৃষাণি ইন্টার মাস্টার মশাহেদুল ইসলাম ও কলমিলতার ইঞ্জিন অফিসার শামছুদ্দিন জানালেন, মেঘনা নদীর ল²ীপুর অংশের তিনটি পয়েন্টে ডুবোচর ও নদীর নব্য সঙ্কটের কারণে চলাচলে সমস্য পড়তে হয় তাদের। এতে করে সময়মতো ফেরি চালানোসহ ডুবোচরের কারণে ঘণ্টার পর ঘণ্টা নদীতে আটকা পড়ে থাকতে হয় তাদের।
এদিকে বিআইডবিøউটিসি ল²ীপুর মজু চৌধুরীর হাট ফেরি ঘাটের সহকারী প্রকৌশলী আব্দুল মালেক জানালেন, নদীর নাব্য সঙ্কট, পাতানো জাল ও ডুবোচরের কারণে ফেরি চলাচলে বিঘœ ঘটছে। তবে কৃষাণি ও কলমিলতা নামের দুইটি ফেরি বিকল হওয়ার কারণে পারাপারে কিছুটা বিঘœ সৃষ্টি হয়েছে। দ্রæত এগুলো মেরামতের কাজ সম্পন্ন হবে হবে বলে জানান তিনি। ফেরি সঙ্কট  সমাধানসহ এ নৌ-রুটে নির্বিঘেœ ফেরি চলাচল করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ দ্রæত প্রদক্ষেপ নিবেন, এমনটাই প্রত্যাশা এ নৌ-রুট ব্যবহারকারীদের।






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]