ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা বৃহস্পতিবার ১ অক্টোবর ২০২০ ১৫ আশ্বিন ১৪২৭
ই-পেপার বৃহস্পতিবার ১ অক্টোবর ২০২০

সময়ের আলো সাক্ষাৎকার
ঘরে ঘরে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিতে চাই
মো. সিদ্দিকুর রহমান চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ নলছিটি, ঝালকাঠি
মো. আতিকুর রহমান ঝালকাঠি
প্রকাশ: শনিবার, ২৫ জানুয়ারি, ২০২০, ১২:০০ এএম আপডেট: ২৪.০১.২০২০ ১১:০৪ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 383

নলছিটির ঘরে ঘরে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিতে এবং শিক্ষার হার বৃদ্ধিতে জোর দিয়েছি মন্তব্য করে উপজেলা চেয়ারম্যান মো. সিদ্দিকুর রহমান দৈনিক সময়ের আলোকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, এ উপজেলাকে একটা মডেল উপজেলায় রূপান্তর করার লক্ষ্যে সমন্বিত উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। বর্তমান সরকারের ডিজিটাল উন্নয়নের ছোঁয়া এ উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে পৌঁছে দিতে আমার উপজেলা পরিষদ নিরলসভাবে কাজ করছে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সমন্বয়ে উন্নয়ন কাজ পরিচালনা করে শিক্ষা ও উন্নয়নে এ উপজেলাকে একটা মডেল উপজেলা হিসেবে গড়ে তুলতে সংকল্পবদ্ধ।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রতিটি গ্রামকে শহরে রূপান্তরিত করার বিষয়ে অঙ্গীকারাবদ্ধ। আমরা সে লক্ষ্যেই কাজ করে যাচ্ছি। ইতোমধ্যে এ লক্ষ্য বাস্তবায়নে উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলের রাস্তা-ঘাট, ব্রিজ ও কালভার্ট নির্মাণসহ প্রতিটি স্থানে উন্নয়নের ছোঁয়া লাগাতে স্থানীয় সংসদ সদস্য ও সাবেক শিল্প ও খাদ্য মন্ত্রী আমির হোসেন আমুর নির্দেশনায় সবার সঙ্গে সমন্বয় করে কাজ করছি। ইতোমধ্যে এ অঞ্চলে প্রায় শতভাগ বিদ্যুতায়নের কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে।

সিদ্দিকুর রহমান আরও বলেন এ উপজেলার তৃণমূল পর্যায়ে উন্নয়নমূলক কাজ করার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নৌকা প্রতীকে আমাকে মনোনয়ন দেওয়ায় কোনো প্রতিদ্ব›দ্বী না থাকায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছি। এ জন্য আমি সবার কাছে কৃতজ্ঞ। উন্নয়ন কর্মকাণ্ডকে ত্বরান্বিত করার লক্ষ্যে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান-মেম্বারদের সমন্বয়ে ও তাদের মতামতের ভিত্তিতে এলাকাভিত্তিক উন্নয়ন কর্মকাণ্ড পরিচালনা করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি ‘গ্রাম হবে শহর’ ভিশন বাস্তবায়নে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।

প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার তদারকি জোরদার করার কারণ হিসেবে তিনি বলেন, শিক্ষা জীবনের মূল ভিত্তি হলো প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষা। এখানের শিক্ষা যত দৃঢ় ও আদর্শ এবং নৈতিকতা সংবলিত হয়। বাকি জীবনেও তার প্রতিচ্ছবি কাজ করে। শিশু শিক্ষার্থীদের সঠিকভাবে সুশিক্ষায় শিক্ষিত করে গড়ে তুলতে পারলে একদিকে প্রাথমিক শিক্ষা যেমন মজবুত হয় অপরদিকে শিক্ষার হার বেড়ে বেকারত্ব কমার পাশাপাশি আদর্শ সমাজ গঠন করা সম্ভব হয়।

দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে কী কী উন্নয়নমূলক কাজ করেছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ১০ মাস ধরে দায়িত্ব পালন করছি। ইতোমধ্যে মডেল মসজিদ নির্মাণ এবং উপজেলার মোল্লারহাট ইউনিয়নের হদুয়া দরবার শরীফের সামনে থেকে দপদপিয়া ব্রিজ পর্যন্ত ২০ কিলোমিটার রাস্তার সংস্কার কাজ শুরু হয়েছে। উপজেলা পরিষদ ভবনটি পুরাতন ও ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় উপজেলা পরিষদের জন্য ভবন পাশ হয়েছে। শিগগিরই নির্মাণ কাজ শুরু হবে।

এ ছাড়াও বিভিন্ন উন্নয়নমূলক প্রকল্প পরিকল্পনা অনুযায়ী গ্রহণ করা হয়েছে। শিক্ষা খাতে ইতোমধ্যে সরকার অনেক বরাদ্দ দিয়েছে। যার সুফল আগামী বছর থেকে পেতে শুরু করবে উপজেলাবাসী। এ ছাড়া উপজেলাবাসীর সুপেয় পানি ও স্যানিটেশন সমস্যা দূর করতে কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। তা ছাড়া উপজেলায় মসজিদ-মাদ্রাসা, রাস্তা-ঘাট সংস্কার ও নির্মাণ কাজ আমরা সম্পন্ন করতে চাই।

উপজেলার বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাÐের কথা তুলে ধরতে গিয়ে তিনি বলেন, উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের মাধ্যমে বিধবা ভাতা, মাতৃত্ব ও প্রতিবন্ধী ভাতাসহ বিভিন্ন ভাতা প্রতিটি ইউনিয়নে পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি। এ ছাড়া বেকার যুবক ও দুস্থ নারীদের সেলাই প্রশিক্ষণের মাধ্যমে স্বাবলম্বী করারও পরিকল্পনা রয়েছে। দুস্থ ও অসহায় নারীর মাঝে সেলাই মেশিন এবং অসহায়দের মাঝে ঢেউটিন বিতরণ করা হয়েছে।

মাদক ও যৌন হয়রানি রোধের বিষয়ে তিনি বলেন, রাজনৈতিক নেতৃত্ব যদি সঠিকভাবে পরিচালিত হয় তাহলে আমাদের যুবসমাজ মাদকসহ বিভিন্ন অপকর্মের দিকে ঝুঁকবে না। এ ক্ষেত্রে অভিভাবকদের সচেতনতা বাড়লে, তাদের সন্তানরা পড়াশোনার দিকে মনোযোগী হবে।

উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বলেন, মাদক ও যৌন হয়রানি রোধে বিভিন্ন সভা-সেমিনার আয়োজন করা হয়। পাশাপাশি গ্রামের মসজিদগুলোতে জনসচেতনতা বাড়াতে উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করা হয় নিয়মিতভাবে। ব্যক্তিগত জীবন সম্পর্কে বলতে গিয়ে স্মৃতিচারণ করে তিনি জানান, ১৯৫২ সালের ১৩ জুন নলছিটি উপজেলার নাচনমহল গ্রামের সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন তিনি।

এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতকে ভর্তি হন। ছোটবেলা থেকে আওয়ামী লীগের আদর্শের নৌকার মাঝি ছিলেন তিনি। ১৯৬৬ সালে স্কুলজীবন থেকেই ছাত্রলীগের ছাত্ররাজনীতির সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন তিনি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা অবস্থায় জিয়াউর রহমান হলে ছাত্রলীগের সহসভাপতির দায়িত্ব পালনের পরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সহসভাপতির দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

তখন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ছিলেন বর্তমান সেতু মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ছাত্রত্ব অবস্থায়ই ১৯৭০ সালের জাতীয় নির্বাচন ও ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরে বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে শোক মিছিলের অগ্রভাগে ছিলেন সিদ্দিকুর রহমান।

এরপর যখন আওয়ামী লীগের দুর্দিন তখন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের প্রতিনিধি হিসেবে আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি তাজউদ্দিনকে নিয়ে দক্ষিণবঙ্গের আওয়ামী লীগকে সুসংগঠিত করতে কাজ করেন বলে জানান তিনি। ঝালকাঠি জেলায় আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়ে পর্যায়ক্রমে দফতর সম্পাদক, যুগ্ম সম্পাদকের দায়িত্ব পালন শেষে বর্তমানে দীর্ঘদিন ধরে সহসভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন তিনি। একই সঙ্গে তিনি আওয়ামী লীগের জাতীয় পরিষদ সদস্য হিসেবে অধিষ্ঠিত আছেন।







সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]