ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা  বুধবার ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ৬ ফাল্গুন ১৪২৬
ই-পেপার  বুধবার ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০

এসএসসির পরীক্ষা শুরু ৩ ফেব্রুয়ারি
পরীক্ষার্থী ২০ লাখ ৪৭ হাজার ৭৭৯ জন
শিক্ষার আলো প্রতিবেদন
প্রকাশ: শনিবার, ২৫ জানুয়ারি, ২০২০, ১২:০০ এএম আপডেট: ২৪.০১.২০২০ ১০:৪৪ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 12

আগামী ৩ ফেব্রæয়ারি থেকে মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হবে। ৯টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ড, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা বোর্ড মিলিয়ে এবার মোট ২০ লাখ ৪৭ হাজার ৭৭৯ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেবে। গত বছরের তুলনায় এ বছর মোট পরীক্ষার্থী ৮৭ হাজার ৫৫৪ জন কমেছে। সারা দেশে ৩ হাজার ৫১২টি কেন্দ্রে এই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।
আগের মতো এ বছরও পরীক্ষা শুরু হওয়ার কমপক্ষে ৩০ মিনিট আগে পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা কেন্দ্রে ঢুকতে হবে। পরীক্ষা কেন্দ্রের আশপাশে জারি থাকবে ১৪৪ ধারা। পরীক্ষা কেন্দ্রে কেউ মোবাইল ফোন নিতে পারবে না। শুধু কেন্দ্র সচিব সাধারণ মানের একটি মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারবেন। পরীক্ষা শুরুর ২৫ মিনিট আগে খুদে বার্তা পাঠিয়ে কোন সেটের প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা নেওয়া হবে, সেটি কেন্দ্র সচিবকে জানানো হবে। বাংলা দ্বিতীয় পত্র এবং ইংরেজি প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র ছাড়া সব বিষয়ের পরীক্ষাই হবে সৃজনশীল প্রশ্নপত্রে।
এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা শুরুর সাত দিন আগ থেকে শেষ পর্যন্ত এক মাস দেশের সব কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।
ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ভোটের তারিখ পেছানোয় এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা দুদিন পিছিয়ে দিয়ে নতুন সময়সূচি প্রকাশ করেছে সরকার। আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটি রোববার ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের ওয়েবসাইটে সংশোধিত পরীক্ষা সূচি প্রকাশ করেছে।
নতুন পরীক্ষা সূচি অনুযায়ী, ৩ থেকে ২৭ ফেব্রæয়ারি পর্যন্ত এসএসসির তত্ত¡ীয় বিষয়ের পরীক্ষা হবে। আর ২৯ ফেব্রæয়ারি থেকে ৫ মার্চের মধ্যে ব্যবহারিক পরীক্ষা নিতে হবে। সূচি পরিবর্তনে সব পরীক্ষায়ই পিছিয়েছে, ইংরেজি ও গণিত পরীক্ষার আগে বিরতিও থাকছে। আগের সূচিতে ইংরেজি প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র এবং গণিত পরীক্ষার আগে একদিন করে বিরতি ছিল। নতুন সূচিতে অন্য দুটিতে একদিন হলেও ইংরেজি দ্বিতীয় পত্রের আগে দুদিন বিরতি থাকছে।
সারা দেশে একযোগে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরুর দুদিন আগে ৩০ জানুয়ারি ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ভোটগ্রহণের দিন ঠিক করে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ওইদিন সরস্বতী পূজার জন্য ভোট পেছানোর দাবি ওঠে। তখন ইসির পক্ষ থেকে যুক্তি দেখানো হয়েছিল, ৩০ জানুয়ারিই ভোটগ্রহণের জন্য উপযুক্ত দিন। কারণ তার পরের দিন ৩১ জানুয়ারি শুক্রবার বলে সেদিন ভোটগ্রহণের নজির নেই। এরপর ১ ফেব্রæয়ারি এসএসসি পরীক্ষা শুরু হবে বলে প্রায় এক মাস আর ভোট করা যাবে না। আকস্মিকভাবে জরুরি বৈঠকে বসে ইসি। তার মধ্যেই শিক্ষা মন্ত্রণালয় পরীক্ষা পেছানোর সিদ্ধান্ত দেওয়ার পর ভোট পেছানো হয়।





সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]