ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা সোমবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০ ৫ আশ্বিন ১৪২৭
ই-পেপার সোমবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০

প্রচার উন্মাদনায় নগরী
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: রোববার, ২৬ জানুয়ারি, ২০২০, ১২:০০ এএম আপডেট: ২৬.০১.২০২০ ১২:২১ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 97

সিটি নির্বাচনের দিন যত এগিয়ে আসছে, নগরবাসীর মনে বাড়ছে ততই নির্বাচনি উন্মাদনা। ভোট চেয়ে প্রার্থীরা ছুটে বেড়াচ্ছেন রাজধানীর এ-মাথা থেকে ও-মাথায়। আশ^াস দিচ্ছেন নির্বাচিত হলে দূর করবেন নগরীর সব সমস্যা। মাদকমুক্ত সমাজ গড়া থেকে শুরু করে মশামুক্ত নগর গড়ারও প্রতিশ্রুতি দিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন ভোটারদের আস্থা তৈরিতে।
শনিবার প্রচারণার ১৬তম দিনে আগে গণসংযোগে নেমে ঢাকা দক্ষিণের আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়রপ্রার্থী ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেছেন, বিএনপি অভিযোগের রাজনীতি নিয়ে ব্যস্ত আর আমরা ব্যস্ত উন্নয়নের রাজনীতিতে। রাজধানীর বাবুবাজার ব্রিজের নিচে নির্বাচনি গণসংযোগকালে বিএনপি প্রার্থীদের ওপর হামলা করা হচ্ছেÑ এমন প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, আমরা গণসংযোগ করছি। ঢাকাবাসীর স্বতঃস্ফূর্ত সাড়া পাচ্ছি। বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মীসহ আমরা মানুষের দ্বারে দ্বারে, ঘরে ঘরে যাচ্ছি। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে লক্ষ করছি, আমাদের প্রতিপক্ষ শুধু অভিযোগ নিয়ে ব্যস্ত। তাদের ঢাকাবাসীর জন্য উন্নয়নের কোনো রূপরেখা নেই। ঢাকাবাসীর মানোন্নয়নে কোনো কার্যক্রম নেই। তারা শুধু জাতীয় রাজনীতি নিয়ে ব্যস্ত। আমরা ঢাকাবাসীর উন্নয়ন নিয়ে ব্যস্ত।
তাপস বলেন, বংশাল, কোতোয়ালিবাসীর জন্য ৩০ বছর মহাপরিকল্পনার আওতায় উন্নত ঢাকা গড়ে তুলব। এ এলাকায় যে ঐতিহ্য রয়েছে সেটি সংরক্ষণ করব এবং বিশ^বাসীর কাছে তুলে ধরব। আমাদের ইশতেহারের কাজ শুরু হয়ে গেছে। আমরা যে উন্নয়নের রূপরেখা দিয়েছি, ঢাকাবাসী সেটা সাদরে গ্রহণ করেছে। আমাদের নির্বাচনি ইশতেহার ২৮ বা ২৯ তারিখে ঢাকাবাসীর কাছে প্রকাশ করতে পারব। এ সময় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা ও স্থানীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। এদিন পুরান ঢাকার সদরঘাট, তাঁতীবাজার, শাঁখারীবাজার ও বংশাল এলাকায় নির্বাচনি গণসংযোগ করেন তাপস।
অন্যদিকে আসন্ন সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ঢাকা দক্ষিণে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়রপ্রার্থী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাইয়ের ছেলে ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপসকে পারিবারিক প্রভাব না খাটানোর জন্য আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপি মনোনীত মেয়রপ্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন। ইশরাক হোসেন বলেন, আমি যতটুকু জানি ওনি (তাপস) একজন সজ্জন ব্যক্তি। আওয়ামী লীগের কর্মী-সমর্থক এবং আমার প্রতিপক্ষ প্রার্থীর প্রতি আহ্বান থাকবে, নির্বাচনে কোনো ধরনের ইনফ্লুয়েন্স করবেন না। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী এবং নির্বাচন পরিচালনার দায়িত্বে যারা থাকবেন তারা নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালন করবেন। এরপর নির্বাচনের ফল যা হবে, আমরা তা মেনে নেব। দেশটা কারও পারিবারিক সম্পত্তি না। নির্বাচনে পারিবারিক প্রভাব খাটাতে আসবেন না। প্রভাব খাটিয়ে ভোট কারচুপি করলে জনগণ কোনোভাবেই সেটা মেনে নেবে না।
ইশরাক বলেন, আমার প্রতিপক্ষ কোন পরিবারের সেটা আমি বড় করে দেখতে চাই না। কারণ ক্ষমতাসীন দল থেকে যারাই মনোনয়ন পাবেন, তারাই বাড়তি সুযোগ-সুবিধা ভোগ করবেন। আর এটাই স্বাভাবিক। কারণ তারা তো রাষ্ট্রযন্ত্র দলীয়করণ করেছে। আর কে কোন পরিবারের সেটা আমার দেখার বিষয় না। এই দেশটার মালিক হচ্ছে জনগণ। আমি শেষ পর্যন্ত মাঠে থাকব। জনগণকে সঙ্গে নিয়ে এই স্বৈরাচারকে বিদায় করব।
এদিন গণসংযোগে নেমে ইশতেহারে ‘চমক’ দেওয়ার ঘোষণা দেন উত্তরের আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়রপ্রার্থী আতিকুল ইসলাম। রাজধানীর নদ্দা এলাকার কালাচাঁদপুর মোড়ে (১৮নং ওয়ার্ড) আয়োজিত নির্বাচনি সমাবেশে আতিকুল বলেন, আগামী রোববার আমার নির্বাচনি ইশতেহার দেব। সেখানে চমক থাকবে। আর সচল, সুস্থ ও মানবিক ঢাকা গড়ার অঙ্গীকার থাকবে। আতিকুল ইসলাম বলেন, আর বেশি দিন বাকি নেই। আজ বাদে ছয় দিন আছে। এই ছয় দিনে সব ভোটারের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোট চাইতে হবে। এরপর সাইকেল চালিয়ে কালাচাঁদপুর বাজারে প্রচারণা চালান আতিকুল ইসলাম।
তবে আচরণবিধি লঙ্ঘন হবে জেনে কালাচাঁদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কালাচাঁদপুর হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে ১৮নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ আয়োজিত সমাবেশে যোগ দেননি আতিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, আমি চাই না কোনো আচরণবিধি লঙ্ঘন হোক। এজন্য স্কুল মাঠের সমাবেশে যোগ দেইনি। এ কাজে কাউকে উৎসাহ দেব না। আমি চাই না নির্বাচনি প্রচারণায় কোনো শিশু বা ছাত্রছাত্রী থাকুক।
এই দিন আতিকুলের সঙ্গে উপস্থিত ছিলেনÑ ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক এসএ মান্নান ও যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খানসহ অন্য নেতাকর্মীরা। এর আগে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে গুলশান স্বাস্থ্য ক্লাব পার্কে গণসংযোগ করেন আতিকুল ইসলাম।
একই সিটির বিএনপি মনোনীত প্রার্থী তাবিথ আউয়াল এদিন গণসংযোগে বলেন, সময় কাছে চলে এসেছে, আমাদের যে প্রত্যাশা ছিল তা জোরেশোরে সরকারকে জানিয়ে দিতে হবে। ১ ফেব্রুয়ারি ভোটের অধিকার প্রয়োগের মাধ্যমে দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করব। জনগণ আমাদের পক্ষে আছে। জনগণের দোয়া ও শক্তি নিয়ে আগামী ১ ফেব্রুয়ারি আমরা ভোটের লড়াইয়ে মাঠে নামব। মিরপুর ১৪ নম্বর মোড়ে পথসভায় মধ্য দিয়ে দিনের কর্মসূচি শেষে সমাপনী বক্তব্যে এসব কথা বলেন তাবিথ।
এ সময় ২০-দলীয় জোটের শরিক এলডিপির (একাংশ) সাধারণ সম্পাদক শাহাদাত হোসেন সেলিম ধানের শীষের পক্ষে কাজ করার জন্য জোটের সবাইকে আহ্বান জানান।











সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]