ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা মঙ্গলবার ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১১ ফাল্গুন ১৪২৬
ই-পেপার মঙ্গলবার ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০

নিয়ম-নীতির মধ্যে আনতে হবে  অ্যাপভিত্তিক সেবা প্রতিষ্ঠানগুলো
সৈয়দ ফারুক হোসেন
প্রকাশ: শনিবার, ১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 19

ঢাকার ভয়াবহ যানজট আর সহজলভ্যতাÑ এই দুটো কারণে রাইড শেয়ারিং অ্যাপের মোটরসাইকেল আজকাল খুবই জনপ্রিয় হয়েছে। বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন
কর্তৃপক্ষের হিসাবে, মোটরসাইকেলের নিবন্ধন আগের চেয়ে অনেক বেড়েছে। ২০১৭ সালে সারা দেশে ৩ লাখ ২৫ হাজারের মতো নতুন মোটরসাইকেল নিবন্ধন হয়েছে। পরের বছর এর সংখ্যা ছিল ৭০ হাজারের বেশি। এর একটি বিশাল সংখ্যা শুধু ঢাকাতেই। আবার একই সঙ্গে অভিযোগের তীরও মোটরসাইকেল চালকদের দিকেই বেশি। যারা একটু আয়েশি, গাড়ির মালিক নন অথচ গাডিতে চড়ার স্বাদ পেতে চান, গাড়ি কেনার ঝামেলায় যেতে চান না, অথবা পরিবারের সবাইকে নিয়ে একসঙ্গে ঘুরতে যেতে চান, এমন অনেক ক্ষেত্রেই শুধু স্মার্টফোনে কয়েকটি ক্লিক দিলেই মিনিট কয়েক পরই দোরগোড়ায় এসে হাজির হচ্ছে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত গাড়ি। এই সুবিধার কারণেই এতটা জনপ্রিয় হচ্ছে রাইড শেয়ারিং অ্যাপের গাড়ি সেবাও। মোটরসাইকেলের সেবার মতো এতটা না হলেও তাদের নিয়েও নানা অভিযোগ রয়েছে। রাইড শেয়ারিং অ্যাপগুলোর কর্তৃপক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, তাদের কাছে যে অভিযোগগুলো আসে তার মধ্যে অন্যতম হলো চালকের ব্যবহার নিয়ে আপত্তি, পছন্দ মতো জায়গায় যাত্রীকে তুলতে না চাওয়া অথবা ভাড়া নিয়ে বিবাদ। কিন্তু সড়ক নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগই সবচেয়ে বেশি। দ্রæত গন্তব্যস্থলে পৌঁছানোর জন্য অনেকেই এখন অ্যাপভিত্তিক রাইড শেয়ারিংয়ের মোটরবাইকে চলাচল করেন। সাধারণ যাত্রীদের পাশাপাশি রাইড শেয়ারিংয়ের মোটরবাইকে অনেক নারীকেও চলাচল করতে দেখা যায়। কিন্তু উবার-পাঠাওয়ের মোটরবাইক থেকে পড়ে প্রায়শই দুর্ঘটনা ঘটছে, বাড়ছে হতাহতের ঘটনা। ফলে উবার-পাঠাওয়ের মোটরবাইক যাত্রীদের জন্য কতটা নিরাপদÑ তা নিয়ে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।
রাজধানীর গণপরিবহনে প্রতিদিন লাখ লাখ কর্মজীবী মানুষকে ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত করতে হয়। লোকাল বাস, সিএনজি অটোরিকশা, ট্যাক্সিক্যাবসহ গণপরিবহনের প্রতিটি সেক্টরেই প্রতিনিয়ত স্বেচ্ছাচারিতা ও নানা ধরনের ভোগান্তির সম্মুখীন হচ্ছে নগরবাসী। তথ্যপ্রযুক্তির প্রসারের হাত ধরে সারা বিশে^ই যোগাযোগ ব্যবস্থায় অভাবনীয় পরিবর্তন ঘটে চলেছে। অ্যাপভিত্তিক ব্যবসা-বাণিজ্য এবং রাইড শেয়ারিং তথ্যপ্রযুক্তির বিস্তৃতির সেই ধারাবাহিকতারই অংশ। রাজধানীসহ দেশের কয়েকটি বিভাগীয় শহরে ইতোমধ্যে অ্যাপভিত্তিক রাইড শেয়ারিং জনপ্রিয় হয়ে উঠতে শুরু করেছে। কিন্তু গণপরিবহনের বেপরোয়া চালকদের মতো এসব অ্যাপভিত্তিক নেটওয়ার্কেও কিছু বেপরোয়া, অদক্ষ ও অপরাধপ্রবণ বাইকার ও গাড়ি চালক ঢুকে পড়েছে। এদের কারণে গণপরিবহন নেটওয়ার্কিং এখন চরম ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। বেপরোয়া ও অদক্ষ বাইক চালনার শিকার হয়ে প্রায় প্রতিদিনই ঢাকার বিভিন্ন স্থানে পাঠাও চালক ও আরোহীদের মধ্যে অপ্রীতিকর ঘটনা ও দুর্ঘটনা ঘটে। দেশের গণপরিবহন সেক্টরে একটি আমূল পরিবর্তনের প্রত্যাশা করছে মানুষ। আশা করা হচ্ছিল অ্যাপভিত্তিক সুশৃঙ্খল পরিবহন ব্যবস্থা এক্ষেত্রে পথপ্রদর্শকের ভ‚মিকা পালন করতে পারে। এখন দেখা যাচ্ছে দেশের গণপরিবহনের বেপরোয়া ও অদক্ষ চালকরাও এখন অ্যাপভিত্তিক রাইড শেয়ারিং সেক্টরে ঢুকে পড়েছে। এক্ষেত্রে নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলোকে বাইক, গাড়ি ও চালক রেজিস্ট্রেশনের ক্ষেত্রে আরও সতর্কতা ও নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। সেই সঙ্গে শুধু নির্দিষ্ট সেবা সংস্থার অ্যাপ বা সফটওয়্যার নেটওয়ার্কের ওপর ছেড়ে দিলেই হবে না। রেজিস্ট্রিকৃত সেবা সংস্থার আনফিট গাড়ি, অপেশাদার ও অদক্ষ চালকদের বিরুদ্ধে ট্রাফিক বিভাগেরও প্রয়োজনীয় নজরদারি থাকতে হবে। বিশে^র কোথাও গণপরিবহন ও ট্যাক্সিক্যাব চালকদের এমন স্বেচ্ছাচারিতার সুযোগ নেই। বাংলাদেশ যেন বিরল ব্যতিক্রম।
রাইড শেয়ারিং অ্যাপের মোটরসাইকেলের অধিকাংশ চালকের ঢাকার রাস্তাঘাট পর্যাপ্ত জানাশোনা নেই। বাইক চালকদের দক্ষতা নিয়েও রয়েছে নানা প্রশ্ন। অনেক চালকই ট্রাফিক আইনের তোয়াক্কা না করে অতিরিক্ত গতি নিয়ে বেপরোয়া চলাচল করেন। যে কারণে ঘটছে দুর্ঘটনা ও প্রাণহানি। আবার অনেক চালক মানিকগঞ্জ, সাভার কিংবা নারায়ণগঞ্জ থেকে ঢাকায় এসে ভাড়ায় মোটরবাইক চালান, যাদের ঢাকার রাস্তাঘাট তেমন জানাশোনাও নেই। এদের অনেকেরই গাড়ি চালানোর প্রশিক্ষণ ও লাইসেন্স নেই। কিছুসংখ্যক অদক্ষ ও অপরাধপ্রবণ চালকের কারণে এ খাত আস্থাহীনতার সঙ্কটে পড়লে এর সম্ভাবনা নস্যাৎ হতে পারে। এক্ষেত্রে সরকারের তরফ থেকে সুনির্দিষ্ট নীতিমালা ও নজরদারি প্রয়োজন। আর কোনো চালকের বেপরোয়া বাইক চালনার শিকার হয়ে যেন কোনো আরোহী হতাহতের ঘটনা না ঘটে সেদিকে সংশ্লিষ্ট সবার বিশেষ সতর্কতা ও নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।
পরিবহন সংশ্লিষ্টরা বলছেন, নির্দিষ্ট কোনো নিয়ম-কানুন না থাকার কারণে ভাড়ায়চালিত মোটরবাইকে যাতায়াত শুধু নারীদের জন্য নয়, সব যাত্রীর জন্যই অনিরাপদ। কেননা চালকদের অনেকের প্রশিক্ষণ নেই। তা ছাড়া অনেকে আবার রাজধানীর সড়ক সম্পর্কে যথেষ্ট পরিচিতও নয়। ফলে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটছে। লাখ লাখ মোটরসাইকেলের কারণে একদিকে যেমন সড়ক দুর্ঘটনা বাড়ছে, তেমনি সড়ক-ফুটপাথের যাত্রী ও পথচারীরা বেশিরভাগ সময়ই বিরূপ পরিস্থিতিতে পড়ছেন।
সেবা ব্যবহারকারীদের অভিযোগ, চালক এবং রাইড শেয়ারিং প্রতিষ্ঠানগুলো যাত্রী নিরাপত্তার ব্যাপারে উদাসীন। বেশিরভাগ মোটরসাইকেল রাইডার নিজে হেলমেট পরলেও যাত্রীর জন্য হেলমেট রাখছেন না। অনেক চালক নামেমাত্র হেলমেট রাখলেও সেটা আর পরার যোগ্য থাকছে না। ঘটছে দুর্ঘটনা। মোবাইল ফোনে রাইড শেয়ারিং অ্যাপস অনেক নগরবাসীর জন্য স্বস্তির বার্তা নিয়ে এসেছিল। গত দুই-আড়াই বছর ধরে শহরের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে খুব সহজেই
আসা-যাওয়া করা যাচ্ছে অ্যাপভিত্তিক ভাড়ায় চলা যানবাহনে। শুরু থেকে অ্যাপভিত্তিক সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলো নীতিমালার বাইরে থাকলেও চলতি বছর নীতিমালা করার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। এই প্রতিষ্ঠানগুলোকে নিয়ম-নীতির মধ্যে আনার দায়িত্ব দেওয়া হয় বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষকে (বিআরটিএ)। তবে এখনও পরিপূর্ণ নিয়ন্ত্রণে আসেনি রাইড শেয়ারিং প্রতিষ্ঠানগুলো। যাত্রা শুরুর পর থেকে অ্যাপভিত্তিক রাইড প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অভিযোগ আসা শুরু হয়েছে গ্রাহকদের কাছ থেকে। তবে কোনো নীতিমালা না থাকায় গ্রাহকরা এর কোনো প্রতিকার পাচ্ছেন না। গত কয়েক বছরে প্রায় এক ডজনেরও বেশি অ্যাপভিত্তিক রাইড শেয়ারিং কোম্পানি গড়ে উঠেছে। স্যাম, মুভ, উবার, পাঠাও, সহজ.কম, চলো, বাহন, গাড়ি ভাড়া, ডাকো, ওভাই, আমার বাইক, শেয়ার মোটরসাইকেল, বিডিবাইক, ইজিয়ার ও রাইডার রাজধানীতে মোটরসাইকেল ও প্রাইভেটকার যাত্রী পরিবহন সেবা চালু করেছে। এর মধ্যে এখন পর্যন্ত সরকারি নীতিমালার আওতায় আসার জন্য মোট ৯টি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান বিআরটিএ’র কাছে আবেদন করেছে। এসব অ্যাপভিত্তিক রাইড শেয়ারিং প্রতিষ্ঠান আবেদন করলেও এখনও পূর্ণ অনুমোদন পায়নি। তবে যাচাই-বাছাইয়ের মাধ্যমে শিগগিরই পর্যায়ক্রমে অনুমোদন দেওয়া হবে। জানুয়ারি মাসে রাইড শেয়ারিং পরিবহন সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য নীতিমালার খসড়া অনুমোদন দিয়েছে সরকার। এই নীতিমালার ৮টি অনুচ্ছেদে ১১টি শর্তও দেওয়া হয়েছে। এসব শর্তের মধ্যে রয়েছে ১. কোম্পানিকে বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ) থেকে তালিকাভুক্তির সনদ নিতে হবে। ২. অ্যাপসের মালিককে টিআইএনধারী হতে হবে এবং নিয়মিত ভ্যাট পরিশোধ করতে হবে। আর কোম্পানি হলে জয়েন্ট স্টক থেকে কোম্পানির রেজিস্ট্রেশন নিতে হবে। ৩. নিজস্ব অফিস থাকতে হবে। ৪. ঢাকায় সেবা দেওয়ার জন্য কমপক্ষে ১০০, চট্টগ্রামে ৫০টি এবং অন্য জেলা শহরে ২০টি গাড়ি থাকতে হবে। ৫. গাড়িগুলোর বিআরটিএ থেকে ট্যাক্স পরিশোধ ও রুট পারমিট আপডেট থাকতে হবে। ৬. মালিক ও চালকের মধ্যে একটি সমঝোতা চুক্তি থাকতে হবে। ৭. স্ট্যান্ড ছাড়া যত্রতত্র গাড়ি পার্কিং করা যাবে না। ৮. বিআরটিএ’র ওয়েবসাইটে এই সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান, মালিক ও চালকের বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য থাকতে হবে। ৯. তালিকাভুক্তির জন্য আবেদনের সঙ্গে এক লাখ টাকাসহ অন্যান্য ফি জমা দিতে হবে। তালিকাভুক্তির মেয়াদ হবে তিন বছর। পরে এটি নবায়ন করতে হবে। নবায়ন ফি হবে ১০ হাজার টাকা। ১০. মালিক ও চালকের বিরুদ্ধে অনলাইনে অভিযোগ করা যাবে। ১১. শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে তালিকাভুক্তির সনদ বাতিলসহ প্রচলিত আইনে মামলা করা যাবে। সরকারের বেঁধে দেওয়া এসব শর্ত ওই প্রতিষ্ঠানগুলো মানছে না । ফলে রাজধানীতে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা ঘটছে এবং হতাহতের সংখ্যাও বাড়ছে। এ বিষয়ে সরকারের আরও নজরদারি প্রয়োজন।

ডেপুটি রেজিস্ট্রার, জগন্নাথ বিশ^বিদ্যালয়




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]