ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা রোববার ২৯ মার্চ ২০২০ ১৪ চৈত্র ১৪২৬
ই-পেপার রোববার ২৯ মার্চ ২০২০

ইউটিউব অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 18

কণ্ঠশিল্পী এসডি রুবেল। সঙ্গীত চর্চার পাশাপাশি অভিনয়ও করছেন। গান, অভিনয় ও বর্তমান ব্যস্ততা নিয়ে কথা বলেছেন তিনি। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন মোহাম্মদ তারেক কাজের ব্যস্ততা নিয়ে বলুন।
স্টেজ শো নিয়ে ব্যস্ত আছি। এ ছাড়া এসডি রুবেল ফাউন্ডেশন থেকে গান প্রকাশ হচ্ছে। সম্প্রতি আমার ‘বৃদ্ধাশ্রম’ ছবিটির বিনা কর্তনে সেন্সর সনদ পেয়েছি। মুক্তি নিয়ে কাজ করছি। নতুন আরেকটি ছবির চিত্রনাট্য প্রস্তুত করছি।
‘বৃদ্ধাশ্রম’ কবে মুক্তি দেওয়ার কথা ভাবছেন?
এখনও ঠিক করিনি। তবে খুব সহসাই মুক্তি দেওয়ার ইচ্ছে আছে। দেশব্যাপী ছবিটি ছড়িয়ে দিতে কাজ করছি।
বর্তমানে গানের মান কেমন দেখছেন?
সবসময়ই ভালো গানের পাশাপাশি বাজে গান হয়েছে। এখনও হচ্ছে। এর মধ্যে যারা ভালো কাজ করবে তারা টিকে থাকবে। যেমন আমার ‘এসডি রুবেল ফাউন্ডেশন’ ইউটিউব চ্যানেলে আমার পুরনো গানগুলো প্রকাশ করেছি। নতুন গান জৌলুস নিয়ে ছাড়তে পারিনি কারণ একটি গানের শুটিংয়ে প্রচুর টাকা খরচ হয়। দুই বছরে পুরনো গানে প্রায় সাড়ে ছয় কোটি ভিউ। তার মানে দশর্ক-শ্রোতারা ভালো গান শুনতে চায়। ভালো কাজগুলো এগিয়ে যাবে।
ইউটিউবে দর্শকের আগ্রহ বেশি, এ বিষয়টি নিয়ে আপনার দৃষ্টিভঙ্গি কী?
ইউটিউবে দর্শক ঝুঁকবে স্বাভাবিক। মিডিয়া বরাবরই শিল্পী-সাহিত্যিকদের চাপিয়ে রাখার চেষ্টা করেছে। কাউকে হাইলাইট করেছে কাউকে করেনি। কাউকে সুযোগ দিয়েছে কাউকে দেয়নি। বাংলাদেশের গণমাধ্যম আমাদের শিল্পী সাহিত্যিকদের সঙ্গে ভয়াবহ অন্যায় করেছে। ইউটিউব অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। আমিই বুঝতে পারব আমার কোনদিকে যাওয়া উচিত।
ইউটিউব ভিউজের ব্যাপারটা কীভাবে দেখেন?
এটা অবশ্যই ইতিবাচক। কারও মনোপলি ব্যবসার কাছে না ক্ষমতা নেই। বিদেশি চ্যানেল জনপ্রিয় হচ্ছে অথচ দেশীয় চ্যানেল দর্শক দেখছে না। কারণ অনুষ্ঠানের মান। দর্শক চায় একজনকে দেখাচ্ছে আরেকজনকে। এভাবে তো মিডিয়া টিকতে পারে না। দর্শকের স্বাধীনতা আছে। তাই তারা ইউটিউব দেখছে। কয়েকদিন পর টেলিভিশন থাকবে কি না সন্দেহ আছে।
এ পরিস্থিতির পরিবর্তন হবে?
ইউটিউব সমাধানের উপায়। এখন ফেসবুক আছে। আইটিউনসে গান ছাড়া যায়। এখন হয়তো সেভাবে আয় হচ্ছে না। কিন্তু সামনে যখন দশটা প্ল্যাটফর্ম থেকে অল্প অল্প করে টাকা আসতে শুরু করবে তখন পরিস্থিতির উন্নতি হবে। যেখানে আমাদের মেধার মূল্যায়ন করা হবে সেখানেই যাব।
এখন আর অ্যালবাম হচ্ছে না। এ বিষয়ে কী বলবেন?
দশ মাসে দশটা গান করলেই তো একটা অ্যালবাম হয়ে গেল। বছরে একটার বেশি অ্যালবাম করাও ঠিক না। প্রতিদিন সৃজনশীল কাজ করা কঠিন।






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]