ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা  বুধবার ১ এপ্রিল ২০২০ ১৭ চৈত্র ১৪২৬
ই-পেপার  বুধবার ১ এপ্রিল ২০২০

ইবিতে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ-ভাঙচুর, আহত ৫
ইবি প্রতিনিধি
প্রকাশ: রোববার, ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১:৫৯ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 194

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে জুনিয়র কর্তৃক সিনিয়রকে মারধরের ঘটনাকে কেন্দ্র করে শাখা ছাত্রলীগের দুই’গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

শনিবার রাত সাড়ে ১১ টায় ক্যাম্পাসের জিয়াউর রহমান হলের সামনে এঘটনা ঘটে। ঘটনায় উভয় গ্রুপের ৫ জন কর্মী আহত হয়েছে। এতে গুরত্বর আহত একজনকে কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

একই সাথে ঘটনায় জিয়াউর রহমান হলের দুইটি রুম ভাঙচুর করেছে উভয় গ্রুপের নেতাকর্মীরা।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, রাত ৮টার দিকে জিয়া হলে আইন বিভাগের ১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের ছাত্রলীগকর্মী কামাল মার্কেটিং বিভাগের ১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের জেবিয়ারকে বন্ধু ভেবে ডাক দেয়।

পরে ঘটনায় কামাল দুঃখ প্রকাশ করে। কিন্তু জেবিয়ার তাকে ধমক দিয় ও তার রুমে দেখা করতে বলে। এসময় কামাল তার বন্ধুদের নিয়ে জেবিয়ারের রুমে দেখা করতে গেলে তাদের দুজনের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে জেবিয়ার ও কামালের বন্ধুদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।

এসময় জেবিয়ারকে মারধরের অভিযোগ পাওয়া যায়। পরে ঘটনায় ছাত্রলীগের নেতারা সমাধান করেন।

এদিকে কামাল জিয়া হলের ২০৮ নম্বর কক্ষে থাকে জানতে পেরে রাত ১১টায় জেবিয়ার তার গ্রুপের জয়, ইমতিয়াজ, সালমান, হামজা, তানভীরকে নিয়ে তার রুমে আক্রমণ করে। এসময় তারা কামালের রুমের দরজা না খুলতে পেরে হল থেকে বের হয়ে জিয়া মোড়ে অবস্থান নেয়। এসময় জিয়া হলসহ অন্যান্য হল থেকে কামালদের গ্রুপের কর্মীরা বের হয়ে জিয়া মোড়ে গেলে উভয় গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এসময় হিমেল চাকমা, জেবিয়া, রাব্বি, রিয়ন, রাফসান আহত হয়।

এর মধ্যে হিসাববিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুুক্তি বিভাগের ১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের ছাত্রলীগ কর্মী হিমেল চাকমা গুরত্বর আহত হয়। পরে তাকে ইবি মেডিকেলে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়ছে।

এদিকে মারধরের এ ঘটনায় পুনরায় জেবিয়ার ৪১৫ নম্বর রুম ভাঙচুর করে কামাল ও বন্ধুরা। এবিষয়ে শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সম্পাদক ফয়সাল সিদ্দিকী আরাফাত বলেন, ছোট একটি বিষয় নিয়ে ছাত্রলীগের কর্মীদের মাঝে ভুল বোঝাবোঝি হয়। পরে আমরা তার সমাধান করি। কিন্তু পরবর্তীতে তারা
আবারও সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।’

এবিষয়ে প্রক্টর অধ্যাপক ড. পরেশ চন্দ্র বর্ম্মণ বলেন, ‘খবর পেয়ে আমরা প্রক্টরিয়াল বডি ঘটনাস্থলে যাই। তবে এসময় ছাত্রলীগের সিনিয়র নেতাকর্মীরা বিষয়টি সমাধান করেছে বলে জানি।’




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]