ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা  বুধবার ১ এপ্রিল ২০২০ ১৭ চৈত্র ১৪২৬
ই-পেপার  বুধবার ১ এপ্রিল ২০২০

অগ্নিগর্ভ দিল্লি : মসজিদের মিনারে গেরুয়া পতাকার ভিডিওটি সত্য
সময়ের আলো অনলাইন
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১:৪১ পিএম আপডেট: ২৭.০২.২০২০ ৪:৫০ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 137

দিল্লিতে সাম্প্রদায়িক সহিংসতার সময় একটি মসজিদের মসজিদের মিনারে কয়েকজন যুবক গেরুয়া পতাকা টানিয়ে দেন। মসজিদের মিনার থেকে লাউডস্পিকারটি ভেঙে নিচে ফেলে দিতে দেখা যায় তাদের। গতকাল সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া এই ভিডিওটি নিয়ে শুরু হয়েছিল তুমুল বিতর্ক। অনেকেই বলেছিলেন, ভিডিওটি দুবছর আগের, বিহারের সমস্তিপুরের ঘটনা। কিন্তু অবশেষে ভিডিওটির সত্যতা মিলেছে।

জানা গেছে, ভিডিওটি দিল্লির একটি মসজিদেরই। যেখানে কিছু উগ্র হিন্দু যুবক মিনারে উঠে গেরুয়া পতাকা টাঙিয়েছেন। খবর আনন্দবাজার পত্রিকার।

আনন্দবাজার জানিয়েছে, ‘ভুয়ো’ তকমা লাগায় ভিডিয়োটি টুইটার হ্যান্ডল থেকে মুছেও ফেলেছিলেন সাংবাদিক রানা আইয়ুব। আজ জানা গেল, ভিডিয়োটি নির্ভেজাল। উত্তর-পূর্ব দিল্লির অশোক নগরে, পাঁচ নম্বর গলিতে গিয়ে সাংবাদিকেরা আজ দেখলেন, বড়ি মসজিদের মাথায় এখনও উড়ছে গেরুয়া পতাকা— লেখা, ‘জয় শ্রীরাম’!

সাংবাদিক রানা আইয়ুব ভিডিওটি সত্য প্রমাণিত হওয়ার পর পুনরায় সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছেন। ভারতের যে সংবাদমাধ্যমে এটি ভুয়া বলা হয়েছিল, তারাও তাদের ভুল স্বীকার করে সংবাদ প্রকাশ করেছেন।

ভিডিও লিঙ্ক :  https://twitter.com/i/status/1232331961261268998

এ ব্যাপারে আনন্দবাজার জানাচ্ছে, ‘গোধরা-পরবর্তী দাঙ্গা নিয়ে লেখা ‘গুজরাত ফাইলস’-এর লেখিকা-সাংবাদিক রানা কাল ‘দিল্লির ঘটনা’ বলেই ভিডিয়োটি পোস্ট করেছিলেন টুইটারে। পরে একটি সংবাদমাধ্যম জানায়, ঘটনাটি দিল্লির ‘অশোক বিহারের’। উত্তর-পশ্চিম দিল্লির ডিসিপি তৎক্ষণাৎ জানিয়ে দেন, ‘অশোক বিহারের’ কোথাও এমন কিছু ঘটেনি। তাঁকে উদ্ধৃত করে একাধিক সংবাদমাধ্যম লেখালিখি শুরু হয়, ‘ভুয়ো খবর’ রটছে। মুম্বই থেকে রমেশ সোলাঙ্কি নামের এক ব্যক্তি অনলাইনে সাংবাদিক রানা আইয়ুবের বিরুদ্ধে পুলিশে অভিযোগ করেন। তাঁর অভিযোগ, ইচ্ছাকৃত ভাবে দু’বছরের পুরনো বিহারের ভিডিয়ো পোস্ট করে অশান্তিতে উস্কানি দিচ্ছেন রানা।’

‘গত কালই ওই সংবাদমাধ্যম ভুল শুধরে নিয়ে জানায়, ঘটনাটি অশোক নগরের। সত্যতা যাচাই করে ভিডিয়োটি ফের টুইট করেন সাংবাদিক রানাও। যিনি ভিডিয়ো তুলেছিলেন, তিনিও লিখিত ভাবে জানান, যে সেটি তাঁরই তোলা। আজ ওই ঘটনাস্থলে যান একাধিক সাংবাদিক। তাঁরাও ছবি-ভিডিয়ো দিয়ে জানিয়েছেন, কাল অশোক নগরের বড়ি মসজিদেই তাণ্ডব চালিয়েছিল দুষ্কৃতীরা।’




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]