ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শনিবার ৬ জুন ২০২০ ২৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭
ই-পেপার শনিবার ৬ জুন ২০২০

ভালো রাখুন দাঁত
অধ্যাপক ডা. মোস্তাক এইচ সাত্তার
প্রকাশ: শুক্রবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১১:১৪ পিএম আপডেট: ২৮.০২.২০২০ ১:৩৩ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 15

মুখের ভেতর নানা সমস্যা হতে পারে, যার মধ্যে দন্তক্ষয় বা ডেন্টাল ক্যারিজ, মাড়ির রোগ বা পেরিওডেন্টাল ডিজিজ, মুখের ক্ষত বা ঘা, আঁকাবাঁকা দাঁত, মুখের ক্যানসার ইত্যাদি। এসব রোগ পরীক্ষার মাধ্যমে শনাক্ত করে সঠিক চিকিৎসা করলে বেশিরভাগ রোগীই ভালো হয়ে যায়; কিছু রোগ হয়তো জটিলতা তৈরি করে। আঁকাবাঁকা দাঁত সোজা করা কতটুকু সম্ভব?
যেকোনো ধরনের আঁকাবাঁকা দাঁতেরই চিকিৎসা সম্ভব। সাধারণত চার বছর থেকেই আঁকাবাঁকা দাঁতের চিকিৎসা শুরু হয়। তবে ১২ বছর বয়স থেকে দুধদাঁত পড়ে নতুন দাঁত উঠলে তখন এর চিকিৎসা করলে ভালো ফল পাওয়া যায়। যাদের বয়স হয়েছে, তারাও চিকিৎসা করাতে পারবেন। কেননা দুধদাঁত পড়ে আবার উঠার পর এর গ্রোথ প্রায় ৩০ বছর পর্যন্ত হয়।
প্রাথমিক পর্যায়ে এক্স-রের মাধ্যমে আঁকাবাঁকা দাঁত শনাক্ত করা হয়। যেসব দাঁত অতিরিক্ত সেগুলো তুলে ফেলতে হয়। এ ছাড়া কিছু স্থায়ী দাঁত, যা অন্য একটি বা দুটি দাঁতের ওপরে বা নিচে অবস্থান করে, সেগুলোও প্রয়োজনবোধে তুলে ফেলতে হয়। নচেৎ খাদ্যদ্রব্য চিবানোয় ঝামেলা তৈরি হয় এবং দাঁত অসমান থাকায় খাদ্যকণাও জমা হয়।
দাঁত শিরশির করার কারণ কী এবং এর চিকিৎসা কী?
একটি, দুটি দাঁত বা একের অধিক দাঁত কখনও শিরশির করতেই পারে। এ অবস্থাকে বলে ডেন্টাল এট্রিশন। এর মূল কারণ হচ্ছে দাঁতের ওপরের সবচেয়ে শক্ত আবরণ বা এনামেল ক্ষয় হয়ে যাওয়া। কোনো কারণে এই এনামেল ক্ষয়প্রাপ্ত হলে দাঁতের পরবর্তী অংশ ডেন্টিন বেরিয়ে আসে। এর নিচের অংশই নার্ভ, আর্টারি, বøাড ভেসেলস ইত্যাদি থাকে বলে তখন দাঁতটি খুব স্পর্শকাতর হয়ে পড়ে। ওই সময় ঠান্ডা বা গরম পদার্থ লাগার ফলে দাঁত শিরশির করতে পারে।
এক্স-রের মাধ্যমে অথবা অনেক সময় খালি চোখেই মাড়ি ও দাঁতের অবস্থান, গর্ত বা ফাটল ইত্যাদি শনাক্ত করা যায়। তখন চিকিৎসা হিসেবে মাড়ি ও দাঁতের সংযোগস্থল থেকে পাথর বা ডেন্টাল প্লাক, খাদ্যকণা পরিষ্কার করতে হয় আল্ট্রাসনিক স্কেলিংয়ের মাধ্যমে। ক্ষয়ে যাওয়া বা ভেঙে যাওয়া ‘লাইট কিউর ফিলিং’ দিয়ে ভর্তি করে দিলে আবার পূরণ হয়ে যায়। এ ক্ষেত্রে গøাস আইনোমার ফিলিং দিয়েও দাঁতটি ভর্তি করা যায়। তবে অতিরিক্ত ক্ষয়ে যাওয়া বা গর্ত হয়ে যাওয়া দাঁতে রুট ক্যানেল করতে হয়। অনেক সময় দাঁত ব্রাশের সঙ্গে পটাশিয়াম নাইট্রেট সংযুক্ত টুথপেস্ট ব্যবহার করলেও দাঁতের শিরশির ভাব ধীরে ধীরে কমে। শিরশির করা দাঁতের জন্য আমাদের দেশে অনেক ভালো মানের টুথপেস্ট রয়েছে।
দাঁতে পাথর জমবেই এমন কোনো কথা কি আছে?
না। ঠিকমতো দাঁত পরিষ্কার করলে বা নিয়মিত বৈজ্ঞানিক উপায়ে দাঁত ব্রাশ করলে সাধারণত পাথর জমার আশঙ্কা থাকে না। তবে দাঁতে ময়লা জমতে পারে। দাঁতের গোড়ায় রয়ে যাওয়া আজকের খাবারই কিন্তু আগামী দিন ময়লা বা পাথরে পরিণত হয়।
দাঁতে কি আসলে পোকা হয়?
এটি একটি ভ্রান্ত ধারণা। আমরা যেটা জানি তা হলো, মাইক্রোস্কোপিক অর্থাৎ জীবাণু। কিন্তু প্রচলিত পোকার ব্যাপারটি কুসংস্কার; আদৌ এর কোনো প্রমাণ নেই। একটা সময় মানুষকে তুলার মধ্যে পোকা দেখিয়ে ধোঁকা বা প্রবঞ্চনা দেওয়া হতো, এগুলোর অবশ্য এখন অস্তিত্ব নেই।
লেখক : সাবেক অধ্যক্ষক্ষ
সিটি ডেন্টাল কলেজ, ঢাকা




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]