ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা সোমবার ৬ জুলাই ২০২০ ২১ আষাঢ় ১৪২৭
ই-পেপার সোমবার ৬ জুলাই ২০২০

শীতের সবজিতে হবে রোগ প্রতিরোধ
বকুল হাসান খান
প্রকাশ: রোববার, ১ মার্চ, ২০২০, ৮:৫০ পিএম আপডেট: ০১.০৩.২০২০ ৮:৫৬ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 83

এখনও শীতরে সবজি বাজারে পাওয়া যাচ্ছে। এসব সবজরি মধ্যে রয়ছেে টমটেো, বাঁধাকপি মটরশুুঁট,ফুলকপি,গাজর, সিম, বরবটি, করলা ইত্যাদসিহ নানান ধরনরে শাকসবজি।

এসব শাকসবজি শরীররে বভিন্নি পুষ্টি উপাদানরে চাহদিা মটোনোর পাশাপাশি রোগ প্রতরিোধ ও নিরাময়ে বিশেষ ভূমকিা পালন করে। এখানে শীতরে কয়কেটি সবজির গুণাগুণ তুলে ধরা হলো।

টমেটোঃ
টমেটো এ সময়রে একটি আলোচতি সবজি। প্রোস্টটে ক্যান্সার প্রতরিোধে টমেটো ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করছে। টমটেোর মধ্যে রয়েছে  এন্টি অক্সডিন্টে উপাদান লাইকোপনে। এ লাইকোপনে দহেকোষ থেকে বিষাক্ত ফ্ররিডেক্যিালকে সরিয়ে প্রোস্টটে ক্যান্সারসহ মূত্রথলি, অগ্নাশয় ও অন্নানালীর ক্যান্সার প্রতরিোধ সহায়তা কর, গবেষকরা বলছেনে, যারা সপ্তাহে অন্তত ৪ বার টমটেো খায়। তাদরে ক্ষত্রেে প্রোস্টটে ক্যান্সাররে ঝুঁকি শতকরা ২০ ভাগ কমে যায়। আর সপ্তাহে ১০ বার খলেে ঝুঁকি ৫০ ভাগ কমে আস। তবে এ উপকার পেতে হলে তারা পাকা টমেটো এবং রান্না করা টমেটো খাওয়ার পরার্মশ দিয়েছেন।

ফুলকপি ও মটরশুঁটিঃ
ফুলকপি উল­েখ যোগ্য পুষ্টি উপাদান হচ্ছে ক্যালসয়িাম, লৌহ, খনজিসহ ভটিামনি বি ১ ও বি২, ক্যালসয়িাম হাড়রে গঠনে, মাংসপশেরি সংকোচনজনতি ব্যথা দূরীকরণে আর লৌহ রক্ত তরৈরি সাহায্য করতে বাজারে উপস্থতি আরকেটি পছন্দরে শস্য দানাজাতীয় সবজি হচ্ছে মটরশুঁটি।  মটরশুঁটতিে ও রয়ছেে ফুলকপরি মতো প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান ও ভটিামিন। প্রতি ১০০ গ্রাম ফুলকপি ও মটরশুটতিে ক্যালসয়িামরে পরমিাণ যথাক্রমে ৪১ মলিগ্রিাম ও ২৬ মলিগ্রিাম এবং লৌহরে পরমিাণ উভয় ক্ষত্রেইে ১.৫ মলিগ্রিাম।

গাজরঃ
গাজর রূপগেুণে অনন্য একটি সবজি খাবার হসিাবে গাজররে ব্যবহারও নানাবধি। কাঁচা ও রান্না করা উভয় অবস্থাতইে গ্রহণ করা যায়। মূলজাতীয় সবজরি মধ্যে গাজরে রয়ছেে র্সবোচ্চ পরমিাণ বটিাক্যারোটনি। প্রতি ১০০ গ্রাম গাজরে এই বটিাক্যারোটনিরে পরমিাণ প্রায় ১৮৯০ মাইক্রোগ্রাম (সূত্র: বদিশেী ম্যাগাজনি) এবং ক্যালসয়িাম প্রায় ৮০ মলিগ্রিাম। তাছাড়া গাজরে রয়ছেে লাইকোপনে নামক উপাদান যা ক্যান্সার প্রতরিোধে বশিষেভাবে সহায়ক। গাজররে গুণ অনকে। গাজর ত্বক ও চুলকে র্সূযরশ্মরি ক্ষতকির প্রভাব থকেে রক্ষা কর। গাজর মহলিাদরে ছত্রাক সংক্রমণরে ঝুকি কমায়। চোখরে ছানি, রাতকানা,হৃদরোগসহ ক্যান্সার প্রতরিোধে গাজর অগ্রণী ভূমকিা পালন করে।

সিম ও ঢেঁড়সঃ
সমি ও ঢেঁড়স মধ্যে অন্যান্য সবজরি মতো পুষ্টি ও উপাদান এবং ভটিামনি রয়ছে। তবে সিম ও ঢেঁড়সে রয়ছেে প্রচুর ক্যালসয়িাম। প্রতি ১০০ গ্রাম সমি ও ঢেঁড়সে ক্যালসয়িামরে পরমিাণ যথাক্রমে ২১০ ও ১১৬ মলিগ্রিাম। উল­েখ্য, সবজির মধ্যে র্সবোচ্চ ক্যালসয়িাম রয়ছেে ডাটাত প্রতি ১০০ গ্রাম ডাটাতে ক্যালসয়িামরে পরমিাণ ২৬০ মলিগ্রিাম।
 
ধনয়িা ও লটেুসঃ
শীতকালীন পাতার মধ্যে এই দুটি পাতাই সহজে কাঁচা অবস্থায় খাওয়া যায়। ফলে প্রকৃত পুষ্টগিুণ প্রায় পুরোটাই এ ক্ষত্রেে বজায় থাকে। বিশেষ করে ভটিামনি সির গুণাগুণ অক্ষুন্ন থাকে। এ দুটি পাতাতইে রয়ছেে প্রচুর পরমিাণ বটিাক্যারোটনি, ক্যালসয়িাম, লৌহ এবং ভটিামনি বি-১ বি-২ ইত্যাদি।

সবজি ও শাকপাতার একই ধরনরে কছিু গুণাগুণঃ
শাকসবজতিে থাকে প্রচুর পরমিাণে আশ। এ আশ কোষ্ঠকাঠন্যি দূর করতে সক্রয়িভাবে সাহায্য করে।
কোষ্ঠকাঠন্যি দূর করতে শাকসবজরি কোন বকিল্প নইে। শাকসবজতিে রয়ছেে প্রচুর পরমিাণ ভটিামনি এ. সি এবং বি-১, বি-২ যা শরীররে ভটিামনি চাহদিা মিটিয়ে রাতকানা রোগসহ  বভিন্নি রোগ প্রতরিোধ করে ভটিামনি- এ লভিারে ছয়মাস র্পযন্ত সঞ্চতি থাকে বলে শীতরে সময় নিয়মিত শাকসবজি খেলে তা বছররে বাকি সময়রে ভটিামনি- এ’র চাহদিা পূরণে সক্ষম হতে পারে। শাকসবজতিে থাকে প্রচুর পরমিাণ এন্টি অক্সডিন্টে উপাদান, যা ত্বকরে র্বাধক্যরোধে ভূমকিা রাখ। ত্বক সজীব রাখে।
এছাড়া শাকসবজরি এন্টি অক্সডিন্টে হৃদরোগ প্রতরিোধে সহায়ক। শাকসবজরি আঁশ ও এন্টি অক্সডিন্টে ইপাদান অন্ননালীর ক্যান্সারসহ বভিন্নি ক্যান্সার প্রতরিোধে র্কাযকর ভূমকিা পালন করে। আঁশ জাতীয় খাবার শরীরে খাদ্যরে র্চবি শোষণে বাধা প্রদান করে। তাই শাকসবজি গ্রহণে শরীর মুটয়িে যাওয়ার থেকে রক্ষা পায়। শাকসবজতিে থাকে ভটিামনি-ই যা শরীর ঠিক রাখে। ভিটামিন-ই হৃদরোগ প্রতরিোধসহ যৌবন শক্তি অটুট রাখতে সাহায্য করে।
 




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]