ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা সোমবার ৩০ মার্চ ২০২০ ১৫ চৈত্র ১৪২৬
ই-পেপার সোমবার ৩০ মার্চ ২০২০

করোনাভাইরাস
নিরাপদ থাকতে সচেতন হতে হবে শিক্ষার্থীদের
মো. মুরাদ হোসেন
প্রকাশ: শনিবার, ১৪ মার্চ, ২০২০, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 7

প্রাথমিক থেকে উচ্চশিক্ষায় চার কোটি শিক্ষার্থী লেখাপড়া করছে। বিশ^ব্যাপী আতঙ্ক ছড়ানো করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে বাংলাদেশেও। বিশ^ স্বাস্থ্য সংস্থা চারটি ব্যবস্থার পরামর্শ দিয়েছে ১. আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে কমপক্ষে দুই হাত দূরে থাকতে হবে। ২. বারবার প্রয়োজনমতো সাবান পানি দিয়ে হাত ধুতে হবে। বিশেষ করে আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে এলে বা ভাইরাস ছড়িয়েছে এমন এলাকা ভ্রমণ করলে এ সতর্কতা নিতে হবে। ৩. জীবিত ও মৃত গবাদিপশু-বন্য প্রাণী থেকে দূরে থাকতে হবে। ৪. ভ্রমণকারী আক্রান্ত হলে হাঁচি-কাশির সময় দূরত্ব বজায় রাখা, মুখ ঢেকে হাঁচি-কাশি দেওয়া ও যেখানে সেখানে থুথু না ফেলা।এ ভাইরাস কোনো প্রাণী থেকে মানুষের দেহে ঢুকছে। এখন মানুষ থেকে মানুষে সংক্রমিত হচ্ছে। করোনাভাইরাস মানুষের ফুসফুসে সংক্রমণ ঘটায় এবং শ^াসতন্ত্রের মাধ্যমে (হাঁচি, কাশি, কফ, থুথু) অথবা আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে এলে একজন থেকে আরেকজনে ছড়ায়।
ভাইরাস শরীরে ঢোকার পর সংক্রমণের লক্ষণ দেখা দিতে প্রায় ২-১৪ দিন লাগে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে প্রথম লক্ষণ জ্বর। এ ছাড়া শুকনো কাশি বা গলাব্যথা হতে পারে। শ^াসকষ্ট বা নিউমোনিয়া দেখা দিতে পারে। অন্য অসুস্থতা (ডায়াবেটিস বা উচ্চ রক্তচাপ বা শ^াসকষ্ট বা হৃদরোগ বা কিডনি সমস্যা বা ক্যানসার) থাকলে অরগ্যান ফেইলিওর বা দেহের বিভিন্ন প্রত্যঙ্গ বিকল হতে পারে।
যেহেতু এ ভাইরাসটি নতুন, তাই এর কোনো টিকা বা ভ্যাকসিন এখনও নেই। তাই ব্যক্তিগত সচেতনতায় ঘন ঘন সাবান ও পানি দিয়ে হাত ধুতে হবে (অন্তত ২০ সেকেন্ড)। অপরিষ্কার হাতে চোখ, নাক ও মুখ স্পর্শ করা যাবে না। ইতোমধ্যে আক্রান্ত এমন ব্যক্তির সংস্পর্শ এড়িয়ে চলতে হবে। কাশির শিষ্টাচার মেনে চলতে হবে (হাঁচি বা কাশির সময় বাহু বা টিস্যু বা কাপড় দিয়ে নাক-মুখ ঢেকে রাখতে হবে)। অসুস্থ পশু বা পাখির সংস্পর্শ পরিহার করতে হবে।
মাছ-মাংস ভালোভাবে রান্না করে খেতে হবে। অসুস্থ হলে ঘরে থাকুন, বাইরে যাওয়া অত্যাবশ্যক হলে নাক-মুখ ঢাকার জন্য মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বিদেশ ভ্রমণ করা থেকে বিরত থাকুন এবং প্রয়োজন ছাড়া এ সময়ে বাংলাদেশ ভ্রমণে নিরুৎসাহিত করতে হবে। প্রবাসী আত্মীয়স্বজনকে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাংলাদেশ ভ্রমণে নিরুৎসাহিত করতে হবে। প্রয়োজন ছাড়া যেকোনো জনসমাগম এড়িয়ে চলতে হবে। অত্যাবশ্যকীয় ভ্রমণে সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে।
সন্দেহভাজন রোগের ক্ষেত্রে প্রবাসী আত্মীয়কে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাংলাদেশ ভ্রমণে নিরুৎসাহিত করা। অসুস্থ রোগীকে ঘরে থাকতে বলুন। মারাত্মক অসুস্থ রোগীকে নিকটস্থ সদর হাসপাতালে যেতে বলুন। রোগীকে
নাক-মুখ ঢাকার জন্য মাস্ক ব্যবহার করতে বলুন।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]