ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শুক্রবার ৩ এপ্রিল ২০২০ ১৮ চৈত্র ১৪২৬
ই-পেপার শুক্রবার ৩ এপ্রিল ২০২০

করোনার প্রভাবে স্থবির বিশ্বক্রীড়াঙ্গন
সময়ের আলো ডেস্ক
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ১৯ মার্চ, ২০২০, ১:৫৯ পিএম আপডেট: ১৯.০৩.২০২০ ২:০৩ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 96

সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস। ক্রীড়াঙ্গনেও পড়েছে এর বিরূপ প্রভাব। ইতোমধ্যেই স্থগিত করা হয়েছে বেশকিছু আসর। সংখ্যাটা দিনকে দিন বাড়ছে

আক্রান্ত জুভেন্টাসের মিডফিল্ডার মাতুইদি

করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ল জুভেন্টাস শিবিরে। ড্যানিয়েল রুগানির পর ক্লাবটির দ্বিতীয় খেলোয়াড় হিসেবে কোভিড-১৯ ভাইরাসে আক্রান্ত মিডফিল্ডার ব্লেইস মাতুইদি। ফ্রান্সের বিশ্বজয়ী তারকার আক্রান্তের খবর নিশ্চিত করেছে ক্লাব কর্তৃপক্ষ।

সিরি’আতে প্রথম পেশাদার খেলোয়াড় হিসেবে প্রথম করোনায় আক্রান্ত হন রুগানি। এরপর থেকেই কোয়ারেন্টাইনে পুরো জুভেন্টাস। কিন্তু তাতেও রেহাই পেলেন না মাতুইদি। ৩২ বছর বয়সি তারকার শরীরে বাসা বেঁধেছে করোনা। তাতে বুধবার থেকে হোম আইসোলেশনে তিনি। তবে তুরিনের ক্লাবটির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, করোনাভাইরাসের কোনো লক্ষণ নেই মাতুইদির মধ্যে।

ক্লাব কর্তৃপক্ষ বিবৃতির মাধ্যমে আরও জানায়, সুস্থ আছে মাতুইদি এবং থাকবে পর্যবেক্ষণে। যেমনটা চলছে রুগানির ক্ষেত্রেও।

এস্পানিওল ক্লাবে আক্রান্ত ছয়
করোনায় বেশি আক্রান্তের তালিকায় অন্যতম স্পেন। তাই এপ্রিল পর্যন্ত দেশটিতে লা লিগাসহ স্থগিত হয়েছে সব ধরনের মেজর স্পোর্টিং ইভেন্ট। এরপরও করোনার ছোবল থেকে রেহাই পেল না লা লিগার দল এস্পানিওল। ক্লাব কর্তৃপক্ষ নিশ্চিত করেছে, তাদের প্রথম দলে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ৬ সদস্য (খেলোয়াড় ও স্টাফসহ)।

আনুষ্ঠানিক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘প্রত্যেকের (আক্রান্ত) মাঝে হালকা লক্ষণ রয়েছে এবং মেনে চলছে চিকিৎসকদের পরামর্শ।’ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এস্পানিওল কর্তৃপক্ষ আরও জানায়, আক্রান্তদের প্রত্যেককে ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বলা হয়েছে।
লা লিগার দ্বিতীয় দল হিসেবে করোনায় আক্রান্ত হলো এস্পানিওল। এর আগে স্প্যানিশ জায়ান্ট ভ্যালেন্সিয়া নিশ্চিত করে, তাদের খেলোয়াড় এবং স্টাফদের মধ্যে আক্রান্তের হার ৩৫ ভাগ।

বাস্কেটবলে আক্রান্ত আরও চার
ইউটাহ জাজের খেলোয়াড় রুডি গোবার্ট করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পরই স্থগিত হয় যুক্তরাষ্ট্রের এনবিএ টুর্নামেন্ট। পরে কোভিড-১৯ পজিটিভ চিহ্নিত হন একই দলের ডোনোভান মিচেলও। আক্রান্তের তালিকায় যোগ হলো আরও চার বাস্কেটবল খেলোয়াড়ের পরিচয়।

এনবিএর দল ব্রুকলিন নেটসের চার খেলোয়াড়ের আক্রান্তের খবর নিশ্চিত করা হলেও প্রকাশ করা হয়নি পরিচয়। ক্লাবের পক্ষ থেকে কিছু না বলা হলেও, আক্রান্ত চারজনের একজন কেভিন ডুরান্ট নিজেই স্বীকার করেছেন নিজের করোনা সংক্রমিত হওয়ার খবর। সবাইকে নিরাপদ থাকার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, ‘সবাই সতর্ক থাকুন, নিজের যত্ন নিন এবং কোয়ারেন্টাইনে থাকুন। আমরা এই অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসব।’

স্থানীয় গণমাধ্যমের তথ্য মতে, সম্প্রতি সান ফ্রানসিস্কো থেকে ফেরার পরই আক্রান্ত চার খেলোয়াড়ের শরীরে উপসর্গ দেখা দেয়। যা মঙ্গলবার করোনা হিসেবে নিশ্চিত করা হয়। করোনা পরীক্ষা করার জন্য দলের পক্ষ থেকে বেসরকারি এক মেডিকেল টিম ভাড়া করা হয়েছিল। পরে নিশ্চিত করে জানানো হয় ব্রুকলিনের পক্ষ থেকে। বিবৃতিতে বলা হয়, ‘আমরা এখন খোঁজ নেওয়ার চেষ্টা করছি যে আক্রান্ত খেলোয়াড়দের সংস্পর্শে আমাদের দলে কারা এসেছিল। একই সঙ্গে সাম্প্রতিক প্রতিপক্ষ দলগুলোর ব্যাপারে খোঁজ নিচ্ছি। প্রশাসন এবং স্বাস্থ্য সংস্থার সঙ্গে এ বিষয়ে কাজ করছি আমরা।’

পিছিয়ে গেল ফ্রেঞ্চ ওপেন
করোনার প্রভাব পড়ল ফ্রেঞ্চ ওপেনেও। ২৪ মে থেকে ৭ জুন পর্যন্ত হওয়ার কথা ছিল টেনিসের মেজর ইভেন্টটি। কিন্তু করোনা আতঙ্কে পিছিয়ে গেল এই গ্র্যান্ড স্লাম। পর্দা উঠবে ২০ সেপ্টেম্বর এবং নামবে ৪ অক্টোবর, যা বিপদ বটে। কারণ ফ্রেঞ্চ ওপেন এখন শুরু করতে হবে নিউইয়র্কে ইউএস ওপেন শেষ হওয়ার এক সপ্তাহ পরই। উল্লেখ্য, আগেই বিশ^ব্যাপী সব ধরনের পেশাদার টেনিস স্থগিত করা হয়েছে আগামী ২০ এপ্রিল পর্যন্ত।

টুর্নামেন্ট প্রস্তুতিতে সংশ্লিষ্ট প্রত্যেকের স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তা নিশ্চিতের কারণে পেছানো হয়েছে ফ্রেঞ্চ ওপেন- এমনটা জানিয়ে ফ্রান্স টেনিস ফেডারেশন জানায়, ‘এ মুহূর্তে কেউ বলতে পারবে না যে ১৮ মে স্বাস্থ্য পরিস্থিতি কেমন হবে (তখন কোয়ালিফিকেশন শুরু হবে)। এমন অচলাবস্থায় প্রস্তুত হওয়া অসম্ভব এবং নতুন করেই সূচি নির্ধারণ করতে হয়েছে সংস্থাকে।’
অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের পর বছরের দ্বিতীয় গ্র্যান্ড স্লাম টুর্নামেন্ট টেনিস এবং ক্লে কোর্টে মৌসুমের শেষ অংশ। কিন্তু এবারের আসর পিছিয়ে যাওয়ায় চলতি বছরে ফাইনাল মেজর এটি এবং নতুন সূচি সাংঘর্ষিক লেভার কাপসহ একাধিক ইভেন্টের সঙ্গে।

ডু প্লেসিসদের আইসোলেশনে থাকার নির্দেশ
অসমাপ্ত ভারত সফর থেকে দেশে ফিরেছেন দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেট দল। কলকাতা এবং দুবাই হয়ে প্রোটিয়ারা জন্মভূমিতে পা ফেলে মঙ্গলবার সকালে (স্থানীয়)। দেশে ফেরা ফাফ ডু প্লেসিসদের কমপক্ষে দুই সপ্তাহ নিজ উদ্যোগে আইসোলেশনে থাকতে বলেছেন ক্রিকেট দক্ষিণ আফ্রিকার (সিএসএ) প্রধান চিকিৎসক ড. শোয়েব মাঞ্জরা।

তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজ খেলতে ভারত সফরে গিয়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। কিন্তু করোনা আতঙ্কে সিরিজ স্থগিত হয় দুদলের প্রথম ম্যাচের পর। তাতে নির্ধারিত সময়ের আগে সুস্থভাবেই দেশে ফেরত যায় প্রোটিয়ারা। মাঞ্জরা বলেন, ‘ভ্রমণকালীন সময়ে কিছু খেলোয়াড় মাস্ক পরে ছিল। বাকিরা না পরার সিদ্ধান্ত নেয়- এটা তাদের ওপর নির্ভর ছিল। ভ্রমণের সময় আমরা যথেষ্ট ভিন্ন ছিলাম এবং বহির্বিশ্বের থেকে যথেষ্ট নিরাপদ দূরত্বে ছিলাম।’ তবে ঝুঁকি এড়াতে ক্রিকেটারদের আইসোলেশনে থাকার পরামর্শই দিয়েছেন প্রধান চিকিৎসক, ‘সমাজে অন্যদের সঙ্গে দূরত্ব বজায় রাখতে এবং কমপক্ষে ১৪ দিন খেলোয়াড়দের আইসোলেশনে থাকতে বলেছি আমরা। আমি মনে করি, তাদের, তাদের আশপাশের মানুষ, পরিবার এবং সমাজকে রক্ষা করতে এটাই উপযুক্ত পরামর্শ।’

নিউজিল্যান্ডেও থমকে গেল ক্রিকেট
করোনা ভীতিতে এবার নিউজিল্যান্ডেও থমকে গেল ক্রিকেট। বুধবার সব ধরনের ক্রিকেট বাতিল করেছে দেশটির ক্রিকেট বোর্ড (এনজেডসি)। সঙ্কটময় পরিস্থিতিতে কিউইদের ঘরোয়া প্রথম শ্রেণির টুর্নামেন্ট প্লাঙ্কেট শিল্ড বাতিলের দুদিন পর আসল এমন ঘোষণা।

এক বিবৃতিতে এনজেডসি জানায়, ‘ডিস্ট্রিক অ্যাসোসিয়েশন এবং অন্যদের সঙ্গে যোগাযোগের পর ক্লাব, স্কুল, প্রোগ্রাম এবং অনুশীলনসহ কমিউনিটি ক্রিকেট বাতিলের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সম্প্রতি দেওয়া চিকিৎসকদের পরামর্শ এবং নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট পরিবারের কথা এবং সাধারণ মানুষের চাওয়ার প্রেক্ষিতে এমন সিদ্ধান্ত।’

এনজেডসির প্রধান ডেভিড হোয়াইট বলেন, ‘ভাইরাস (কোভিড-১৯) ছড়িয়ে পড়তে পারে কমিউনিটি খেলার মাধ্যমে (ক্লাব এবং স্কুল ক্রিকেট)। তাই সদস্যদের প্রতি আমাদের পরামর্শ, মৌসুমের বাকি সময় কমিউনিটি ক্রিকেট খেলানো উচিত হবে না।’

হাসপাতালে রিয়ালের সাবেক সভাপতি
করোনাভাইরাসের লক্ষণ দেখা যাওয়ায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে রিয়াল মাদ্রিদের সাবেক সভাপতি লরেঞ্জো সাঞ্জকে। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন তার ছেলেন ফার্নান্দো সাঞ্জ।

১৯৯৫ থেকে ২০০০ পর্যন্ত রিয়ালের গুরু দায়িত্বে ছিলেন লরেঞ্জো। তার অধীনে ১৯৯৮ সালে ইউরোপিয়ান কাপ জিতে ৩২ বছরের অপেক্ষার অবসান ঘটায় ক্লাবটি এবং একই মঞ্চে বিজয় কেতন ওড়ায় ২০০০ সালেও। যার অধীনে রিয়ালের দুর্দান্ত প্রত্যাবর্তন, সেই লরেঞ্জো এখন মৃত্যুর সঙ্গে লড়ছে হাসপাতালের বেডে, জানিয়েছেন ফার্নান্দো।

৭৬ বছর বয়সি লরেঞ্জোর ছেলে বলেন, ‘আমরা খুব চিন্তিত। তিনি আট দিনে জ্বরে ভুগছিলেন কিন্তু হাসপাতালে যাননি এবং অবস্থা আরও খারাপ হয়েছে। আমরা বলতে পারছি না এটা করোনাভাইরাস কি না, তবে এমন কিছুই মনে হচ্ছে।’




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]