ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা সোমবার ৬ জুলাই ২০২০ ২১ আষাঢ় ১৪২৭
ই-পেপার সোমবার ৬ জুলাই ২০২০

ব্যবসায় কৃত্রিম সঙ্কট তৈরি হারাম
প্রকাশ: শুক্রবার, ২৭ মার্চ, ২০২০, ১১:১৫ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 28

আল্লাহতায়ালা বিশেষ কিছু মাস, সময় ও মুহূর্তকে বিশেষভাবে বৈশিষ্ট্যমÐিত করেছেন। রজব, শাবান ও রমজান এমন বিশেষ তিনটি মাস। পবিত্র মাহে রমজানের আগের মাসটিই হচ্ছে শাবান। রাসুল (সা.) এ মাসকে বিশেষ গুরুত্ব দিতেন।
পবিত্র মাহে রমজানের পূর্বপ্রস্তুতি হিসেবে মানসিকভাবে গড়ে তোলার অপূর্ব সুযোগ শাবান মাস। আল্লাহর রাসুল (সা.) কামনা করতেন রজব-শাবানের বরকত পেয়ে পবিত্র রমজানের ফজিলতে ধন্য হতে। তাই মহান প্রভুর দরবারে মিনতি ভরে গভীর আবেগে দোয়া করতেনÑ ‘আল্লাহুম্মা বা-রিক লানা ফি রাজাবা ওয়া শাবান, ওয়া বাল্লিগ না রামাজান।’ অর্থ : হে আল্লাহ! আমাদের রজব ও শাবান মাসে বরকত দান করো এবং রমজান মাস পর্যন্ত আমাদের পৌঁছে
(জীবন) দাও।’ (মুসনাদে আহমাদ : ২৩৪৭)
রাসুল (সা.) শাবান মাস ইবাদতে মগ্ন থেকে সাহাবায়ে কেরামকেও আমলের জন্য উৎসাহ দিতেন। এ মাসের গুরুত্বের কারণেই রাসুলুল্লাহ (সা.) শাবানকে নিজের মাস বলে অভিহিত করেছেন। হজরত আনাস ইবনে মালিক (রা.) থেকে বর্ণিতÑ তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘রজব হলো আল্লাহর মাস। সুতরাং যে ব্যক্তি আল্লাহর মাস রজবকে সম্মান করল, সে আল্লাহর বিধানের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করল। আর যে আল্লাহর বিধানের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করবে, মহান আল্লাহ তাকে জান্নাতুন নাঈমে প্রবেশ করাবেন। আর শাবান হলো আমার মাস। আর যে ব্যক্তি শাবান মাসের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করল সে আমার প্রতি সম্মান প্রদর্শন করল। আর যে আমার প্রতি সম্মান প্রদর্শন করবে, কিয়ামতের দিন আমি হব তার অগ্রবর্তী এবং নেকির ভান্ডার। আর রমজান মাস হলো আমার উম্মতের মাস।’ (শুয়াবুল ঈমান : হাদিস ৩৫৩২)
মূলত রমজানের প্রস্তুতি হিসেবে শাবান মাসের অনেক ফজিলত ও বেশ কিছু করণীয়ও রয়েছে। প্রথমত শাবানের চাঁদ ওঠার সঙ্গে সঙ্গেই দিন গণনায় গুরুত্ব দেওয়া। যেন রমজানের রোজা সঠিক সময় আদায় করা সহজ হয়। হজরত আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, রাসুল (সা.) ইরশাদ করেনÑ ‘তোমরা রমজান ঠিক রাখার জন্য শাবানের চাঁদ গণনা করো।’ (তিরমিজি : ৬৮৭)। হজরত আয়েশা (রা.) বর্ণনা করেন, ‘আল্লাহর রাসুল (সা.) শাবান মাসের তারিখ এতটাই মনে রাখতেন যতটা অন্য মাসের তারিখ মনে রাখতেন না। শাবানের ২৯ তারিখ চাঁদ দেখা গেলে পরের দিন রমজানের রোজা রাখতেন। আর সেই দিন আকাশ মেঘাচ্ছন্ন থাকলে শাবান ৩০ দিন পূর্ণ করে রমজানের রোজা শুরু করতেন।’ (আবু দাউদ : ২৩২৭)
শাবান মাসের অন্যতম একটি আমল হলো, নফল রোজা রেখে আগত রমজানের প্রস্তুতি গ্রহণ করা। হজরত আনাস ইবনে মালিক (রা.) বর্ণনা করেন, একদা মহানবীকে (সা.) জিজ্ঞাসা করা হলো, হে আল্লাহর রাসুল! কোন রোজার ফজিলত বেশি? উত্তরে তিনি বললেন, ‘রমজান মাসের সম্মানার্থে শাবান মাসে কৃত রোজার ফজিলত বেশি। আবার জিজ্ঞাসা করা হলো, কোন দানের ফজিলত বেশি? উত্তরে তিনি বললেন, রমজান মাসে কৃত দানের ফজিলত বেশি।’ (বায়হাকি : ৮৭৮)।
অন্য এক বর্ণনায় আছে, হজরত আয়েশা (রা.) বলেনÑ ‘আমি আল্লাহর রাসুলকে (সা.) বছরের অন্য কোনো মাসে শাবান মাসের চেয়ে বেশি রোজা রাখতে দেখিনি। শাবান মাসে তিনি প্রায় সারা মাসই রোজা রাখতেন। সামান্য কয়েক দিন বাদ যেত।’ (তিরমিজি : ৭৩৬)। অর্থাৎ রোজা রাখার ক্ষেত্রে
শাবানের ২৭ তারিখের পরে না যাওয়া। কেননা, এর পরের দিনগুলো সন্দেহপূর্ণ। হাদিসে এ দিনগুলোয় রোজা রাখতে নিষেধ করা হয়েছে। হজরত কাতাদাহ (রা.) একটি হাদিস বর্ণনা করেন, নবী করিম (সা.) বলেছেনÑ ‘তোমরা রমজান মাস ও শাবান মাসের মাঝে এক বা দুদিনের ব্যবধান বজায় রাখো।’ (রোজা রাখা বর্জন করো)।’ (মুসান্নাফে আবদুর রাজ্জাক : হাদিস ৭৩১৬)
শাবান মাসের ফজিলতের আরেকটি কারণ হলো, এ মাসের ১৪ তারিখের বরকতময় দিবাগত রাত, যা শবে বরাত হিসেবে প্রসিদ্ধ। এ রাতে ইবাদতের মাধ্যমে মহান আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করা যায়। হাদিস শরিফে এসেছে, ‘আল্লাহ তায়ালা অর্ধ শাবানের রাতে তাঁর বান্দাদের প্রতি মনোযোগ দেন, ক্ষমাপ্রার্থীদের ক্ষমা করেন এবং অনুগ্রহপ্রার্থীদের ওপর অনুগ্রহ করেন। আর বিদ্বেষ পোষণকারীদের তাদের অবস্থাতেই ছেড়ে দেন।’ (শুয়াবুল
ঈমান : ৩৮৩৫)। বোঝা গেল, শাবান হলো আল্লাহ তায়ালার পক্ষ থেকে বিশেষ পুরস্কার ক্ষমা অর্জনের মাস। রমজানকে স্বাগত জানিয়ে নিজের প্রস্তুতি গ্রহণের মাস।
বিষেশত ইবাদত-বন্দেগির মাধ্যমে সময় কাটানো। সুতরাং শাবান মাসে নফল রোজা, জিকির, কোরআন তেলাওয়াত, দান-সদকা ও নফল রোজার মাধ্যমে প্রস্তুতি গ্রহণ করে রমজানের জন্য অপেক্ষা করা এবং সব গর্হিত কাজ থেকে দূরে থাকা। আল্লাহ তায়ালা শাবান মাসের গুরুত্ব বুঝে আমাদেন সবাইকে আমল করার তওফিক দান করুন।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]