ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা রোববার ৩১ মে ২০২০ ১৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭
ই-পেপার রোববার ৩১ মে ২০২০

করোনা আক্রান্তের সংখ্যায় সবাইকে ছাড়াল যুক্তরাষ্ট্র
সময়ের আলো ডেস্ক
প্রকাশ: শনিবার, ২৮ মার্চ, ২০২০, ১১:১৫ পিএম আপডেট: ২৮.০৩.২০২০ ১:১৫ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 130

যুক্তরাষ্ট্রে এখন করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বিশে^র যেকোনো দেশের চেয়ে বেশি। জনস হপকিন্স বিশ^বিদ্যালয়ের গবেষকদের হিসাব অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রে এখন ‘করোনাভাইরাস পজেটিভ’ রোগীর সংখ্যা ৮৫ হাজার ৭৬২ জন। অর্থাৎ আক্রান্তের সংখ্যা দিক দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ইতোমধ্যে এ ভাইরাসের উৎপত্তিস্থল চীন এবং প্রাদুর্ভাবের নতুন কেন্দ্রস্থল ইতালিকেও পেছনে ফেলেছে। জনস হপকিন্স বিশ^বিদ্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী, চীনে এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ৮১ হাজার ৭৮২ জন। আর ইতালিতে ৮০ হাজার ৫৮৯ জনের মধ্যে সংক্রমণ ধরা পড়েছে। বিবিসি।
বিশ^ জুড়ে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা এখন ৫ লাখ ৫২ হাজার ৯৪৩ জনে পৌঁছেছে। এ ছাড়া মারা গেছে ২৫ হাজার ৪৫ জন। তবে বিশ^ জুড়ে করোনার চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরেছে ১ লাখ ২৮ হাজার ৭০৬ জন। এখন বিশে^র ১৯৯টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে এ ভাইরাস।
গত বছরের শেষে চীনের উহান থেকে নতুন এ করোনাভাইরাসের উৎপত্তি হয়েছিল বলে ধারণা করা হয়। নানা কঠোর পদক্ষেপ এবং জনজীবনে বিধিনিষেধ জারি করে চীন আড়াই মাসে পরিস্থিতি অনেকটা নিয়ন্ত্রণে আনতে পেরেছে। কিন্তু এর মধ্যেই প্রাণঘাতী এ ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে বাকি বিশে^।
চীনের পর সবচেয়ে বেশি বাজে পরিস্থিতি হয় ইতালিতে। সেখান থেকে ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ে পুরো ইউরোপে, আফ্রিকায়, দক্ষিণ আমেরিকায় আর দক্ষিণ এশিয়ার অনেক দেশে। মার্চের মাঝামাঝি সময়ে পরিস্থিতি এমন দাঁড়ায় যে বিশ^ স্বাস্থ্য সংস্থা ইউরোপকে করোনাভাইরাস মহামারীর নতুন কেন্দ্রভূমি হিসেবে বর্ণনা করে।
কিন্তু এরপর যুক্তরাষ্ট্রে আক্রান্তের সংখ্যা হু হু করে বাড়তে থাকে। দুদিন আগে বিশ^ স্বাস্থ্য সংস্থা জানায়, যুক্তরাষ্ট্রই করোনাভাইরাস মহামারীর নতুন কেন্দ্রভূমি হয়ে উঠতে যাচ্ছে। তবে আক্রান্তের সংখ্যায় সবাইকে ছাড়িয়ে গেলেও যুক্তরাষ্ট্রে করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা এখনও চীন বা ইতালির চেয়ে কম। দেশটিতে এখনও পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা ১ হাজার ৩০৬। সুস্থ হয়েছে ১ হাজার ৮৬৮ জন।
করোনাভাইরাস মোকাবেলায় মার্কিন সিনেটে দুই লাখ কোটি (দুই ট্রিলিয়ন) ডলারের বিল পাস হয়েছে। মহামারীতে চাকরি হারানো কর্মী ও ক্ষতিগ্রস্ত শিল্পকে সুরক্ষা দেওয়ার পাশাপাশি জরুরি চিকিৎসা সরঞ্জাম কেনার জন্য এ অর্থ ব্যয় করা হবে। যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসে পাস হওয়া সবচেয়ে বড় অঙ্কের বিল এটি। করোনায় মৃত্যুর মিছিল দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হচ্ছে স্পেনে। ইউরোপের এ দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় প্রাণ হারিয়েছে আরও ৭৬৯ জন। শুক্রবার স্পেনের স্বাস্থ্যমন্ত্রী এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানিয়েছেন। বলেছেন, গত ২৪ ঘণ্টায় স্পেনে করোনায় রেকর্ড আরও ৭৬৯ জন মারা গেছে। এনিয়ে দেশটিতে করোনায় মোট প্রাণহানির সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪ হাজার ৮৫৮ জনে। করোনার প্রকোপ শুরু হওয়ার পর দেশটিতে এক দিনে সর্বোচ্চ প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে গত ২৪ ঘণ্টায়। আগের ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ৭৩৮ জনের প্রাণহানির রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে শুক্রবারের এ প্রাণহানি।
বৃহস্পতিবার স্পেনে লকডাউনের মেয়াদ বাড়ানোর ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। দেশটির সরকার বলেছে, করোনাভাইরাসের বিস্তার ও প্রাণহানি ঠেকাতে মেডিকেল সরঞ্জামের সরবরাহ দিতে গিয়ে প্রকৃত যুদ্ধের মুখোমুখি হয়েছে। করোনার রোগীদের জন্য ইতোমধ্যে চীন থেকে বিভিন্ন ধরনের চিকিৎসা সামগ্রী সংগ্রহ করেছে দেশটি।
ইতালিতে দেশটির স্বাস্থ্য খাতের কর্মীরা করোনা সংক্রমিতদের চিকিৎসাসেবা দিতে হিমশিম খাচ্ছেন। করোনায় প্রাণহানিতে চীনকে ছাড়িয়ে গেছে ইতালি এবং স্পেন। ইতালিতে এখন পর্যন্ত করোনায় মারা গেছেন ৮ হাজার ২১৫ জন। চীনে বর্তমান আক্রান্তের সংখ্যা ৮১ হাজার ৭৮২ এবং ইতালিতে আক্রান্তের সংখ্যা ৮০ হাজার ৫৮৯।
তবে মৃতের সংখ্যা ইতালিতে সবচেয়ে বেশি। এ পর্যন্ত দেশটিতে ৮ হাজার ২১৫ জন মারা গেছে। স্পেনে মৃতের সংখ্যা ৪ হাজার ৩৬৫, চীনে প্রাণহানি ৩ হাজার ২৯১, ইরানে ২ হাজার ২৩৪ ও ফ্রান্সে ১ হাজার ৬৯৬ জন। যুক্তরাষ্ট্রে মৃতের সংখ্যা ১ হাজার ২০০। বৃহস্পতিবার যুক্তরাষ্ট্রে এক দিনে সর্বোচ্চ সংখ্যক ২৮১ জন মানুষ করোনাভাইরাসে মারা গেছে।








সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]